নগরীতে ৫-১১ বছর বয়সী শিশুর কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন বিষয়ে কর্মশালা

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মহানগরীর ৫-১১ বছর বয়সী সকল শিশুকে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশনের জন্য ভ্যাকসিনেটরদের দিনব্যাপী কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার নগর ভবনের সরিৎ দত্ত গুপ্ত সভাকক্ষে আয়োজিত কর্মশালায় রাজশাহী সিটি করপোরেশনের স্বাস্থ্য সহকারীরা অংশগ্রহণ করেন। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন জনসংযোগ শাখা থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়।
বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, আগামী ২৫ আগস্ট হতে এ টিকা প্রদান করা হবে। চলবে ১৪দিন ব্যাপী। দুটি ডোজ প্রদান করা হবে। বাংলাদেশ সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ৫-১১ বছর বয়সী সকল শিশুকে টিকা প্রদান করা হবে। ১ম ডোজের ৮ সপ্তাহ বা ৫৬ দিনের ব্যবধানে ২য় ডোজ প্রয়োগ করতে হবে। সুরক্ষা এ্যাপসের মাধ্যমে চলমান নিবন্ধিতদের নির্ধারিত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও টিকাদান কেন্দ্রে কোভিড-১৯ টিকা প্রদান করা হবে। সকল প্রাথমিক বিদ্যালয়, কিন্ডারগার্টেন, ধর্মীয় ও অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং কমিউনিটিতে পাড়া মহল্লায় সকল ইপিআই টিকাদান কেন্দ্রে এ টিকাদান কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হবে।
এ ছাড়া নির্দিষ্ট টিকাদান কেন্দ্রের মাধ্যমে পেড্রিয়াট্রিক ফর্মুলেশন ফাইজার বায়োএনটেক কোভিড-১৯ টিকা প্রদান করা হবে।বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরী ব্যবহারের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত পেডিয়াট্রিক ফর্মুলেশন ফাইজার বায়োএনটেক কোভিড-১৯ এমআরএনএ (গজঘঅ) ভ্যাকসিন নিরাপদ এবং কার্যকরী। ভ্যাকসিন ডোজের পরিমান ০.২ এমএল। আরো জানানো হয়, যাদের হৃদরোগের ইতিহাস, হিমোফিলিয়া, এ্যালার্জিক প্রতিক্রিয়ার ইতিহাস আছে তাদের এবং অসুস্থ’ ও হাসপাতালে ভর্তিকৃত শিশুদের ফাইজার ভ্যাকসিন দেয়া যাবে না।
কর্মশালায় বক্তব্য দেন রাসিকের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ এফ.এ.এম আঞ্জুমান আরা বেগম। পেডিয়াট্রিক ফর্মুলেশন ফাইজার বায়োএনটেক কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন টিকাদান ও কোল্ড চেইন ব্যবস্থাপনায় সার্বিক কার্যক্রম বিষয়ে তথ্য উপস্থাপন করেন রাসিকের মেডিকেল অফিসার ডাঃ আমিনা ফেরদৌস ও আরসিসি পিএ- প্রকল্পের মেডিকেল অফিসার ডাঃ আফিফা জাহান। কর্মশালায় আরোও উপস্থিত ছিলেন রাসিকের ফুড এন্ড স্যানিটেশন অফিসার শেখ আরিফুল হক, স্বাস্থ্য ও শিক্ষা কর্মকর্তা দুলাল হোসেন।


প্রকাশিত: আগস্ট ২৩, ২০২২ | সময়: ৬:১০ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ