Daily Sunshine

বাঘা উপজেলা নির্বাচনে আ’লীগের সম্ভাব্য প্রার্থী বাবুল

স্টাফ রিপোর্টার,বাঘা : একাদশ জাতীয় সাংসদ নির্বাচন শেষ হতে না হতে রাজশাহীর বাঘায় শুরু হতে যাচ্ছে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতিকে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।এ দিক থেকে ক্ষমতাসীন দল আ’লীগের একাধিক প্রার্থী ইতোমধ্যে দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়-ঝাপ শুরু করেছেন। তবে রাজনৈতিক নানা দুরদর্শিতা, দলীয় নেতা-কর্মীদের সাপট ও সততার কারণে এবার সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় রয়েছেন দলের উপজেলা সাধারণ সম্পাদক ও বাঘা মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক আশরাফুল ইসলাম বাবুল।
সংশ্লিষ্ঠ সুত্রে জানা গেছে, আগামি ফেব্রুয়ারী মাসে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষনা এবং মার্চে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সে লক্ষে দেশের বড় দুটি রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ ও বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশিরা ইতোমধ্যে গণসংযোগ শুরু করেছেন। তবে এখন পর্যন্ত যাদের নাম শোনা যাচ্ছে, তাদের মধ্যে আ’লীগ থেকে সাংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন বঞ্চিত প্রার্থী ও বাঘা পৌর সভার সাবেক মেয়র আক্কাছ আলী এবং দলের সংগ্রামী উপজেলা সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল ও গত উপজেলা নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী আজিজুল আলম অন্যতম । এর মধ্যে আক্কাস আলী নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে লিপ্ত থাকায় দলীয় ভাবে এবার সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় ১৯৮৬ সালে বিএনপি কর্তৃক নির্যাতিত আশরাফুল ইসলাম প্রায় চুড়ান্ত বলে মন্তব্য করেছেন দলের ত্যাগী নেতা সহ বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌর সভার নেতৃবৃন্দ।
খোদ উপজেলা আওয়ামী লীগের পদধারী একাধিক নেতার সাথে যোগাযোগ করা হলে তাঁরা বলেন, বাঘা পৌর সভায় সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার অভিযোগে আদালতে মামলা দায়ের করে একটানা ১২ বছর ক্ষমতায় থেকে পৌর এলাকায় উন্নয়নে অবদান না রাখলেও দুর্ণীতিতে চ্যাম্পিয়ান হয়ে তিন-তিনবার নির্বাচিত সাংসদ ও গণমানুষের নেতা আলহাজ শাহরিয়ার আলমের ব্যপক উন্নয়নের বিপরীতে একাধিকবার তীর ছুড়েছেন আক্কাস আলী। লোকজন জানান, গত বছরর পৌর নির্বাচনে পরাজয়ের পর থেকে তিনি নানা বিতর্কিত কর্মকান্ডে লিপ্ত ।
বাঘা উপজেলা আ’লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম মন্টু ও একাধিকবার কারাবন্দী ত্যাগী নেতা মাসুদ রানা তিল-সহ অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, গত ৩০ ডিসেম্বর সাংসদ নির্বাচনের পুর্বে ঢাকায় কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত বৈঠকেও জনপ্রিয় এমপি শাহরিয়ার আলমের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ার চেষ্টা করে আক্কাস আলী। ঘটনার এক পর্যায় শীর্ষ নেতাদের ধমকে চুপসে যান তিনি।
এর আগে বাঘায় জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদত বার্ষিকী উপলক্ষে উপজেলা আ’লীগের ব্যানারে অনুষ্ঠিত সভায় না এসে পৃথক ভাবে শোকসভা ও র্যালী করেন আক্কাস আলী। সেখানে প্রকাশ্যে বর্তমান সাংসদ আলহাজ শাহরিয়ার আলমের বিরুদ্ধে বিষদাগার গান তিনি।
সর্বশেষ ২০১৮ সালে ৩০ ডিসেম্বর সাংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন পাচ্ছেন না জেনে বাঘা হাইস্কুল মাঠে আ’লীগের জনসভার বিপরিতে তিনি কলেজ মাঠে জনসভার ডেকে সেখানে শাহরিয়ার আলমের বিপরিতে নানা অপকান্ড ছড়িয়ে বক্তিতা করেন। এ সব কারনে উপজেলা আ’লীগের কমিটির সাথে যারা সম্পৃক্ত তাঁরা দলের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুলকেই প্রার্থী হিসাবে দেখতে চাইছেন।
উপজেলা আলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়াহেদ সাদিক কবির বলেন, ক্ষমতাসীন দল আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে থেকেও বাবুল ইসলাম কখনো ক্ষমতার অপব্যবহার করেননি। তিনি চাইলে অনেক-কিছু করতে পারতেন। কিন্ত তার মাঝে আমরা কোন দাম্ভিকতা দেখিনি। এটা তাঁর জন্য প্রশংসনীয় এবং ইতিবাচক বলে আমরা মনে করি।
বাঘা উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল বলেন, মানুষ সবায় উপরে উঠতে চাই। এ দিক থেকে যে ব্যাক্তি একটানা ১২ বছর পৌর পিতার দায়িত্ব পালন করে পরাজিত হন, সেই ব্যাক্তি কেন সাংসদে মনোনয়ন চাইবেন আর কেনইবা সেখানে মনোনয়ন না পেয়ে নিচের সারিতে এসে উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থীতা ঘোষনা দেবেন এটা আমার বোধগম্য নয়। তবে তিনি দলীয় প্রার্থী হলে এলাকায় উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখবেন বলে অভিমত ব্যাক্ত করেন।
প্রক্ষান্তরে উপজেলা নির্বাচনে অংশ নেয়া প্রসঙ্গে বাঘার সাবেক মেয়র আক্কাছ আলী বলেন, বাঘা পৌর সভায় দির্ঘদিন মেয়র হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছি। এবার উপজেলা চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চাই। আশা করি দল আমাকে মনোনয়ন দিবেন।

জানুয়ারি ২১
১১:৫৫ ২০১৯

আরও খবর