সর্বশেষ সংবাদ :

তানোর গোল্লাপাড়া হাট ঘর বরাদ্দ নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর তানোর উপজেলার গোল্পাপাড়া হাট ঘর বরাদ্দ নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সার্ভেয়ার পলক কুমারসহ আরো কয়েকজনের নজিরবিহীন দূর্ণীতিতে এ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে ভুক্তভোগী ব্যবসায়ীরা রাজশাহী জেলা প্রশাসক, বিভাগীয় কমিশনারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অভিযোগের অনুলিপি ভূমি মন্ত্রাণালয়ের সচিব, মন্ত্রী, দুদক মহাপরিচালক বরাবর পাঠানো হয়েছে।

লিখিত অভিযোগে ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, তারা দীর্ঘদিন ধরেই তানোর গোল্লাপাড়া হাটে ব্যবসা করে আসছেন। ঘর বরাদ্দের জন্য ব্যবসায়ীরা আবেদন করলে ডিসিআর প্রদান করা হয়। হাটের নকশা অনুযায়ি ঘর হওয়ার কথা ছিল ১৫৯টি। কিন্তু এখন পর্যন্ত (২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২২ইং) ২০০টির বেশি ডিসিআর প্রদান করা হয়েছে। সার্ভেয়ার পলক কুমার গোল্লাপাড়া হাটের চান্দিনা ভিটা, তোহা বাজারেও মনগড়া নকশা তৈরি করে ঘরে বরাদ্দ দিয়ে দিয়েছেন। এসব জায়গা বরাদ্দ না দেয়ার নিয়ম থাকলেও সার্ভেয়ার পলক কুমার লাখ লাখ টাকার বিনিময়ে ডিসিআর প্রদান করছেন। অনেককেই লটারিতে অন্তভূক্ত না হয়েও সার্ভেয়ার পলক কুমার ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন। এদের মধ্যে মেডিকেল ফার্মাসিস্ট ফরমান, ইকবাল, আনোয়ার হোসেন, নিতাই। এদের মধ্যে আলোচিত নাম ফরমান আলী। এর আগেও গোল্লাপাড়া বাজারে জোরপূর্বক ঘর দখল করার অভিযোগে ফরমান আলী সেই সময়ের নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরিন বানুর কাছে মুচলেকা দেন।

অপরদিকে লটারিতে নাম উঠার পরেও রাকিবুল সরকার পাপলু, সাফিন, হাবিবুর রহমানসহ বেশ কয়েকজনের নাম লটারিতে উঠলেও ঘর দেয়া হয়নি। বিশিষ্ট ধান গবেষক খরা সহিষ্ণু ধানের নতুন জাতের উদ্ভাবক রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত কৃষিবিদ ও ব্যবসায়ী নূর মোহাম্মদকে ঘর বরাদ্দ দেয়ার জন্য সুপারিশ করেন বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসক। কিন্তু তাকেও দেয়া হয়নি ঘর। অন্যদিকে রশিদ, বাদশার একাধিক জায়গা হাটে থাকার পরেও তাদের দেয়া জায়গা দেয়া হয়েছে। বাজারে পরিচিত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী বকুল ও প্রশান্তের কাছ থেকে জনপ্রতি ৫০ হাজার টাকা নেন সার্ভেয়ার পলক কুমার। এরপরেও তাদের ঘর দেয়া হয়নি। এ বিষয়ে ব্যবসায়ীরা সুষ্ঠু তদন্ত দাবি করেছেন।
এ বিষয়ে অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন জানান, এসব বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না। তানোর মিনি স্টেডিয়ামে তিনি খেলা শেখান। আমার একটি ঘরের আবেদন ছিল। আমি একটি ঘর বরাদ্দ পেয়েছি।

অভিযোগের বিষয়ে তানোর উপজেলার ভূমি সার্ভেয়ার পলক কুমার জানান, এসব অভিযোগ মিথ্যা। তিনি কোন মনগড়া নকশা তৈরি করে ঘর বরাদ্দ দেননি। আরো কিছু জানতে চাইলে তিনি কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

 

 

 

সানশাইন/০১ মার্চ/রনি


প্রকাশিত: মার্চ ১, ২০২২ | সময়: ৭:৩৮ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine