Daily Sunshine

রাজশাহীজুড়ে ২৫ দিনে ভয়াবহ সংক্রমণ

Share

রাজশাহী বিভাগের আট জেলায় গত ২৫ দিনে ভয়াবহ ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনা। ১ জুন থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত ১৫ হাজার ৬৯৮ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে মারা গেছেন ২৩৬ জন। আর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ১ হাজার ৩৯৯ জন। তবে সুস্থ হয়েছেন ৫ হাজার ৪৫৯ জন করোনা রোগী।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের দৈনিক প্রতিবেদন বিশ্লেষণে এসব তথ্য জানা গেছে।

স্বাস্থ্য দফতরের সর্বশেষ (২৫ জুন) তথ্য অনুযায়ী, রাজশাহী বিভাগে করোনা শনাক্ত দাঁড়িয়েছে ৫১ হাজার ৫৫৫ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৩৬ হাজার ৯৯৪ জন। করোনায় বিভাগের আট জেলায় মারা গেছেন ৮০০ জন। হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ৫ হাজার ৩০৮ জন।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত ঈদুল ফিতরের পর ভারতীয় সীমান্তঘেঁষা চাঁপাইনবাবগঞ্জে হঠাৎ করেই বেড়ে যায় করোনা সংক্রমণ। প্রাণহানি পৌঁছায় সর্বোচ্চ পর্যায়ে। বিভাগে করোনার হটস্পট হয়ে ওঠে পশ্চিমের এই জেলা। নমুনা পরীক্ষায় ২৯ জুন এখানকার সাতজনের শরীরে করোনার দ্রুত সংক্রামক ভারতীয় ধরন শনাক্ত করে রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর)। এরপর সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে জারি করা হয় জোনভিত্তিক লকডাউন।

কিন্তু লকডাউন উপেক্ষা করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছেড়ে যায় নিম্ন আয়ের লোকজন। রাজশাহী হয়ে গণপরিবহনে চেপে জীবিকার তাগিদে তারা পাড়ি দেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তে।

এরপর হঠাৎই রাজশাহীর করোনা পরিস্থিতির মারাত্মক অবনিত ঘটে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাড়িয়ে বিভাগে করোনার হটস্পট হয়ে ওঠে রাজশাহী। ৩০ জুন পর্যন্ত রাজশাহী সিটি করপোরেশন এলাকায় কঠোর লকডাউন চলছে। তারপরও কমছে না সংক্রমণ ও প্রাণহানি।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের হিসাবে, গত ১ জুন থেকে ২৫ জুন পর্যন্ত বিভাগে সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৭৮৬ জনের করোনা ধরা পড়েছে রাজশাহীতে। প্রতিদিনই বিভাগে সর্বোচ্চ করোনা ধরা পড়েছে এই জেলায়। এই ২৫ দিনে জেলায় মারা গেছে ৫৭ জন। তবে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৭৯০ জন করোনা রোগী।

অন্যদিকে একই সময়ের মধ্যে চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬১ জনের। এই জেলায় করোনা ধরা পড়েছে ২ হাজার ৩০ জনের। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৩৬৭ জন।

এই ২৫ দিনে বগুড়ায় করোনা ধরা পড়েছে ৯৮৪ জনের। এর মধ্যে মারা গেছেন ৫১ জন। সুস্থ হয়েছেন ৬৩৯ জন। একই সময়ের মধ্যে নওগাঁয় প্রাণ হারিয়েছেন ২৯ জন। এই জেলায় করোনা ধরা পড়েছে মোট ১ হাজার ৮১৭ জনের। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ৭৪২ জন।

গত ২৫ দিনে করোনায় ২০ জনের প্রাণ গেছে নাটোরে। এই ২৫ দিনে জেলায় এ হাজার ৪০৭ জনের করোনা ধরা পড়েছে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১০১ জন। একই সময়ের মধ্যে সিরাজগঞ্জে করোনা শনাক্ত হয়েছে ৪৯৪ জনের। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১৭২ জন। এই ২৫ দিনে জেলায় করোনায় প্রাণ গেছে ৫ জনের।

গত ২৫ দিনে পাবনায় ৭২২ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছে একজন। করোনা জয় করেছে এই ৩৮৫ জন। একই সময়ের মধ্যে জয়পুরহাটে প্রাণ হারিয়েছেন ১২ জন। আক্রান্ত হয়েছেন ১ হাজার ৩৪৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ২৬৩ জন।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের হিসাবে, রাজশাহী বিভাগে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় গত বছরের ১২ এপ্রিল। গত বছরের ২৯ জুন বিভাগে করোনা সংক্রমণ ৫ হাজারে দাঁড়ায়। সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গত বছরের ২০ জুলাই পৌঁছে যায় ১০ হাজারে। সংক্রমণের মাত্রা তীব্র হওয়ায় প্রায় দুই মাসের ব্যবধানে ৩০ সেপ্টেম্বর সংক্রমণ দ্বিগুণ অর্থাৎ ২০ হাজারে পৌঁছায়।

এরপর কিছুটা কমে সংক্রমণের মাত্রা। এই বছরের ২০ জানুয়ারি সংক্রমণ পৌঁছায় ২৫ হাজারে। এ ছাড়া ১৯ এপ্রিল ৩০ হাজার, ৩০ মে ৩৫ হাজার অতিক্রম করে। গত ১০ জুন ৪০ হাজার এবং সর্বশেষ ২৪ জুন করোনা সংক্রমণ ছাড়িয়ে যায় ৫০ হাজার।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য দফতরের সহকারী পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. নাজমা আক্তার জানান, সংক্রমণ বৃদ্ধির অন্যতম কারণ স্বাস্থ্যবিধি না মানা। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে লকডাউন সত্ত্বেও লোকজন অসচেতন হয়ে চলাফেরা করছেন। সংক্রমণ এড়াতে অবশ্যই বিধিনিষেধ কঠোরভাবে মেনে চলতে হবে।

এই অঞ্চলে সংক্রমণ সীমান্ত এলাকা থেকে হয়েছে। বৈধ কিংবা অবৈধ উপায়ে সীমান্ত পারাপারের পর সংক্রমিত হয়েও বিষয়টি গোপন করেছেন লোকজন।

অনেকেই মৃদু সংক্রমণ দেখা দেওয়ার পর গোপনে বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। এ কারণেই এত সংক্রমণ বেড়েছে। শুধু ভারতীয় ধরণ নয়, এত দিন ধরে যে ধরণগুলোর সংক্রমণ হচ্ছিল, সেগুলোও ছড়িয়েছে। সংক্রমণ কিংবা লক্ষণ দেখা দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই অবশ্যই বিষয়টি সিভিল সার্জনের দফতরকে জানানোর পরামর্শ দেন এই স্বাস্থ্যকর্তা।

একই সঙ্গে করোনা রোগীর সংস্পর্শে এলে কিংবা পরিবারে কারও সংক্রমণ শনাক্ত হলে অন্যদেরও নমুনা পরীক্ষা করতে হবে বলে জানা তিনি।

জুন ২৬
২০:৩২ ২০২১

আরও খবর