Daily Sunshine

আইসিসি ইভেন্ট পেতে সবচেয়ে বড় স্টেডিয়াম তৈরি করছে শ্রীলঙ্কা

Share

স্পোর্টস ডেস্ক: শ্রীলঙ্কান সরকার ও শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের যৌথ উদ্যোগে দেশটিতে ৪০ হাজার দর্শক ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন স্টেডিয়াম তৈরি হচ্ছে। দেশটির সবচেয়ে বড় ক্রিকেট হতে যাচ্ছে হোমাগামাতে। ডাম্বুলা, কলম্বো ও হাম্বানটোটায় ৩৫,০০০০ দর্শক ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন স্টেডিয়াম আছে। মূলত আইসিসির ইভেন্ট পেতে নতুন স্টেডিয়াম তৈরি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দ্বীপরাষ্ট্রটি। ২৬ একর জায়গার ওপর নির্মিত স্টেডিয়ামে দিবারাত্রির ম্যাচ আয়োজনের ব্যবস্থা থাকবে। তিন বছরেই স্টেডিয়ামটি তৈরি হয়ে যাবে বলে জানিয়েছে ক্রিকেট শ্রীলঙ্কা।
কলম্বোর ভেতরে এটিই হবে দ্বিতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম যা দিবারাত্রির ম্যাচ আয়োজন করতে পারবে। দেশটির মন্ত্রী সাম্মি সিলভা বলেছেন,‘পুরো স্টেডিয়ামটি তৈরি করতে ৩০ থেকে ৪০ মিলিয়ন ডলার খরচ হবে।’
শ্রীলঙ্কায় মোট আটটি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম আছে। ক্যান্ডি, কলম্বো, গল, ডাম্বুলা, হাম্বানটোটা, পাল্লাকেল্লে ও মাতারায় ক্রিকেট স্টেডিয়াম রয়েছে। তাহলে নতুন স্টেডিয়াম কেন? গণমাধ্যমে এসেছে, ২০২৩-২০৩১ পর্যন্ত আইসিসির ইভেন্টগুলোর জন্য নতুন স্টেডিয়াম তৈরি করছে শ্রীলঙ্কা। এই আট বছরে আইসিসির মোট ২৪টি ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে ছেলেদের ৮টি, মেয়েদের ৮টি ও অনূর্ধ্ব-১৯ এর ৮টি ইভেন্ট রয়েছে। ইভেন্টগুলো পেতে সদস্য দেশগুলোকে বিডিং প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে যেতে হবে। শ্রীলঙ্কাও ইভেন্টগুলো পেতে বিড করবে।
তবে নতুন স্টেডিয়াম তৈরি সিদ্ধান্ত পছন্দ হয়নি শ্রীলঙ্কার সাবেক অধিনায়ক মাহেলা জয়াবর্ধনের। টুইটারে জয়াবর্ধনে বলেছেন,‘আমাদের যে স্টেডিয়ামগুলো আছে সেখানেই আমরা পর্যাপ্ত আন্তর্জাতিক ম্যাচ, প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলি না। মাঠগুলো ফাঁকা পড়ে থাকে। তাহলে নতুন স্টেডিয়াম কেন?’

মে ২০
০৫:০০ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ঈদুল ফিতর : গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ঈদুল ফিতর : গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ড. মোঃ আমিনুল ইসলাম : আরবী ঈদ শব্দটি ‘আওদ’ শব্দমূল থেকে উদ্ভূত। এর আভিধানিক অর্থ হল প্রত্যাবর্তন করা, বার বার ফিরে আসা। মুসলমানদের জীবনে চান্দ্র বৎসরের নির্দিষ্ট তারিখে প্রতি বছরই দুটি উৎসব বর্তমান! এই দিন দুটি সুনির্দিষ্ট সময়ে ফিরে ফিরে আসে। তাই দিন দুটিকে ঈদ বলা হয়। ফিতর শব্দের অর্থ

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

বিআইডব্লিউটিএ’কে পিপিই ও মাস্ক দিল বসুন্ধরা গ্রুপ

বিআইডব্লিউটিএ’কে পিপিই ও মাস্ক দিল বসুন্ধরা গ্রুপ

সানশাইন ডেস্ক : করোনাকালে দুর্গতদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে দেশের শীর্ষ শিল্প গোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে নিয়োজিত বসুন্ধরা গ্রুপ করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষায় এবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)-কে পিপিই এবং মাস্ক হস্তান্তর করেছে। বুধবার (২০ মে) মতিঝিলে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেকের

বিস্তারিত