Daily Sunshine

আগাম প্রচারে আ’লীগের ২৬ নেতা

Share

মিজানুর রহমান, চারঘাট : তফসিল ঘোষণার আগেই আগাম প্রচার-প্রচারনায় মুখোড়িত হয়ে উঠেছে রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন পরিষদ এলাকা। চায়ের দোকান হোটেল-রেস্তোরা সবখানেই বইছে সম্ভাব্য প্রার্থীদের নিয়ে বিশ্লেষণ। নড়েচড়ে উঠেছে বর্তমান চেয়ারম্যানসহ নতুন মুখের সম্ভাব্য প্রার্থীরা। আগাম প্রচার প্রচারণায় সকাল থেকে রাত অবধি ছুটছেন ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে। দলীয় নেতাকর্মীদের দৃষ্টি ও ভোটারদের সমর্থন আদায়ে সিনিয়র নেতৃবৃন্দের ছবি সম্বলিত ব্যানার, ফেস্টুন ও চা-চক্রে নিজেদের যোগ্য প্রার্থী হিসেবে জানান দিচ্ছেন অনেকেই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সমানতালে চলছে প্রচার-প্রচারণা। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীরা কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে করছেন মতবিনিময় সভা । শুধু মাঠেই নয়, দলীয় সমর্থন পেতে একই ইউনিয়নে একাধিক প্রার্থীর পক্ষ থেকে চলছে নানারকম তদবির, রাজনৈতিক কার্যালয় হয়ে উঠেছে সরগরম। সব মিলিয়ে চারঘাটের হাটবাজার থেকে শুরু করে হোটেল, অফিসসহ চায়ের দোকান সর্বত্রই শুরু হয়েছে নির্বাচনী আমেজ।
সরজমিন উপজেলার ৬টি ইউনিয়ন ঘুরে জানা গেছে, আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপির কোন পর্যায়ের নেতাকর্মীকে নির্বাচণী প্রচারণায় দেখা না গেলেও বর্তমান চেয়ারম্যানদের পাশাপাশি আওয়ামীলীগের একাধিক নতুন মুখ নির্বাচনী মাঠে শুরু করেছেন প্রচার-প্রচারণা। নিজের পছন্দের কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে নিয়ে ছুটছেন ইউনিয়নের এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে। নিজের লোকজনদের দিয়ে ছবি উঠিয়ে তা পোষ্ট করছেন জনপ্রিয় সামাজিক মাধ্যম ফেসবুকে। চলছে উঠান বৈঠকসহ নেতাকর্মীদের নিয়ে মত বিনিময় সভা। এলাকায় সিনিয়র নেতৃবৃন্দের ছবি সম্বলিত ডিজিটাল ব্যানার ফেস্টুন ছাপিয়ে জানান দিচ্ছেন আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে। জনতার নিকট যোগ্য প্রার্থী দাবি করে মনোনয়ন বাগিয়ে নিতে চলছে তদবির। তবে আসন্ন নির্বাচনে বিএনপির কোন প্রার্থীকেই দেখা যায়নি নির্বাচণী প্রচারনার মাঠে। এ দিক থেকে নির্বাচণী মাঠ গরম করে রেখেছেন ক্ষমতাসিন দল আওয়ামীলীগের একাধিক সম্ভাব্য প্রার্থীরা।
উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নির্বাচণী মাঠ গরম করে রেখেছেন যারা তাদের মধ্যে চারঘাট সদর ইউনিয়নের ২জন। এরা হলেন, সাবেক চেয়ারমান ফজলুল হক, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক মতিউর রহমান মতি।
ভায়ালক্ষিপুর ইউনিয়নে মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাপ করছেন ৬ জন। এদের মধ্যে রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান শওকত আলী বুলবুল, সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ”লীগের সভাপতি আব্দুল মজিদ প্রামানিক, সাবেক চেয়ারম্যান গোলাম রহমান,ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবকলীগ সম্পাদক ডাকরা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবু ফয়সাল বিপুল, ইউনিয়ন আ”লীগের সম্পাদক ইয়াদ আলী, ইউনিয়ন আ”লীগের যুগ্মসম্পাদক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ ।
নিমপাড়া ইউনিয়নে গনযোগ করছেন ৫জন। এরা হলেন,বর্তমান চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ মনিরুজ্জামান, ইউনিয়ন আ”লীগের সাধারন সম্পাদক শাহিনুল ইসলাম, নন্দনগাছী বাজার কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম,সাবেক ও ইউপি সদস্য কামাল উদ্দিন, যুবলীগের সাধারন সম্পাদক সুজন আলী।
ইউসুফফুর ইউনিয়নে পোষ্টার, ব্যানার ও ফেস্টুন ছাপিয়ে সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থীর খাতায় নাম লিখিয়েছেন ৪জন। এরা হলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান শফিউল আলম রতন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক সাইফুল ইসলাম দুলাল, সালেহা শাহ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হেদায়েতুল ইসলাম,উপজেলা আ”লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুল ইসলাম মাখন।
সরদহ ইউনিয়নে বাড়ী বাড়ী গিয়ে সমর্থন আদায়ের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ৪ জন। এরা হলেন, বর্তমান চেয়ারম্যান হাসানুজ্জামান মধু, ওয়ার্কাসপার্টির সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মতিউর রহমান তপন, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আব্দুল আওয়াল, ইউপি সদস্য শফিকুল ইসলাম।
শলুয়ার ইউনিয়নে নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেতে দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন ৫ জন। এরা হলেন, সাবেক চেয়ারম্যান ফজলুল হক ফজু, উপজেলা আ”লীগের সহসভাপতি আবুল কালাম, জেলা আ”লীগের সাবেক সহসভাপতি সরদহ মহাবিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যক্ষ সাহাবুদ্দিন সরকার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন, আ”লীগ নেতা গাফ্ফার আলী।
চেয়ারম্যান পদে একাধিক প্রার্থী নির্বাচণী মাঠে দৌড়ঝাপ করছেন এতে দলের মধ্যে বিভেদ সৃষ্টি হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক উপজেলা চেয়ারম্যান ফকরুল আসলাম বলেন, নির্বাচনে একাধিক প্রার্থী গনসংযোগ করবেন এটাই স্বাভাবিক। তবে তৃনমুলে যাচাই-বাছাই করে যাদের জনপ্রিয়তা বেশী তাদেরই নাম কেন্দ্রে পাঠানো হবে। কেন্দ্র থেকে যাকে দলীয় মনোনয়ন দেবেন দলের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা এক সঙ্গে কাজ করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করবেন।

অক্টোবর ০৮
০৬:৩৪ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]