Daily Sunshine

মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেটভুক্তি নিয়ে জামুকার সিদ্ধান্ত হাই কোর্টে বাতিল

Share

সানশাইন ডেস্ক: উপজেলা পর্যায়ে বাদ পড়া মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্য থেকে গ্যাজেটভুক্ত করার ক্ষেত্রে তাদের সংখ্যা ভাতাভোগী মুক্তিযোদ্ধার ১০ শতাংশে সীমাবদ্ধ রাখার যে সিদ্ধান্ত আড়াই বছর আগে জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল (জামুকা) দিয়েছিল, তা বাতিল করেছে হাই কোর্ট।
এবিষয়ে তিনটি রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে দেওয়া রুল যথাযথ ঘোষণা করে বৃহস্পতিবার বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মো. মাহবুব-উল ইসলামের বেঞ্চ এ রায় দেয়। রিটের পক্ষে আদালতে রুল শুনানি করেন আইনজীবী তৌফিক ইনাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ওয়ায়েস-আল-হারুনী।
উপজেলা যাচাই-বাছাই কমিটির মাধ্যমে প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা চূড়ান্ত করে ২০১৯ সালের ১৮ এপ্রিল একটি পরিপত্র জারি করে জামুকা। তাতে বলা হয়, উপজেলায় গেজেটে অন্তর্ভুক্ত হয়নি এমন মুক্তিযোদ্ধাদের গেজেটভুক্তির জন্য বিদ্যমান রাষ্ট্রীয় ভাতা-ভোগী সাধারণ মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যার ১০ শতাংশের বেশি তালিকাভুক্ত করা যাবে না। এতে দুই বছর আগের সে তালিকা থেকে বাদ পড়েন অনেকেই।
২০১৭ সালের ওই তালিকায় অন্তর্ভুক্তদের মধ্য থেকে সাভার সদর, সিরাজগঞ্জের কাজীপুরসহ কয়েকটি উপজেলার বেশ কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধা ২০২০ সালের অগাস্ট জামুকার ওই পরিপত্র চ্যালেঞ্জ করে রিট আবেদন করেন। সেগুলো শুনানির পর বীর মুক্তিযোদ্ধাদের গ্যাজেটে অন্তর্ভুক্ত করার ক্ষেত্রে সংখ্যা বেঁধে দেওয়ার সিদ্ধান্ত কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে হাই কোর্ট রুল জারি করে। সে রুলটি যথাযথ ঘোষণা করে রায় দিল হাই কোর্ট।
আবেদনকারীদের পক্ষের আইনজীবী তৌফিক সাংবাদিকদের বলেন, “প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংখ্যা আইন দিয়ে নিয়ন্ত্রণ করা শুধু বেআইনিই নয় অসাংবিধানিকও। কারণ এলাকাভেদে প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ১০ শতাংশের কম বা বেশি হতে পারে। এ সিদ্ধান্তের বাস্তবায়ন হলে একজন প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা বাদ পড়তে পারেন। তাই এ ধরনের সংখ্যা নির্ধারণ বা সীমিতকরণ জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল আইন ও সংবিধান সমর্থন করে না।”

নভেম্বর ২৬
০৫:০৪ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]

সর্বশেষ