Daily Sunshine

তরুণ নেতৃত্ব চায় পোরশাবাসী

স্টাফ রিপোর্টার : একাদশ নির্বাচন শেষ। এ নির্বাচন থেকে সংসদ সদস্য হিসেবে পোরশাবাসী পেয়েছেন সাধন চন্দ্র মজুমদারকে। যিনি বর্তমানে খাদ্যমন্ত্রী। তার নেতৃত্বে অবহেলিত এ অঞ্চলে উন্নয়নের ছোঁয়া লেগেছে। এবার উপজেলা নির্বাচন সামনে। উন্নয়নের সিঁড়ি বেয়ে আরো এক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার পালা। ইতোমধ্যে কে হবেন নৌকার প্রার্থী তা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। তবে সাধারণ ভোটারটা তরুণ নেতৃত্বের প্রতি মত দিয়েছেন।
পোরশা উপজেলার সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তারা এমন কাউকে চায় যিনি পোরশার অব্যাহত উন্নয়নকে আরো বেশি গতিশীল করে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবে। পোরশা উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চাইতে পারেন এমন প্রার্থীর সংখ্যা ৫ জন। যাদের কথা সাধারণ মানুষের মুখে শোনা যাচ্ছে।
আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন চাইতে পারেন উপজেলা সভাপতি ও বর্তমান উপজেলা পরেষদ চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম, সহসভাপতি অধ্যক্ষ শাহ মঞ্জুর মোরশেদ চৌধুরী ও ওবাইদুল্লা শেখ, সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন এবং তরুণদের মাঝে জনপ্রিয় নেতৃত্ব ও পোরশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ড. আজিজ।
এদের মধ্যে সাধারণ ভোটাররা তরুণ নেতৃত্ব হিসেবে ড. আজিজকেই পছন্দের শীর্ষে রেখেছেন। ড. আজিজ জে কে এগ্রো প্রাইভেট লিমিটেড, আহনাফ আজিজ ফিসিং প্রজেক্ট, আনুশা আজিজ ম্যাংগো প্রজেক্ট, জান্নাত ক্যাটেল ফ্যাটানিং প্রজেক্টের চেয়ারম্যান। বর্তমানে তিনি পোরশা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে আছে। তার রাজনৈতিক জীবন শুরু ছাত্র রাজনীতি থেকে। তিনি পোরশা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ছিলেন। এছাড়াও বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের কেন্দ্রিয় কমিটির সহ সাধারণ সম্পাদক ছিলেন, রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয়ে পড়ার সময় রাবি শাখা শহিদ সৌহরাওয়ার্দী হল ছাত্রলীগের সহসভাপতি ছিলেন। এছাড়াও বিএনপির সরকারের সময় অসংখ্যবার তিনি শারিরীকভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন।
আওয়ামী লীগের খারাপ সময়ে বলিষ্ট ভূমিকা পালন করা এ নেতা পোরশা উপজেলা তরুণদের মাঝে তুমুল জনপ্রিয়। তরুণ ও সাধারণ ভোটাররা তাকেই উপজেলা চেয়ারম্যান পদে দেখতে চাইছেন।
উপজেলার পোরশা গ্রামের হাসান শাহ নামে এক তরুণ। পেশায় দর্র্জি। তিনি জানান, পোরশা উপজেলা আগের চেয়ে অনেক বেশি উন্নত হয়েছে। আগামীতে এ উন্নয়ন খাদ্যমন্ত্রী ও সাংসদ সাধন চন্দ্র মজুমদারের হাত ধরে আরো এগিয়ে যাবে। তবে এ উন্নয়ন এগিয়ে নিয়ে যেতে উপজেলা পর্যায়ে যোগ্য নেতৃত্ব প্রয়োজন। আর সেটি সম্ভব ড. আজিজের মতো যোগ্য নেতৃত্বের মাধ্যমেই।
উপজেলার শুড়িপুকুর গ্রামের মিঠুন কুমার মণ্ডল জানান, সুস্থ ও আধুনিক রাজনীতি বলে একটি কথা আছে। যা থেকে আমাদের উপজেলা অনেক পিছিয়ে আছে। রাজনীতিতে শিক্ষিতদের অংশগ্রহণ বাড়াতে হবে। যারা উপর মহলে কথা বলতে সক্ষম। সাধারণ মানুষের দাবিগুলো তুলে ধরে কাজ আদায় করে নিতে পারবে। আর সেটি ড. আজিজের পক্ষেই সম্ভব।
হাসান শাহ ও মিঠুন কুমার মণ্ডলের মতো বেশিরভাগ যুবকরা চায় ড. আজিজের মতো নেতৃত্ব সামনে আসুক ও পোরশার চলমান উন্নয়নকে সাধারণ মানুষের ঘরে ঘরে পৌঁছে দিক।
এদিকে, আওয়ামী লীগের পাশাপাশি বিএনপির ৩জন, জাতীয় পার্টির ১ জন ও বাংলাদেশ ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী হিসেবে ১ জনের নাম শোনা যাচ্ছে।
বিএনপি থেকে উপজেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহসভাপতি ও সাবেক তেঁতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিকুর রহমান চৌধুরী, সাবেক তেঁতুলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান শাহাজামাল চৌধুরী, নিতপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান ছাদেকুল ইসলাম। জাতীয় পার্টি নেতা এ্যাডভোকেট গোলাম মোর্তজা। ইসলামী আন্দোলন থেকে দলটির সাবেক সম্পাদক কাওছার কামাল চৌধুরী।
পোরশা উপজেলার ৬টি ইউপি নিয়ে নির্বাচনী এলাকা উপজেলায় ভোটার সংখ্যা ৯৭ হাজার ৬৯৯ জন।

 

জানুয়ারি ১৭
২২:৪২ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

শাহ্জাদা মিলন: বাংলাদেশের অন্যতম বিভাগীয় শহর রাজশাহী। সিল্কসিটি, আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত সারা দেশে রাজশাহী। তবে এসব পরিচয় ছাপিয়ে রাজশাহী ‘শিক্ষা নগরী’ হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিচিত। অসংখ্য নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এখানে। এর সুফলে রাজশাহীতে বছর বছর বাড়তে ডিগ্রিধারী মানুষের সংখ্যা। তবে সেই অনুপাতে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। রাজশাহীতে রয়েছে রাজশাহী

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত