Daily Sunshine

রোগী কমেছে রামেক হাসপাতালে

Share

করোনাভাইরাস আতঙ্ক
স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী মেডিকের কলেজ (রামেক) হাসপাতালের আউটডোর ও ওয়ার্ড পর্যায়ে ভর্তি রোগীর সংখ্যা হঠাৎ কমেছে। করোনা পরিস্থিতির কারণ দেখিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ থাকায় রোগী আসছে কম। প্রতিদিন যেখানে হাসপাতালটিতে গড়ে রোগী আসতেন ৬ থেকে ৭ হাজার সেখানে এই পরিস্থিতিতে রোগী আসছে ১২শ থেকে ১৫শ।
হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের দাবি তারা চিকিৎসা না দিয়ে কোন রোগীকে ফিরিয়ে দিচ্ছেন না। এদিকে রোগী ও চিকিৎসাসেবা কর্মীদের নিরাপত্তার কারণ দেখিয়ে নগরীর প্রাইভেট ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিকগুলোতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকেরা রোগী দেখা বন্ধ করে দিয়েছেন।
রাজশাহী নগরীর ক্লিনিক পাড়া হিসেবে পরিচিত লক্ষীপুর এলাকা এখন পুরোটাই স্তব্ধ। বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিকগুলো বন্ধ। তবে ওষুধের দোকানগুলো খোলা আছে। দোকানগুলোর সামনে ক্রেতাদের চাইতে বিভিন্ন ওষুধ কম্পানির প্রতিনিধিই বেশি ভিড় করছেন। তাদেরকে দিন-রাত লক্ষীপুর মোড়ের বিভিন্ন ওষুদের দোকানের সামনে জটলা পাকিয়ে দাড়িয়ে আড্ডা দিতে দেখা যাচ্ছে।
এদিকে পরপর দুই দিন সকালে রামেক হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, প্রতিদিন যে আউটডোরে হাজারো রোগী ও তাদের স্বজনদের পদচারণায় ভরপুর থাকতো সেই আউটডোরে ভিড় নেই বললেই চলে। করোনা পরিস্থিতির কারণে সর্দি,কাশি, জ্বর ও শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত রোগীদের আউটডোর ভবনের বাইরে প্যাণ্ডেল করে চিকিৎসকদের পৃথক ইউনিট দিয়ে সেবা ও ওষুধ দেয়া হচ্ছে। ভবনটির ভেতরে আউটডোর কাউন্টার ও চিকিৎসকদের চেম্বারের সামনে রোগীর সংখ্যা সামান্য। তবে আউটডোরে বিভিন্ন ওষুধ কম্পানির প্রতিনিধিরা দল বেধে দাড়িয়ে আছেন, নয়তো বিক্ষিপ্ত ভাবে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। হাসপাতালের ইমাজেন্সি গেটের সামনে দাড়িয়ে দেখা যায়, বিভিন্ন যানবাহন বিক্ষিপ্ত ভাবে দাড়িয়ে থাকলেও, মানুষের উপস্থিতি তুলনামূলক কম।
ইমাজেন্সি হয়ে ওয়ার্ডে প্রবেশের গেটে আগে যেখানে লাইন ধরে ভেতরে প্রবেশ করতে হতো, সেই গেট পুরোটাই ফাঁকা। চার-পাঁচ জন আনসার ও গেটম্যান প্রবেশ গেটে দাড়িয়ে নিজেরা গল্প করছেন। ওয়ার্ডগুলোতে রোগী ও তাদের স্বজনদের ভিড় কম। মার্চের শুরুতেও ওয়ার্ডে ভর্তি রোগীর চাপে হাসপাতলের বারান্দায় রোগীদের শুয়ে থাকতে দেখা যেতো, এখন সেই বারান্দা ফাঁকা ও আগের তুলনায় পরিস্কার। যারা বিচরণ করছেন তাদের প্রায় প্রত্যেই মুখে মাস্ক পরা।
রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, গত ২৪ ঘন্টায় (মঙ্গলবার) রামেক হাসপাতালের আউটডোরে ৪০০ রোগী চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করেছে। এসময় বিভিন্ন ওয়ার্ডে রোগী ভর্তি হয়েছে ৬৫০জন। অন্যান্য সময় আউটডোরে গড়ে ৪ হাজার রোগী সেবা নিতো। আর ওয়ার্ডে রোগী ভর্তি হতো গড়ে ২২শ। রোগী কমার কারণ হিসেবে তিনি জানান, যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ থাকার কারণে হাসপাতালে রোগী কম আসছে। তবে ইমাজেন্সি রোগীরা এ্যাম্বুলেন্সযোগে নয়তো কোননা কোন ভাবে ঠিকই আসছে। ডা. সাইফুল ফেরদৌস দাবি করেন, কোনো রোগীকে চিকিৎসা সেবা না দিয়ে ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে না। ২৪ ঘন্টাই হাসপাতাল খোলা আছে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বা সিন্টম নিয়ে আসা রোগীদেরও রামেক হাসপাতাল থেকে ফিরে যেতে হবে না। তবে সরকারি নির্দেশনার কারণে আউটডোর সকাল ৮টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত খোলা থাকছে। দেশের বর্তমান পরিস্থিতির মধ্যে রোগীদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে হাসপাতল কর্তৃপক্ষ হটলাইন নম্বর চালু করেছে। যেকেউ ঘরে বসে মোবাইলে কল করেই করোনাভাইরাস সংক্রমণ বিষয়ে পরামর্শ নিতে পারবেন।

এপ্রিল ০১
০৪:৩২ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ঈদুল ফিতর : গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ঈদুল ফিতর : গুরুত্ব ও তাৎপর্য

ড. মোঃ আমিনুল ইসলাম : আরবী ঈদ শব্দটি ‘আওদ’ শব্দমূল থেকে উদ্ভূত। এর আভিধানিক অর্থ হল প্রত্যাবর্তন করা, বার বার ফিরে আসা। মুসলমানদের জীবনে চান্দ্র বৎসরের নির্দিষ্ট তারিখে প্রতি বছরই দুটি উৎসব বর্তমান! এই দিন দুটি সুনির্দিষ্ট সময়ে ফিরে ফিরে আসে। তাই দিন দুটিকে ঈদ বলা হয়। ফিতর শব্দের অর্থ

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

বিআইডব্লিউটিএ’কে পিপিই ও মাস্ক দিল বসুন্ধরা গ্রুপ

বিআইডব্লিউটিএ’কে পিপিই ও মাস্ক দিল বসুন্ধরা গ্রুপ

সানশাইন ডেস্ক : করোনাকালে দুর্গতদের জন্য কাজ করে যাচ্ছে দেশের শীর্ষ শিল্প গোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। দেশ ও দেশের মানুষের কল্যাণে নিয়োজিত বসুন্ধরা গ্রুপ করোনা ভাইরাস থেকে রক্ষায় এবার নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের অধীনস্থ বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ)-কে পিপিই এবং মাস্ক হস্তান্তর করেছে। বুধবার (২০ মে) মতিঝিলে বিআইডব্লিউটিএ’র চেয়ারম্যান কমডোর গোলাম সাদেকের

বিস্তারিত