Daily Sunshine

বাঘায় বিট পুলিশিং এর আয়োজনে সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত

Share

নুরুজ্জামানম,বাঘা : পুলিশি সেবার নতুন সংযোজন বিট পুলিশিং কার্যক্রম। প্রান্তিক জনপদের সর্বস্তরের মানুষের কাছে পুলিশিং সেবা পৌছে দেয়ারই লক্ষে এই সেবা কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এমনটি উল্লেখ করে বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী বাঘার ছয়টি ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে চলমান বিট পুলিশিং সেবা অফিসে গিয়ে স্থানীয় জনগণের সাথে সম্প্রীতি সমাবেশ অনুষ্ঠানে এমনই বক্তব্য রাখেন বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ(ওসি)সাজ্জাদ হোসেন। এর মধ্যে একটি ইউনিয়নে উপস্থিত ছিলেন চারঘাট সার্কেলের সিনিয়ার সহকারী পুলিশ সুপার শ্রী প্রনব কুমার ।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাজ্জাদ হোসেন বৃহস্পতিবার দিনব্যাপী উপজেলার ছয়টি ইউনিয়ন পরিষদে চলমান বিট পুলিশিং সেবা কেন্দ্রে গিয়ে সরকারের নানা উন্নয়ন চিত্র ও পুলিশিং সেবা কার্যক্রমকে আরো গতিশীল করার লক্ষে জনসাধারণের সহায়তা চেয়ে মুল্যবান বক্তব্য উপস্থাপন করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলের বাঘার ছয় ইউপি চেয়ারম্যান যথা ক্রমে:- মনিগ্রামের সাইফুল ইসলাম, পাকুড়িয়ার মেরাজুল ইসলাম মেরাজ, আড়ানীর রফিকুল ইসলাম, বাউসার শফিকুর রহমান, বাজুবাঘার ফিরোজ আহাম্মেদ রঞ্জু ও গড়গড়ির রবিউল ইসলাম রবি সহ স্থানীয় জনসাধারণ ও সুশীল সমাজের লোকজন। ।

এ সব সমাবেশে সাজ্জাদ হোসেন বলেন, একটি গণতান্ত্রিক দেশে প্রতিটি নাগরিকের পুলিশী সেবা প্রাপ্তির অধিকার রয়েছে। আমাদের আইজিপি স্যার ড. বেনজীর আহাম্মেদ উন্নত দেশের আদলে বাংলাদেশ পুলিশিং কার্যক্রমে আমলুক পরিবর্তন এনেছেন। পুলিশ বাহিনীকে আরও বেশি জনমুখী ও গতিশীল করতে, মানুষের দৌরগোড়ায় পুলিশি সেবা পৌঁছে দিতে সারাদেশে বিট পুলিশিং কার্যক্রম চালু করা হয়েছে। এখন থেকে পুলিশ জনগণের দ্বারে দ্বারে গিয়ে পুলিশি সেবা পৌঁছে দেবে। আর এমনটি লক্ষ-উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ পুলিশ।

তিনি বলেন, দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের বিভিন্ন মাপকাঠিতে বাংলাদেশ বিস্ময়কর সাফল্য অর্জন করেছে। উন্নয়নের এ অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে এবং টেকসই করতে হলে টেকসই ও সুষ্টু আইন শৃঙ্খলার রক্ষার কোন বিকল্প নেই। আর টেকসই আইন শৃঙ্খলার জন্য জনগণের সহযোগিতা ও সম্পৃক্ততা আমাদের একান্ত প্রয়োজন। এজন্য পুলিশকে গণমুখী ও জনবান্ধব করার জন্য সময়ের পথ পরিক্রমায় বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে। আমরা কমিউনিটি পুলিশিং কার্যক্রমকে এর উদাহরণ হিসেবে উল্লেখ করতে পারি।

সাজ্জাদ হোসেন আরো বলেন, এখন পুলিশে চাকরি এবং সেবা পেতো টাকা লাগে না। যদি কোন পুলিশ সদস্য সাধারণ মানুষের কাছ থেকে কোন মামলা, কিংবা জি.ডি বাবদ টাকা নেয় তাহলে আমাকে জানাবেন। আপনারা শুনে আনান্দিত হবেন, আমরা সম্প্রতি লিপলেট বিতরণ করেছি পুলিশে চাকরি নেয়ার জন্য কেউ যেন প্রতারণার শিকার না হন এবং কোন দালালের হাতে টাকা না দেন। এর একটিই কারণ পুলিশের ভূমিকাকে আরও উজ্জ্বল করা এবং পুলিশের প্রতি জনগণের আস্থার সংকট কাটিয়ে পুলিশই-জনতা, জনতায় পুলিশ, এমনটি মনভাব সৃষ্টি করা।

পৃথক-পৃথক এসব আলোচনা সভায় ইউপি চেয়ারম্যানগণ ভুক্তভুগী এবং সমাজের অভিজ্ঞ মহলরা বলেন, প্রান্তিক জনপদের মানুষ যারা কোন সমস্যা নিয়ে থানায় অভিযোগ করতে ভয় পেতো এখন তারা ইউনিয়ন কার্যালয়ে সপ্তাহে একদিন বিট পুলিশিং সেবা চালু হওয়ায় অনায়েসে অভিযোগ করতে পারছে এবং উপকৃত হচ্ছে। এ জন্য লোকজন বর্তমান পুলিশের মহা পরিদর্শককে আন্তরিক অভিনন্দন ও ধন্যবাদ জানান।

 

অক্টোবর ২১
২০:৩১ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]