বাকপ্রতিবন্ধী যুবকের টানে ঘর ছেড়েছিল বাকপ্রতিবন্ধী তরুণী

স্টাফ রিপোর্টার, বাঘা: বাক প্রতিবন্ধী কন্যার সাথে আরেক বাক প্রতিবন্ধী ছেলের বিয়ে ঠিক করেছিলেন কন্যার পিতা। কিন্তু বিয়েতে রাজি না হয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে সম্পর্ক করে অপর এক বিবাহিত বাক প্রতিবন্ধী যুবকের প্রেমের টানে ঘর ছিড়েছিল প্রতিবন্ধী কন্যা। অবশেষে থানায় অভিযোগ করে একবছর পর সেই কন্যাকে ফেরত পেলেন পিতা।
থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার চাঁদপুর গ্রামের বাক প্রতিবন্ধী মেয়ে বৃষ্টির (২২) সাথে রাজশাহী শহরের বাসিন্দা অপর এক বাক প্রতিবন্ধী (২৫) যুবকের বিয়ের কথা প্রায় চুড়ান্ত হয়। কিন্তু এ বিয়েতে রাজি না হয়ে ঢাকায় কর্মরত অপর এক বাক প্রতিবন্ধী বিবাহিত যুবক ওয়াশিমের সাথে ফেসবুকের মাধ্যমে প্রেমের টানে প্রায় একবছর পূর্বে ঘর ছাড়ে বাঘার চাঁদপুর গ্রামের প্রতিবন্ধী বৃষ্টি।
এ ঘটনায় প্রতিবন্ধী বৃষ্টির বাবা বাঘা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। সেই অভিযোগের ভিত্তিতে রবিবার ভোর রাতে ঢাকার মীরপুর এলাকার শেওরাপাড়া গ্রামের একটি ভাড়া বাড়ী থেকে ঐ প্রতিবন্ধী কন্যাকে উদ্ধার করে বাঘা থানা পুলিশ। মেয়েকে পেয়ে খুশিতে আপ্লুত হন প্রতিবন্ধী কন্যার পিতা ও তার পরিবার।
মামলার তদন্ত অফিসার বাঘা থানার উপ-পরিদর্শক মাহাফুজ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ভিকটিমকে উদ্ধার করলেও তার প্রেমিক ওয়াশিমকে আটক করা সম্ভব হয়নি। তবে ঘটনাস্থল এলাকার লোকজন পুলিশকে জানিয়েছে, তারা একে-অপরকে বিয়ে করে এলাকার একটি ভাড়া বাড়িতে বসবাস করছিলো।
বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন জানান, একজন বাক প্রতিবন্ধী মেয়ে নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি ছিল উদ্বেগের। অনেক পরিশ্রমের একপর্যায়ে রবিবার ভোর রাতে মেয়েটিকে উদ্ধার করে বাঘা থানায় আনা হয়। তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।


প্রকাশিত: জানুয়ারি ১৭, ২০২২ | সময়: ৬:৫২ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ