Daily Sunshine

বাঘায় ইউএনওর ভালোবাসায় সিক্ত হলো এতিম শিশুরা

Share

স্টাফ রিপোর্টার, বাঘা: ‘বলো কি তোমার ক্ষতি, জীবনের অথৈ নদী, পার হয় তোমাকে ধরে, দুর্বল মানুষ যদি’ শিল্পী ভুপেন হাজারিকার এই সোচ্চার উচ্চরণে এবার মহান বিজয় দিবস ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবে এতিম শিশু ও বৃদ্ধাশ্রমের অসহায় মানুষের পাশে এসে দাঁড়ালেন বাঘা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পাপিয়া সুলতানা।
বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার সরের হাট কল্যানী শিশু সদনের অসহায় এতিম শিশু এবং বৃদ্ধাশ্রমের প্রায় দেড় শতাধিক মানুষের মাঝে তিনি খাবার বিতরণ করেন।
বাঘা উপজেলা নির্বাহী অফিসার পাপিয়া সুলতানা বলেন, আমি রাষ্ট্রীয় দায়িত্ব পালনের পাশা-পাশি সাধ্য মতো সমাজের অসহায়-দুস্থ মানুষদের সহায়তা দিতে চাই। তিনি বলেন, মহান বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস, নববর্ষ এবং ঈদের দিন হাসপাতাল এবং জেলখানায় উন্নত খাবারের ব্যবস্থা করা হয়।
এদিক থেকে বৃদ্ধাশ্রম এবং এতিম খানা সহ সমাজের অসহায় দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে পারলে নিজেকে ভালো লাগে। তিনি বৃহস্পতিবার দুপুরে এই খাবার কিতরণের সময় উপজেলার সকল অফিসারদের সাথে রাখেন।
বাঘা উপজলো কৃষি অফসিার, প্রাণিসম্পদ অফসিার, সমাজ সেবা অফসিার সহ অন্য দপ্তররের র্কমর্কতারা বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাঝে মধ্যে সমাজের অসহায় দরিদ্রদের পড়া-লেখা সহ বিভিন্ন বিষেয়ে সহায়তা দিয়ে থাকেন। তার এই উদ্যোগে আমরাও গর্বিত।
প্রসঙ্গত, রাজশাহী শহর থেকে ৪৫ কিলোমিটার পূর্বে পদ্মা নদীর তীর ঘেঁষে বাঘা উপজেলার গড়গড়ি ইউনিয়নের সরেরহাট গ্রাম। ওই গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা শামসুদ্দিন ওরফে ডা. শমেস ১২ শতাংশ জমি কিনে চালু করেন একটি এতিম খানা। যার নাম দেয়া হয় ‘সরেরহাট কল্যাণী শিশু সদন।’ পরে সেখানে এতিমদের পাশা-পাশি বৃদ্ধাশ্রম খোলা হয়।
বর্তমানে এই সদনে ১৪০ জন এতিমের পাশা-পাশি ৩০ বৃদ্ধ অবস্থান করছেন। আর তাদের সাথে বাস করছেন সমেশ দম্পতি।

ডিসেম্বর ১৮
০৬:০০ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]