Daily Sunshine

নিয়ামতপুরে শস্য কর্তন ও মাঠ দিবস পালন

Share

নিয়ামতপুর প্রতিনিধি: নওগাঁর নিয়ামতপুরে বিনা উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল ও স্বল্প জীবনকালীন আমন ধান (বিনা ধান-১৭) শস্য কর্তন ও মাঠ দিবস পালিত হয়। মঙ্গলবার ১২ অক্টোবর বেলা ১২টায় উপজেলার বটতলী বাজারে এ মাঠ দিবস পালন করা হয়।
বিনা উপকেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ড. মোঃ হাসানুজ্জামানের সভাপতিত্বে মাঠ দিবসে প্রধান অতিথি হিসাবে ভার্চুয়ালী বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন সফল বিজ্ঞানী বিশিষ্ট উদ্ভিদ প্রজননবিদ ও বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের মহা পরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম।
বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনষ্টিটিউট (বিনা), উপকেন্দ্র চাঁপাইানবাবঞ্জ এর আয়োজনে এবং কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, নওগাঁর সহযোগিতায় বিনা উপকেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ ফরহাদ হোসেনের পরিচালনায় মঠি দিবসে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বিনা উপকেন্দ্র চাঁপাইনবাবগঞ্জের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মোঃ জুবায়ের আল ইসলাম, নওগাঁ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কৃষি প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা কৃষিবিদ একেএম মঞ্জুর মওলা, নিয়ামতপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ আমির আব্দুল্লাহ মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান, শ্রীমন্তপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মোঃ রফিকুল ইসলাম, উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ সাফিউল হক, উপজেলা প্রেস ক্লাবের সভাপতি মোঃ তোফাজ্জল হোসেন প্রমূখ। আর্থিক সহযোগিতায় রাজস্ব তহবিল।
মাঠ দিবসে বক্তারা বলেন, বিনা ধান-১৭ এর জীবন কাল মাত্র ১১০ থেকে ১১৫ দিন। ফলন বিঘা প্রতি ২৭ থেকে ৩০ মন। যা আগের আমন ধানের জীবন কাল ছিল ১৬০ থেকে ১৭০ দিন এবং ফল হতো ১৮ থেকে ২০ মন। তারা আরো বলেন, এধানে ৫০% কম সার ও সেচ দিতে হয়। এ ধান আবাদ করলে একই জমিতে তিনটি ফসল অনায়সে করতে পারবেন। ঘুলকুড়ি শালবাড়ী গ্রামের আদর্শ কৃষক ইব্রাহীম খলিলের জমিতে বিনা ধান-১৭ আবাদ করায় ১১৫ দিন পর কর্তন করায় বিঘাপ্রতি ২৭ মন করে ফলন হয়েছে।

অক্টোবর ১৩
০৬:০২ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]