Daily Sunshine

দুই কবির তিনটি কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন ও কাব্য পাঠ অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার : নিজস্ব প্রতিবেদক : কবি রুবি শামসুন নাহার ও রুনা আক্তার স্বপ্নার তিনটি কাব্যগ্রস্থ পাঠ ও মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা ৮টায় রাজধানীর ধানমন্ডির রাপা প্লাজায় এ অনুষ্ঠান করা হয়। প্রিয়জন কাব্য পরিষদের সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। তিনি সঞ্চালকের দায়িত্বও পালন করেন।

কবি ও লেখক রুবি শামসুন নাহারের একটি কাব্যগ্রন্থ ‘বিষন্ন সমুদ্রের গান’ ও রুনা আক্তার স্বপ্নার ‘তোমার হবো বলে’ ও স্মৃতি কথন নামে দুটি কাব্যগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। প্রাক্তন আর্মি অফিসার মেজর মো. আবু দাউদের সভাপতিত্বে কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি শুরু হয়। এর পর দুই কবির কাব্যগ্রন্থ থেকে কবিতা পাঠ করেন তরুণ কবি -সংগঠক শেখ আব্দুর রশিদ ও সিলেটের কবি মনিরা বেগম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলা একাডেমি পুরস্কারপ্রাপ্ত কবি জাহিদুল হক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কথা সাহিত্যিক জুবাইদা গুলশান আরা হেনা, কবি ও সংগঠক টিপু রহমান। এছাড়া দুই কবিসহ কবিতাপ্রেমী সংবাদিকরাও উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানটি অনানুষ্ঠানিকভাবেই শুরু হয়। কবিতা পাঠের পর কবি জাহিদুল হক কবি রুবী শামসুন নাহারের কবিতায় নারীবাদিতার অভিযোগ করে কিছুটা সমালোচনা করেন।

এর পর দুই কবির পরিচয় তুলে ধরা হয়। রুবী শামসুন নাহার ও রুনা আক্তার স্বপ্নার প্রথম কাব্যগ্রন্থ এটি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথি ও কবিদের ফুল দিয়ে বরণ করা হয়। এর পর কাব্যগ্রন্থ তিনটি আনুষ্ঠানিকভাবে মোড়ক উন্মোচন করেন কবি জাহিদুল হক।

শুরু হয় আলোচনা পর্ব। এ পর্বে সভাপতি মেজর (অব.) আবু দাউদ সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে অনুষ্ঠানের সাফল্য কামনা করেন। এরপর কবি সংগঠক টিপু রহমান রুনা শামসুন নাহারের কবিতা পাঠ করেন ও তার নান্দনিক আলোচনা করেন। তিনি বলেন, “সাধারণ মানুষ যেভাবে ভাবে না বলে কবিতার তার থেকে একটু ভিন্নভাবে উপস্থাপন করেন তার বক্তব্য। তিনি কবির মঙ্গল কামনা করেন।”

কথা সাহিত্যিক জুবাইদা গুলশান আরা হেনা তার বক্তব্যে বাংলা একাডেমির সমালোচনা করে কিছু আক্ষেপের কথা বলেন। তিনি কবি-লেখকদের সঠিক মূল্যায়নের কথা জানান। তিনি তার অনুজ কবিদের অভিনন্দন জানান। এ আলোচনার মাঝখানে সিলেটের কবি নিলুফার সুলতানা লিপি রুবী শামসুন নাহার ও রুনা আক্তার স্বপ্নার কাব্যগ্রন্থ থেকে দুটি কবিতা পাঠ করেন।

এর পর রুবী শামসুন নাহার তার সদ্য প্রকাশিত প্রথম কবিতার বই বিষন্ন সমুদ্রের গান ও তার লেখালেখি সম্পর্কে বলেন। আর সিলেট হবিগঞ্জের কবি রুনা আক্তার স্বপ্না তার দুটি কাব্যগ্রন্থ ও লেখালেখি সম্পর্কে বলতে গিয়ে সার্বিক সহযোগিতার জন্য তার স্বামীকে ধন্যবাদ জানান। এসময় তার স্বামী ব্যাংক কর্মকর্তা আবদুল্ল্যাহ মঞ্চে এসে তার পত্নীর লেখালেখি সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানান।

আলোচনার শেষ পর্যায়ে প্রধান অতিথি কবি জাহিদুল হক নতুন দুই কবি ও কাব্যগ্রন্থ সম্পর্কে আলোচনা ও সমালোচনা করেন। শেষে দুই কবিকে অভিনন্দন ও কবিতা চর্চা চালিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন। তিনি কবিদের নারীবাদিতা পরিহার করে নিজের মতো করে কবিতা লেখায় অনুপ্রাণিত করেন। বিংশ শতাব্দির স্বাধীনচেতা নারীদের আদলে যেন তারা তাদের কবিতায় নারীদের চিত্রায়িত করেন এ দাবি জানান।

অনুষ্ঠান সমাপ্তির আগে আয়োজন ও প্রিয়জন কাব্য পরিষদের সভাপতি মোসলেহ উদ্দিন তার সংগঠন সম্পর্কে বিস্তারিত জানান ও তাদের ত্রৈমাসিক পবিত্র নান্দনিক কিনে পড়ার অনুরোধ জানা। আর আগত অতিথিদের কষ্ট করে এ মোড়ক উন্মোচন ও কাব্যপাঠ অনুষ্ঠানে আসার জন্য ধন্যবাদ জানান। এবং সবাইকে নৈশভোজের আমন্ত্রণ জানান। নৈশভোজ শেষে ফটোসেশনের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয়।

 

মার্চ ০২
১৩:৫৪ ২০১৯

আরও খবর