Daily Sunshine

নাগরিক সেবার মান বৃদ্ধি করতে পৌরকর আরোপের উদ্যোগ

Share

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর তানোর উপজেলার মুণ্ডুমালা পৌরসভায় পৌরকর আরোপ নিয়ে স্থানীয় একটি গোষ্ঠির ষড়যন্ত্রের ব্যাখা দিয়েছেন পৌর মেয়র সাইদুর রহমান। তিনি বলেন, পৌরসভা গঠনের পর থেকে পৌরকর বৃদ্ধি করা হয়নি। দীর্ঘদিন পৌরকর হালনাগাদ না করায় থেমে আছে উন্নয়ন। বিগত মেয়ররা রাজনৈতিক কারনে পৌরকর বৃদ্ধির উদ্যোগ নেননি। এ কারনে পৌরসভার উন্নয়নকে সচল করতে মানুষের সহনীয় পর্যায়ে পৌরকর আরোপ করা হয়েছে। মঙ্গলবার মুন্ডুমালা পৌরভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি নাগরিকদের পৌরকর পরিশোধের আহ্বান জানান।
তিনি বলেন, পৌরকর নিয়ে ‘পৌর জন অধিকার সংরক্ষণ নামের একটি কমিটি কিছু বিভ্রান্তিতে ফেলতে অপ্রচারে নেমেছে। মেয়র সাইদুর রহমান জানান, প্রতি বছর বেতন বাবদ তৃতীয় শ্রেণীর পৌরসভার খরচ হয় এক কোটি ৪৭ লাখ টাকা। এ ব্যায়ের পাশাপাশি অন্যসব ব্যয় হয় প্রায় ২৫ লাখ টাকা। এসব ব্যয়ের পেছনে পৌরসভার আয় অতি সামান্য। প্রতি বছর ব্যয় মিটিয়ে প্রায় কোটি টাকা বকেয়া থাকে। এসব কারণে পৌরসভার কাজ স্থবির হয়ে পড়েছে।
তিনি আরো জানান, পৌরসভা স্থানীয় সরকারের মাঠ পর্যায়ের একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। পৌরসভা প্রতিষ্ঠানটি জনসাধারনের ট্যাক্স ও বিভিন্ন রাজস্ব আয় দ্বারা পরিচালিত হয়। সেই অনুযায়ী প্রতি ৫ বছর অন্তর অন্তর পৌর হোল্ডিং কর নির্ধারন না করে পৌরসভা প্রতিষ্ঠার ২০ বছর পর কর নির্ধারন করা হচ্ছে।
পৌরসভার বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার পূর্বে পৌরসভার হোল্ডিং কর ৯০ ভাগ আদায় এবং প্রতি ৫ বছর পর পর পুন: কর নির্ধারন করা হয়েছে কিনা এবং বর্ধিত হয়ে থাকলে শতকরা কত হারে বৃদ্ধি পেয়েছে তা প্রমানসহ তথ্য চাওয়া হয়। সেই কারণে পৌর কর হালনাগাদকরণ জরুরি। তিনি বলেন, স্থানীয় সরকারের বিধি অনুযায়ী পৌরসভার সার্বিক উন্নয়নে পৌরসক পরিশোধ জরুরী।
পৌরবাসীদের উদ্দেশ্যে মেয়র সাইদুর রহমান বলেন, কিছু মানুষ জনসাধারনকে মানববন্ধনের মাধ্যমে ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে অতিরিক্ত কর ধার্য্য করা হয়েছে মর্মে জন মনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে। প্রকৃত পক্ষে আমি আপনাদের সুচিন্তিত মতামত নিয়ে আগামী ধার্য্যকৃত করের ব্যপারে আজ (মঙ্গলবার) থেকে ২৫ নভেম্বর পর্যন্তÍ পর্যায়ক্রমে ১ হতে ৯নং ওয়ার্ডের পৌর কর নির্ধারনী শুনানী কার্যক্রম চালিয়ে যাব। এরপরে সাধারণ মানুষ যে রায় দিবেন সে অনুযায়ি পৌরকর বৃদ্ধি করা হয়। সাধারণ মানুষকে কোন বিভ্রান্তিতে না পড়ার অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।
শেষে মেয়র পৌরবাসীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের ভোটে আমি মেয়র নির্বাচিত হয়েছি। আমার পবিত্র দায়িত্ব আপনাদের উন্নত সেবা নিশ্চিত করা। আমি শপথ গ্রহণের পর থেকে ৮ মাস মেয়রের দায়িত্ব পালন করে আসছি। আমি বসে নেই অত্র পৌরসভার উন্নয়নের জন্য ঢাকায় বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন দাখিল করছি। কিন্ত যে কোন দপ্তরেই যাই না কেন প্রথমেই পৌর কর আদায়ের হার এবং পুন: কর নির্ধারণ করা হয়েছে কিনা এবং হয়ে থাকলে তার প্রমানক সহ দাখিল করতে বলা হয়। তাই অপারগ হয়ে পৌর পরিষদের সিদ্ধান্ত নিয়ে পুন: কর নির্ধারনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। আমি অত্র পৌরসভার উন্নয়নের সাথেই এ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি। আপনাদের মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টির জন্য নয়। আমি আপনাদেরই সন্তান, আমি সব সময় আপনাদের পাশে ছিলাম, আছি এবং থাকব। আমি মেয়র থাকাকালীন প্রানপনে চেষ্টা করব যাতে অত্র পৌরসভাকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি। মেয়র না হলেও আমি আপনাদের পাশে থাকব।

নভেম্বর ২৪
০৬:৪৭ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]