সর্বশেষ সংবাদ :

নয়ন হত্যার প্রতিবাদে রাজশাহীতে বিএনপি’র বিক্ষোভ

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের উপর নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করছে। এরই ধারাবাহিকতায় কুমিল্লাতে ছাত্রদল নেতা নয়ন মিয়াকে গুলি করে হত্যা করেছে পুলিশ। নয়ন মিয়া ব্রাক্ষণবাড়িয়ার সোনারামপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সহ-সভাপতি ছিলেন। গত শনিবার বিএনপি’র কুমিল্লা বিভাগীয় গণসমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে লিফলেট বিতরণকালে সরকারী দলের আজ্ঞাবহ পুলিশ সদস্য নয়নকে গুলি করে হত্যা করে।
নয়ন হত্যার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে মঙ্গলবার বিকেলে রাজশাহী জেলা ও মহানগর বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। নেতৃবৃন্দ নগরীর সাগরপাড়াস্থ বটতলার মোড় হতে বিক্ষোভ মিছিল শুরু করে রানীবাজার হয়ে নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ঐতিহাসিক ভুবনমোহর পার্কে এসে শেষ করেন। সেখানে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র আহ্বায়ক বীরমুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট এরশাদ আলী ঈশা।
প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার অন্যতম উপদেষ্টা, সাবেক মেয়র ও সংসদ সদস্য জননেতা মিজানুর রহমান মিনু। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির বন ও পরিবেশ বিবষয়ক সম্পাদক, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সাবেক সভাপতি ও রাসিক সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির ত্রাণ ও পূনর্বাসন বিষয়ক সহ-সম্পাদক ও রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট শফিকুল হক মিলন, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও রাজশাহী জেলা বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক সাইফুল ইসলাম মার্শাল, বিএনপি জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জেলা বিএনপি’র সদস্য দেবাশিষ রায় মধু, রাজশাহী মহানগর বিএনপি’র সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক নজরুল হুদা, রাজশাহী জেলা বিএনপি’র সদস্য সচিব অধ্যাপক বিশ^নাথ সরকার ও মহানগর বিএনপি’র সদস্য সচিব মামুনুর রশিদ।
উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপি’র জাহান পান্না, রোকনুজ্জামান আলম, রায়হানুল আলম রায়হান, অধ্যপাক সিরাজুল ইসলা, গোলাম মোস্তফা মামুন, তাজমুল তান টুটুল, শাহজাহান আলী, সদর আলী, তোফায়েল হোসেন রাজু, মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম আহবায়ক ওয়ালিউল হক রানা, আসলাম সরকার, দেলোয়ার হোসেন, শফিকুল ইসলাম শাফিক, জয়নাল আবেদিন শিবলী ও বজলুল হক মন্টু, যুবদল কেন্দ্রীয় কমিটি রাজশাহী বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, মহানগর যুবদলের সাবেক সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, মহানগর যুবদলের আহবায়ক মাহফুজুর রহমান রিটন, জেলা যুবদলের আহবায়ক মাসুদুর রহমান স্বজন, মহানগর যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম জনি প্রমুখ।
প্রধান অতিথি সাবেক সংসদ সদস্য এডভোকেট নাদিম মোস্তফার গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানান। সেইসাথে ২৪ ঘন্টার মধ্যে তাঁর মুক্তি দাবী করেন। তিনি বলেন, যে সকল আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্য এগুলো করছে বিএনপি তাদের তালিকা তৈরী করে রাখছে। ভবিষ্যতে এদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে উল্লেখ করেন তিনি। সেইসাথে আগামী ৩ ডিসেম্বরের রাজশাহী বিভাগীয় গণসমাবেশে সকাল ৯টার পূর্বে সকল নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণকে উপস্থিত হওয়ার আহ্বান জানান মিনু।
গণসমাবেশের দিন যতই ঘনিয়ে উঠছে, ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার ততই হিংস্র হয়ে উঠছে। তারাসহ আইন শৃংখলা বাহিনীকে দিয়ে জনগণকে গণসমাবেশে না আসার জন্য হুমকী দিচ্ছে। সেইসাথে বিএনপি অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীদের বাড়িতে বাড়িতে তল্লাসী ও আটক শুরু হয়ে গেছে। ইতোমধ্যে বগুড়ায় এ নিয়ে সোমবার সংবাদ সম্মেলন হয়েছে। রাজশাহীতেও বাড়ি বাড়ি জরিপ কাজ শুরু করেছে আইন শৃংখলা বাহিনী।


প্রকাশিত: নভেম্বর ২৩, ২০২২ | সময়: ৬:০৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ