রাজশাহীতে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ, ভাংচুর

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী সিটি নির্বাচনের দুই কাউন্সিলর পদপ্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষের সময় এক পক্ষ আরেক পক্ষের নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করেছে। এতে উভয় পক্ষের কয়েকজন আহত হয়েছেন। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে নগরীর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কেশবপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের বাইরে সংঘর্ষের এ ঘটনা ঘটে।
এই ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর ও এবারের নির্বাচনের টিফিন ক্যারিয়ার প্রতীকের প্রার্থী রুহুল আমিন টুনু এবং র‌্যাকেট প্রতীকের প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম বাবুর সমর্থকদের মধ্যে এই সংঘর্ষ ঘটে। রুহুল আমিন ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক। এখন আওয়ামী লীগের সমর্থক। তবে দলীয় কোনো পদ নেই। আর আশরাফুল ইসলাম ওয়ার্ড যুবলীগের সভাপতি।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুরে ভোটকেন্দ্রের সামনে দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। একটি খড়ির দোকানের চেলাকাঠ নিয়ে আশরাফুল ইসলামের লোকজন রুহুল আমিনের সমর্থকদের ধাওয়া দেন। এ সময় রুহুল আমিনের সমর্থকেরা পাল্টা ইটপাটকেল ছোড়েন। এই সংঘর্ষের সময় দুই পক্ষেরই নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করা হয়েছে। ক্যাম্পগুলোর চেয়ার ভেঙে ফেলা হয়েছে। সংঘর্ষের কারণে কিছু সময়ের জন্য ভোটকেন্দ্র ফাঁকা হয়ে যায়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করলে ভোটাররা কেন্দ্রে ফিরে আসেন।
প্রার্থী রুহুল আমিন টুনু বলেন, ‘টিফিন ক্যারিয়ারের পক্ষে জনজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে দেখে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী মানতে পারছেন না। তারা ভোটকেন্দ্রে এসে আমার ভোটারদের ঢুকতে বাধা দিচ্ছিলেন। একজন পোলিং এজেন্টকেও বের করে দেওয়া হয়। এরপর তারা আমার সমর্থকদের ওপর হামলা চালান। হামলায় আমার স্ত্রী বেবী আহত হয়েছেন।’
কথা বলার জন্য প্রার্থী আশরাফুল ইসলাম বাবুকে ফোন করা হলে তিনি ধরেননি। তাঁর ভাই মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘রুহুল আমিন টুনুর লোকজন আমাদের ভোটারদের কেন্দ্রে ঢুকতে বাধা দিচ্ছিলেন। এর প্রতিবাদ করলে তারা আমাদের দুটি নির্বাচনী ক্যাম্প ভাঙচুর করেছেন। পদ্মার বাঁধের ধারে আমাদের সমর্থকদের বাড়িতেও হামলা করা হয়েছে। একটি অটোরিকশা ভাঙচুর করা হয়েছে। হামলায় আমাদের পাঁচজন আহত হয়েছেন। তাঁদের চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।
এই ভোটকেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার বিবেকানন্দ বিশ্বাস বলেন, ভোটকেন্দ্রের বাইরে রাস্তায় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। ভোট গ্রহণে কোনো ঝামেলা হয়নি।
রাজশাহী নগর পুলিশের উপ-কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, অতিরিক্ত ফোর্স নিয়ে আমরা ঘটনাস্থলেই আছি। পরিস্থিতি আমাদের নিয়ন্ত্রণে। আর কেউ বিশৃঙ্খলা করতে পারবে না।


প্রকাশিত: জুন ২২, ২০২৩ | সময়: ৪:০৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর