সর্বশেষ সংবাদ :

সারা দেশে গৃহহীনদের হাতে স্বপ্নের নীড় হস্তান্তর করলেন প্রধানমন্ত্রী

নুরুজ্জামান,বাঘা : পুলিশ বাহিনীকে সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, পুলিশকে জনগণের পুলিশ হতে হবে। বাংলাদেশের পুলিশ জনগণের সেবক হবে, জনগণের আস্থা অর্জন করবে। পুলিশের কাছে গেলে মানুষ ন্যায় বিচার পাবে। এই আত্মবিশ্বাসটা যেন মানুষের মাঝে সব সময় থাকে।

মুজিব শতবর্ষে একজন মানুষও গৃহহীন থাকবে না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত এই স্লোগানকে সম্মান জানিয়ে বাংলাদেশ পুলিশের পক্ষ থেকে দেশব্যাপী ভূমিহীন ও গৃহহীনদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় নির্মান করা স্বপ্নের নীড় এবং সকল থানায় স্থাপিত নারী, শিশু, বয়স্ক ও প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্কের শুভ উদ্বোধন কালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

রবিবার(১০-এপ্রিল)গণভবন থেকে সরাসরি ভার্চুয়াল সভার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী খুলনা বিভাগের মাগুরা, চট্টগ্রামের হাট হাজারি এবং রংপুরের পীরগঞ্জ পুলিশ প্রশাসন এর মাধ্যমে ঘর পাওয়া উপকার ভোগী ও পুলিশের নারী, শিশু হেল্প ডেস্ক থেকে সুবিধা পাওয়া মানুষের সাথে কথা বলেন তিনি।

এর আগে রাজারবাগ পুলিশ লাইন্স প্রান্ত থেকে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো: আখতার হোসেন ও বাংলাদেশ পুলিশের মহা-পরিদর্শক (আইজিপি) বেনজীর আহমেদ।

এ প্রসঙ্গে রাজশাহী জেলা পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ পারভেজ (বি.পি.এম)বার বলেন, মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রীর এই ঘোষণা বাস্তবায়নে আমাদের আইজিপি স্যার বিশেষ উদ্যোগ নেন। আমরা রাজশাহী জেলার ৯ থানায় ৯ টি গৃহহীন পরিবারকে ঘর করে দিয়েছি । এখন বাসস্থানের পাশা-পাশি হত দরিদ্র পরিবার গুলোকে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দেয়ার চেষ্টা করছি। এক্ষেত্রে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে স্থানীয়দেরকেও আহবান জানান তিনি।

এদিকে জেলার বাঘা থানা পুলিশের মাধ্যমে নতুন ঠিকানা (ঘর)পেয়ে আবেক আপ্লুত হয়েছেন বাউসা ইউনিয়নের দীঘা গ্রামের সুফিয়া বেগম(৬০)। তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, ‘স্বামীর মৃত্যুর পর খুব কষ্টে ছিলাম । মানুষের বাড়ি- বাড়ি কাজ করে পেট চলেছে। একমাত্র ছেলেকে নিয়ে থাকার জায়গা ছিল না। ঘর দিয়ে বৃষ্টির পানি পড়তো। গত ৩০ বছর প্রতিবেশী সমাজ হিতোশী মাজেদুল ইসলাম এর জমির উপরে এমনি ভাবে ঘর করে ছিলাম। পুলিশ আমাদের ঘর দিতে চাওয়ায় তিনি দুই শতক জমি রেজিস্ট্রি করে দিয়েছেন। এতে আমি চির ঋণী। আমি পুলিশ এবং মাজেদুলের জন্য সৃষ্টি কর্তার নিকট দোয়া প্রার্থনা করছি।দোয়া প্রার্থনা করছি, শেখের মেয়ে হাসিনা আপার জন্য।

সকাল ১১ টায় ভার্চুয়াল এ সভায় বাঘা থানা চত্বরে উপস্থিত ছিলেন,বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ(ওসি) সাজ্জাদ হোসেন সহ থানার সকল স্টাফ, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল,স্থানীয় রাজনৈতিক নেত্রীবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, সুধীজন এবং ঘর পাওয়া নারী সুফিয়া বেগম সহ স্থানীয় গনমাধ্যম কর্মীবৃন্দ।

এ সময় ওসি সাজ্জাদ হোসেন স্থানীয় সাংবাদিকদের বলেন, এই ঘরটি নির্মানে একলক্ষ ৯০ হাজার টাকা আর্থিক বরাদ্দ ধরা হলেও, আমরা প্রাই দুই লক্ষের বেশি অর্থ ব্যায় করেছি। এর ফলে নির্মিত ঘরটি অনেক টেকশয় হয়েছে। ব্যবস্থা রয়েছে বিদ্যুতের আলো। খুব শির্ঘই সেখাসে আমি ব্যাক্তিগত উদ্যোগে সেনিটেশানের ব্যবস্থা করে দেবো ।


প্রকাশিত: এপ্রিল ১০, ২০২২ | সময়: ৩:৩২ অপরাহ্ণ | আসাদুল্লাহ গালিব