সর্বশেষ সংবাদ :

বড়াইগ্রামের পাঁচ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের ৯ বিদ্রোহী

অহিদুল হক, বড়াইগ্রাম: বড়াইগ্রামে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগই আওয়ামীলীগের প্রতিপক্ষ হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতিটি ইউনিয়নেই দলীয় প্রার্থীর বাইরে একাধিক বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছে। উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে দু’জন বর্তমান চেয়ারম্যানসহ মোট ৯ জন বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন। এসব প্রার্থীদের নিয়ে স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরাও নানা ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। শেষ পর্যন্ত এসব প্রার্থীদের সঙ্গে সমঝোতায় আসা সম্ভব না হলে কোন কোন ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থীরা নৌকার প্রার্থীর গলার কাঁটা হয়ে উঠতে পারেন বলে মনে করছেন সাধারণ ভোটাররা।
জানা যায়, দ্বিতীয় ধাপে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১১ নভেম্বর। গত ১৭ অক্টোবর ছিল মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ দিন। এদিন চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ১৭ জন। পাঁচ ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের পাঁচজন ছাড়াও আওয়ামী লীগ দলীয় ৯ জন বিদ্রোহী প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
উপজেলার নগর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন সর্বাধিক পাঁচজন প্রার্থী। এর মধ্যে নৌকার প্রার্থীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়েছেন দুইজন। এ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের প্রার্থী হয়েছেন উপজেলা মহিলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান চেয়ারম্যান নীলুফার ইয়াসমিন ডালু। বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান উপজেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুজ্জোহা সাহেব আলী ও নগর ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি ইয়াসিন আলী। এছাড়া কোন পদ-পদবী না থাকলেও স্বতন্ত্র প্রার্থী নুপুর খাতুনও আওয়ামী ঘরানার প্রার্থী বলে জানা গেছে।
বড়াইগ্রাম ইউনিয়নে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ’লীগের সম্পাদক মমিন আলী। এখানে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি মাসুদ রানা মান্নান ও ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইলিয়াস পারভেজ। জোনাইল ইউনিয়নে প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আ’লীগের সহ-সভাপতি তোজাম্মেল হক এবং বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন ইউনিয়ন আ’লীগের সাবেক সম্পাদক আবুল কালাম আযাদ।
চান্দাই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যানকে বাদ রেখে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে নতুন মুখ প্রধান শিক্ষিকা শাহনাজ পারভীনকে। তিনি সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আতাউর রহমান জিন্নাহ’র স্ত্রী। এখানে বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনিয়ন আ’লীগের সভাপতি আনিসুর রহমান খেচু ও উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি মেহেদী পারভেজ বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন।
গোপালপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আবু বক্কর সিদ্দিক। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে এ ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম খান এবং ইউনিয়ন আ’লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ।
এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস মিয়াজী বলেন, ইতোঃমধ্যেই বর্ধিত সভা করে সবাইকে নিজ নিজ ইউনিয়নে নৌকার পক্ষে মাঠে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
এছাড়া বিদ্রোহী প্রার্থীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে তাদেরকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য বলা হবে। যদি নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তারা মনোনয়ন প্রত্যাহার না করেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।


প্রকাশিত: অক্টোবর ২৩, ২০২১ | সময়: ৬:০৪ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ