Daily Sunshine

রাজশাহীতে বিনম্র শ্রদ্ধায় শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণ

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে নানা কর্মসূচির ধ্য দিয়ে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত হচ্ছে। মঙ্গলবার সকাল থেকেই ফুলে ফুলে ভরে ওঠে রাজশাহীর শহীদ স্মৃতিসৌধগুলো। রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সরকারি কর্মকর্তা এবং সাধারণ মানুষ পুষ্পার্ঘ অর্পণের মধ্য দিয়ে বিনম্র শ্রদ্ধায় স্মরণ করছেন শহীদ বুদ্ধিজীবীদের।
সকালে আওয়ামী লীগের প্রেসেডিয়াম সদস্য রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনে পক্ষে প্যানেল মেয়র ১ শরিফুল ইসলাম বাবুর নেতৃত্বে কাউন্সিলররা রাজশাহী মহানগরীর টি-গ্রোয়েন এলাকায় বাবলাবন বধ্যভূমিতে থাকা স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন। এরপর অন্যারা এই বধ্যভূমির স্মৃতিসৌধে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
এর আগে মঙ্গলবার সকাল ৯টায় রাজশাহী কোর্ট চত্বর শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. মো. হুমায়ুন কবীর, রাজশাহী জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. আব্দুল জলিল, রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. আবু কালাম সিদ্দিক ও রাজশাহী পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন।
এদিকে, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও রুয়েটেও যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়। এদিন সূর্যদয়ের সঙ্গে সঙ্গে রাবি প্রশাসন, আবাসিক হল ও অন্যান্য ভবনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতভাবে উত্তোলন করা হয়।
এরপর সকাল সাড়ে ৭টায় মৌন মিছিল নিয়ে উপাচার্য প্রফেসর গোলাম সাব্বির সাত্তার তাপু, উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও প্রফেসর মো. সুলতানুল ইসলাম, রেজিস্ট্রার আবদুস সালাম, প্রক্টর লিয়াকত আলীসহ রাবি প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করেন।
অন্যদিকে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়েও (রুয়েট) যথাযোগ্য মর্যাদায় শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করা হয়েছে। দিবসের প্রথম প্রহরে রুয়েট উপাচার্য প্রফেসর ড. মো. রফিকুল ইসলাম সেখের নেতৃত্বে মহান মুক্তিযুদ্ধে রুয়েটের শহীদদের সমাধিস্থলে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়। এরপর শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। পরে দোয়া করে এবং মোমবাতি প্রজ্বলনের মধ্য দিয়ে প্রথম প্রহরের কর্মসূচি শেষ হয়। এছাড়াও বাদ যোহর রুয়েট কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।
রাজশাহী মহিলা কলেজ মাঠে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট কথা সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। বিকেলে রাজশাহী জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে পৃথক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
রাজশাহী কলেজ : যথাযোগ্য মর্যাদায় রাজশাহী কলেজে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস পালিত হয়েছে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে দিনের শুরুতেই কালো ব্যাজ ধারণ, জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভাসহ নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
মঙ্গলবার সকাল ১১টার দিকে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক ও উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. ওলিউর রহমানের নেতৃত্বে কলেজের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ম্যুরালে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমান, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ প্রমূখ।
শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। পরে অধ্যক্ষের সভাপতিত্বে কলেজ মিলনায়তনে শহিদ বুদ্ধিজীবীদের জীবন ও কর্মের উপর গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করা হয়।
আলোচনা সভায় কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক বলেন, আমরা বুদ্ধিজীবী দিবস পালন করছি ভালোবেসে। শহীদরা তাদের জীবন দিয়ে আমাদের স্বাধীন দেশ উপহার দিয়ে গেছেন। তাদের অবদান কিন্তু পিতা-মাতার অবদানের চেয়ে কম বলা চলবে না।
তিনি আরো বলেন, শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমেই তাদের অবদানের মূল্যায়ন করতে হবে। ঘুষ, দুর্নীতি, অন্যায় করলে তাদেরকে অপমান করা হবে। শহীদদের আত্মা শান্তি পাবে না। শহীদদের অবদানের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ, ভালোবাসা, তাদের আত্মত্যাগের কথা স্মরণ করে দেশের জন্য কাজ করে যাওয়াই আমাদের লক্ষ্য হতে হবে।
এসময় উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. ওলিউর রহমান, বাংলা বিভাগের শিক্ষক ও সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক কমিটির প্রধান প্রফেসর ড. মো. ইব্রাহিম আলীসহ শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা মুক্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন। আলোচনা সভায় বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বাদ যোহর কলেজ মসজিদে মহান মুক্তিযুদ্ধে ও ১৪ ডিসেম্বর ঘাতকদের হাতে শাহাদতবরণকারী সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।
রাজশাহী সরকারী মহিলা কলেজ : দিবসটি উপলক্ষে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ও পরে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের স্মরণে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়। এরপর কলেজ প্রাঙ্গনে শেখ রাসেল দেয়ালিকার উদ্বোধন করা হয়।
কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. জুবাইদা আয়েশা সিদ্দীকার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী সরকারী মহিলা কলেজের প্রতিষ্ঠাকালীন শিক্ষার্থী, প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক ও লেখক সেলিনা হোসেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, একাত্তরে গণহত্যার মধ্য দিয়েই আমাদের স্বাধীনতা অর্জন হয়েছে। স্বাধীনতা এবং বাংলা ভাষা যুদ্ধ করে আমরা অর্জন করেছি। তাই বিশ্বের দরবারে বাংলা ভাষাকে স্বমহিমায় তুলে ধরতে হবে। তাহলে স্বাধীনতা যে লক্ষ্য নিয়ে অর্জন করা হয়েছে সেটি স্বার্থক হবে।
তিনি বলেন, আজকের দিনটির তাৎপর্য নতুন প্রজন্মকে বুঝতে হবে। কত রক্ত, কত ত্যাগের বিনিময়ে আমরা এই স্বাধীন দেশ পেয়েছি সেটি সবাইকে অনুধাবন করতে হবে। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের দেশের রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক প্রেক্ষাপট যেভাবে তৈরি হয়েছে, অন্য দেশের সেভাবে হয়নি। মুক্তিযুদ্ধের দীর্ঘ নয় মাসের দুর্দশার চিত্র নিয়ে অনেক গল্প, উপন্যাস, নাটক, সিনেমা তৈরি হয়েছে। সেগুলো থেকেই বর্হিবিশ্ব বাংলাদেশের অবস্থা সর্ম্পকে জানতে পেরেছে।
তিনি আরও বলেন, অনেক ষড়যন্ত্র করেই এই দিনে দেশের খ্যাতিমান লোকদের হত্যা করা হয়েছে, যাতে বাংলাদেশ মেধাশূন্য হয়ে পড়ে। তাই এই সকল শহীদের ত্যাগের মহিমা আমাদের শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করতে হবে। স্মরণ করার সাথে সাথে দেশকে বিশ্বের দরবারে তুলে ধরতে হবে। স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে বাংলার মর্যাদা অনেক।
কলেজের শিক্ষক আলমাস মল্লিক ও ফাতেমাতুজ জোহরার সঞ্চালনায় সভায় রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান প্রফেসর মো. তানভিরুল আলম, কলেজ উপাধ্যক্ষ প্রফেসর ড. নাজনীন সুলতানা, শিক্ষক সম্পাদক তোফাজ্জল হোসেন মোল্লাসহ বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক ও শিক্ষার্র্থীরা উপস্থিত ছিলেন। সভা শেষে কলেজের পক্ষ থেকে প্রধান অতিথিকে সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদান করা হয়। এছাড়াও কলেজের কুইজ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মঝে পুরষ্কার তুলে দেন সেলিনা হোসেন।
রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি : দিবসটি উপলক্ষে ঘাতকদের হাতে শাহাদতবরণকারী দেশের সূর্য সন্তানদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি (আরসিআরইউ)। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে কলেজের কেন্দ্রিয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা জানায় সংগঠনটির সংবাদকর্মীরা।
শ্রদ্ধা নিবেদনে ইউনিটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক ও রাজশাহী কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. আব্দুল খালেক, উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোহা. ওলিউর রহমান, প্রাক্তন অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।
এসময় সংগঠনটির সভাপতি এম ওবাইদুল্লাহ ও সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জ্বল বিদ্যুতের পক্ষে সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান, দপ্তর সম্পাদক আব্দুল হাকিম, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক সেহের আলী দুর্জয়, নির্বাহী সদস্য আবু সাঈদ রনি, সহযোগী সদস্য কামরুল ইসলাম, আফসানা মিমি প্রমূখ উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে রাজশাহীসহ বিভিন্ন স্থানে নানা কর্মসূচির মাধ্যমে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উদযাপন ও মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যেছিল শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মোমবাতি ও প্রদীপ প্রজ্বলন, আলোচনা ও দোয়া মাহফিল।
পবা উপজেলা: ২৪০ জন মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা সদস্যদের এ সংবর্ধনা দেয়া হয়। এরআগে উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শহীদ মিনারে ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে এসব অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আয়েন উদ্দিন। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) লসমী চাকমা’র সভাপতিত্বে ও উপজেলা পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা শাসুন্নাহারের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ইয়াসিন আলী ও ভাইস চেয়ারম্যান ওয়াজেদ আলী খান। বক্তব্য রাখেন সহকারী কমিশনার (ভুমি) শেখ এহসান উদ্দিন ও উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম।
এদিকে শহীদ মিনার ও ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর সময় উপস্থিত ছিলেন পবা উপজেলা আওয়ামী লীগ সহসভাপতি গোলাম মোস্তফা ও বেগম সুফিয়া হাসান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোতাহার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক ও আবু সামা, দপ্তর সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, সহদপ্তর সম্পাদক নজরুল ইসলামসহ নেতৃবৃন্দ।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ: চাঁপাইনবাবগঞ্জে শহীদ বৃদিদ্ধজীবী দিবস ও বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের শাহাদত বার্ষিকী পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে বীরশ্রেষ্ঠ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীরের স্মৃতিস্তম্ভে পুুুষ্পাঞ্জলি অর্পণ করেন জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা কমান্ড, সদর উপজেলা প্রশাসন, শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগ, সড়ক ও জনপদ বিভাগ। সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য ফেরদৌসি ইসলাম জেসি, জেলা প্রশাসক মোঃ মঞ্জুরুল হাফিজ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদমাহবুব আলম খান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহান, উপজেলা চেয়ারম্যান তসিকুল ইসলাম তসি, শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রাকিবুল আহসান, সড়ক ও জনপদ বিভাগের নিসর্বাহী প্রকৌশলী সানজিদা আফরিন ঝিনুক, শ্রদ্বা নিবেদন করেন। অন্যদিকে সোনামসজিদ ও গণকবরে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করা হয়।
মান্দা: মঙ্গলবার দুপুরে ইউএনওর সভাকক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু বাক্কার সিদ্দিক। সভায় বক্তব্য দেন উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এমদাদুল হক মোল্লা, ভাইস চেয়ারম্যান মাহবুবা সিদ্দিকা রুমা, উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বিজয় কুমার রায়, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শায়লা শারমিন, মান্দা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মেহেদী মাসুদ, উপজেলা রিসোর্স ইন্সট্রাক্টর কায়সার হাবীব, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিম, উপজেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আফছার আলী মন্ডল, খোদাবক্স মিয়া ও ইব্রাহীম হোসেন, শিক্ষক অনুপ কুমার মহন্ত, সাইফুর রহমান ও কান্তি কুমার সরকার।
ভোলাহাট: মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নুরল হকের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভারপ্রাপ্ত উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সমর কুমার পাল, সাবেক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মনিরুদ্দিন মুন্টু, ডিপুটি মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার তৈয়মুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা একরামুল হক, রুস্তুম আলী, সেতাউর রহমান, মোঃ নেজামুদ্দিন, উপজেলা মাধ্যমিক কর্মকর্তা তৌফিকুল ইসলামসহ অন্যরা।
পত্নীতলা: উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লিটন সরকারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভার শুরুতে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য আলহাজ্ব শহীদুজ্জামান সরকার। একাডেমিক সুপার ভাইজার মোরশেদুল ইসলামের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পত্নীতলা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব আব্দুল গাফ্ফার। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আহাদ রাহাদ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান খাদিজাতুল কোবরা মুক্তা, পত্নীতলা থানার অফিসার্স ইনচার্জ সামসুল আলম শাহ্, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা প্রকাশ চন্দ্র সরকার, সাবেক উপজেলা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান।
ধামইরহাট: ইউএনও গনপতি রায়ের সভাপতিত্বে শহীদ বুদ্ধিজীবীদের বিনম্র শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আজাহার আলী, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সিব্বির আহমেদ, ওসি কেএম রাকিবুল হুদা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি দেলদার হোসেন, সরকারি এম এম কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. শহিদুল ইসলাম, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও যুবলীগ সম্পাদক সোহেল রানা, কৃষি অফিসার কৃষিবিদ শাপলা খাতুন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জুলফিকার আলী শাহ, উপজেলা ভারপ্রাপ্ত সমাজসেবা কর্মকর্তা এটিএম ফসিউল আলম, প্যানেল মেয়র ও উপজেলা প্রেস ক্লাব সম্পাদক মেহেদী হাসান, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক কমান্ডার আব্দুর রউফ, বীর মুক্তিযোদ্ধা অফির উদ্দিন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু সুফিয়ান হোসাইন সহ বিভিন্ন সরকারী দপ্তরের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
নিয়ামতপুর: উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ আল মামুনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফরিদ আহমেদ। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার সেলিম উদ্দিনের পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আইয়ুব হোসাইন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নাদিরা বেগম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মনজুরুল আলম, অফিসার ইন চার্জ হুমায়ন কবির। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ও বাহাদুরপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ, নওগাঁ জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আবেদ হোসেন মিলন, সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান বিপ্লব, মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেন, উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি বাবু ঈশ্বর চন্দ্র বর্মন।
গোমস্তাপুর: দিবসটি উপলক্ষে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রহনপুর বিজিবি ক্যাম্পের সামনে বদ্ধভুমিতে মাল্যদান, মোমবাতি ও প্রদীপ প্রজ্বলন ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন গোমস্তাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান। বক্তব্য দেন সাবেক সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোস্তাফা বিশ্বাস, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হুমায়ুন রেজা, রহনপুর পৌর মেয়র মতিউর রহমান খান, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা তানভীর আহমেদ সরকার, বীরমুক্তিযোদ্ধা আকতার আলী কচি খান, মোস্তফা কামাল ও তাজুল ইসলাম সোনার্দী, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সেরাজুল ইসলাম টাইগার।
পোরশা: মঙ্গলবার উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ইউএনও নাজমুল হামিদ রেজা। সভা উপস্থাপন করেন ইউআরসি ইন্সট্রাক্টর কামারুজ্জামান সরদার। এসময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) জাকির হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান কাজীবুল ইসলাম, থানা অফিসার ইনচার্জ শফিউল আজম খান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইউনুস আলী সহ কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ডিসেম্বর ১৫
০৬:৩৩ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]