Daily Sunshine

এলো খুশির ঈদ

Share

স্টাফ রিপোর্টার : এক দুই করে পবিত্র মাহে রমজানের ২৮ রোজা পার হলো। আজ শনিবার ২৯ রমজান। দুয়ারে কড়া নাড়ছে খুশির ঈদ। আজ পশ্চিামাকাশে পবিত্র শাওয়ালের চাঁদ দেখা গেলে আগামীকাল রবিবার ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে। চাঁদ দেখা না গেলে সোমবার হবে ঈদুল ফিতর।
তবে এবছর অন্য আবহে এলো মুসলমানদের অন্যতম প্রধান ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণরোধে এবার ঈদ হবে ঘরে ঘরে। ঈদগাহ বা খোলা জায়গায় নামাজ আদায়ের পরিবর্তে মসজিদে হবে ঈদের জামাত।
ফলে এবছর হয়তো একেবারেই আলাদা আমেজে পালিত হবে ঈদ। প্রতি বছরের ন্যায় এবার হয়তো পাড়া মহল্লায় উঁচু ভলিউমে বাজবে না জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ’ গানটি। আর গানের তালে তালে রঙিন পোষাকে আতর-সুরমা মেখে হয়তো রাস্তায় থাকবে না মানুষের ভিড়। সৌহার্দ্য ও ভ্রাতৃত্বের আবেশে হবে না কোলাকুলি।
কারন গত বৃহস্পতিবার (১৪ মে) ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয় ঈদের নামাজ আদায়ে নির্দেশনা দিয়েছে। এতে বলা হয়েছে, ঈদগাহ বা খোলা জায়গার পরিবর্তে আসন্ন পবিত্র ঈদুল ফিতরের নামাজের জামায়াত নিকটস্থ মসজিদে আদায় করতে হবে। কাতারে দাঁড়ানোর ক্ষেত্রেও সামাজিক দূরত্ব ও স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করতে হবে। ঈদের নামাজের জামায়াতের সময় মসজিদে কার্পেট বিছানো যাবে না। নামাজের পূর্বে সম্পূর্ণ মসজিদ জীবানুনাশক দ্বারা পরিষ্কার করতে হবে। মুসল্লিগণ প্রত্যেকে নিজ নিজ দায়িত্বে জায়নামাজ নিয়ে আসবেন। মসজিদে জামায়াত শেষে কোলাকুলি এবং পরস্পর হাত মেলানো পরিহার করার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। নির্দেশনা লঙ্ঘিত হলে স্থানীয় প্রশাসন ও আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণকারী বাহিনী সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।
তবে এমন নির্দেশনাতেও থেমে নেই মানুষের ঈদ প্রস্তুতি। কিভাবে ঘরে বসে ঈদ উদযাপন করা যায়, সেই পরিকল্পনায় ব্যস্ত স্বাস্থ্যসচেতনরা। অন্যদিকে, স্বাস্থ্যঝুঁকি নিয়েও ঈদের কেনাকাটা সারছেন অনেকেই, চলছে আড়ম্বর ঈদ উদযাপনের প্রস্তুতি।
এমন পরিস্থিতিতেও সারাদেশের মত রাজশাহী বিভাগেও চলছে মানুষের ঈদ প্রস্তুতি। সাধারণ ছুটির কারনে পূর্বেই বিভাগীয় এ শহর ছেড়েছিল শিক্ষার্থী ও অন্য পেশাজীবিরা। তাই আগে থেকেই ফাঁকা ছিল নগরী। এছাড়াও ঈদ নিকটবর্তী হওয়ার সাথে সাথে শহর ছাড়ছেন বাকিরাও। যার ফলে প্রায় ফাঁকা নগরী ঈদের আগেই দেখেছে নগরবাসী।
এদিকে, করোনা ভাইরাসের কারনে জনগনের দাবির প্রেক্ষিতে জনপ্রতিনিধি, স্থানীয় প্রশাসন ও ব্যবসায়ীদের যৌথ সিদ্ধান্তে বন্ধ রাখা হয়েছে রাজশাহীর সকল মার্কেট। তারপরেও কিছু অসাধু ব্যবসায়ী গোপনে দোকানপাট খুলছে। আর অতি উৎসাহী কিছু মানুষ যাচ্ছেন ঈদের কেনাকাটা করতে।
এ অবস্থা রুখে করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে রাজশাহীর প্রশাসন। সেনাবাহিনী, পুলিশ, বিজিবিসহ সকল আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা তৎপর রয়েছেন। বাজারে অহেতুক ঘোরাফেরা করলে দেয়া হচ্ছে লঘু শাস্তি।
এছাড়াও গত বৃহস্পতিবার কেনাকাটা করতে গেলে বাজারে ধরে ধরে এক হাজার টাকা করে জরিমানা করেছে রাজশাহী জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমান আদালত। এছাড়াও জরিমানা না দিলে রাস্তায় ঘন্টাখানেক দাঁড় করিয়ে রাখা হয়। প্রশাসনের এমন নজরদারিতে পরিস্থিতি কিছুটা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তবে এখনো প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বেচাকেনা চলছে এমন খবরও পাওয়া গেছে।
এদিকে, কিছুটা আমেজের ভাব রয়েছে জেলার বিভিন্ন উপজেলায়। তুলনামূলক কম স্বাস্থ্য সচেতন মানুষেরা ঈদ কেনাকাটা ও অন্যান্য প্রস্তুতি নিচ্ছে। ঘরে বাইরে রয়েছে অবাধ চলাফেরা। তবে উপজেলাগুলোতেও কড়াকড়ি অবস্থানে রয়েছে প্রশাসন। তারপরেও প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে উপজেলার বাজারগুলোতে চলছে কেনাকাটা। এর আগে, শহরের মার্কেট বন্ধ থাকায় গ্রামাঞ্চলের বাজারে ঈদের কেনাকাটা করতে গেছেন নগরবাসী এমন খবরও প্রকাশিত হয়েছে।
তবে কেনাকাটা না করলেও গ্রামীণ জনপদের কাছে ঈদের খুশিটা যেন একটু বেশিই থাকে। লেখাপড়া ও অন্যান্য কাজে বাইরে থাকা সন্তান, আত্মীয়-স্বজনদেরকে কাছে পাওয়ায় ঈদের আগেই শুরু হয়ে যায় তাদের ঈদ আনন্দ।
এমনটাই জানালেন রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলার ছপুরা খাতুন। ঈদের আগেই ছেলে আসলাম ঘরে ফিরে আসায় মহাখুশি এই মা।
তবে ঈদের দিনের নানা আনুষ্ঠানিকতা পালন না করতে পারা ও ঈদ পরবর্তী সময়ে বিনোদনকেন্দ্রগুলোতে ঘুরতে না পারার আক্ষেপ পোড়াবে অনেককেই। এ নিয়ে আফসোস করেছেন অনেক তরুণ-তরুণীই।
নগরীর আশফাক আহমেদ বলেন, ঈদের সময়ের মূল মজাটাই হলো ঘোরাঘোরি। কিন্তু এই ঈদে করোনা ভাইরাসের কারনে ঈদে ঘোরাঘুরি করা যাবে না। আফসোস হলেও জীবনের মূল্য অনেক বেশি। তাই ঘরেই ঈদ পালন করবো।

মে ২৩
০৩:১২ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

লো প্রোফাইলে থাকা হাই প্রোফাইল এক শিল্পী

লো প্রোফাইলে থাকা হাই প্রোফাইল এক শিল্পী

সানশাইন ডেস্ক : গান নিয়েই ছিল তাঁর যত ব্যস্ততা। একটা নতুন গান করার জন্য উদগ্রীব থাকতেন। প্রচারণার জন্য কারও সঙ্গে সম্পর্ক রক্ষা নয়, গান করাটাকেই বড় কাজ বলে মানতেন তিনি। বিশ্বাস করতেন, শেষ পর্যন্ত তাঁর কণ্ঠটাকেই মনে রাখবে মানুষ। তাঁর গায়কিই মানুষকে বাধ্য করবে তাঁর কাছে ছুটে আসতে। নিজের ওপর,

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

৩৮তম বিসিএসে সুপারিশ পেলেন ২২০৪ জন

৩৮তম বিসিএসে সুপারিশ পেলেন ২২০৪ জন

সানশাইন ডেস্ক : ৩৮তম বিসিএসের চূড়ান্ত ফল আজ মঙ্গলবার প্রকাশ করেছে সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি)। এই বিসিএসে ২ হাজার ২০৪ জনকে নিয়োগের সুপারিশ করেছে পিএসসি। ফলাফল পিএসসির ওয়েবসাইটে পাওয়া যাচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে ফলপ্রত্যাশীদের অপেক্ষার পালা শেষ হলো। পিএসসি সূত্র জানায়, আজ বিকেলে বিশেষ সভা শেষে পিএসসি ৩৮তম বিসিএসের চূড়ান্ত

বিস্তারিত