Daily Sunshine

নগরীতে ফিটিং পার্টির ৩ সদস্য গ্রেপ্তার

Share

স্টাফ রিপোর্টার : অপরিচিত পুরুষদের সাথে কৌশলে সুসম্পর্ক গড়ে বাড়িতে ডেকে নিয়ে এরপর নারী সাথে আপত্তিকর ছবি তুলে ব্ল্যাকমেইল করে আসছিলেন রাজশাহী নগরীর একটি প্রতারক চক্র। সম্প্রতি ৫০ উর্ধ্ব এক শিক্ষককে এভাবে ফাঁসিয়ে ও ভয়-ভীতি দেখিয়ে তার কাছ থেকে অর্থ হাতিয়ে নেয় এই চক্রটি। ওই শিক্ষকের অভিযোগের প্রেক্ষিতে সোমবার সাড়ে ৮ টায় এই চক্রের দুই জন নারী সহ মোট তিন জনকে গ্রেপ্তার করেছে নগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) একটি দল। এই ঘটনায় চক্রটির অন্যতম সদস্য রনি পলাতক রয়েছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন, ফরিদ হোসেনের স্ত্রী ও পবা উপজেলার চৌবাড়িয়া গ্রামের নার্গিস নাহার ওরফে হেলেনা (৫২), নগরীর পঞ্চবটি খড়বোনা নদীরধার এলাকার মো. রানার স্ত্রী মোছা. কোহিনুর ওরফে রাত্রী (৪৩) এবং নগরীর সুলতানাবাদ এলাকার আমিনুর রহমান বাবুর ছেলে আতিকুর রহমান ওরফে বাপ্পি (৩২)। নার্গিসের বিরুদ্ধে নগরীর বিভিন্ন থানায় ৫টি মামলা রয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় আরএমপির কনফারেন্স রুমে সংবাদ সম্মেলন করে এসব তথ্য জানিয়েছেন মহানগর পুলিশের কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক।
আরএমপির কমিশনার জানান, পাবনা থেকে এসে রাজশাহীর নগরীর বোয়ালিয়া থানা এলাকায় বসবাস করছেন ইংরেজির এক শিক্ষক। সম্প্রতি রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডে ওই শিক্ষক যান তার কাজ করতে। এসময় কৌশলে ওই শিক্ষকের সাথে সম্পর্ক গড়ে তোলেন ৫০ উর্ধ্ব নার্গিন নাহার হেলেন। এর পর ওই শিক্ষককে তার এক নাতিকে পড়াতে অনুরোধ করেন নার্গিস। নার্গিসের কথা মতো দুই অক্টোবর দুপুর ৩টায় ওই শিক্ষক শালবাগান এলাকায় গেলে তাকে বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। এর পর ৪০ উর্ধ্ব রাত্রীর সাথে জোরপূর্বক ওই শিক্ষকের অশ্লীল ছবি তোলা হয়। এই কাজে বাপ্পিসহ আরো একজন তাদেরকে সহযোগীতা করেন। এরপর অশ্লিল সেই ছবি দেখিয়ে শিক্ষকের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা দাবি করে এই ফিটিং পার্টি। লোকলজ্জার ভয়ে শিক্ষক তাদেরকে ১৮ হাজার টাকা দেন। এর পর বাকি টাকার জন্য চাপ দেয়া শুরু করে চক্রটি। নিরুপায় শিক্ষক তখন ডিবির স্মরণাপন্ন হন। অভিযোগ পেয়ে ডিবি অভিযানে নামে এবং এই চক্রের তিন জনকে সোমবার রাতে অলকার মোড় এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে। ১৮ হাজার টাকার মধ্যে উদ্ধার করা হয় ৬ হাজার টাকা। তবে একজন এখন পর্যন্ত পালাতক রয়েছে। তাকেও খুব শিঘ্রই গ্রেপ্তার করা হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশ কমিশনার।
এদিকে পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে নার্গিস জানিয়েছেন, নগরীর বিভিন্ন এলাকায় একাধিক বাড়ি ভাড়া করে শতাধিক পুরুষকে এভাবে বাড়িতে ডেকে এনে একই কায়দায় ফাঁসিছেন। নার্গিস দীর্ঘ ১৫ বছর থেকে এই কাজ করে আসছেন। এখন তার বয়স বেড়ে যাওয়ায় উঠতি বয়সের বা সুন্দরী নারীদের দিয়ে পুরুধ ধরার ফাঁদ পাতেন তিনি।
পুলিশ কমিশনার জানান, নগরীর ব্যাংক, ক্লিনিক, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, শিক্ষাবোর্ড, বিশ্ববিদ্যালয়, বিনোদন কেন্দ্র সহ জনবহুল এলাকায় নার্গিস বা রাত্রির মতো নারীরা ফাঁদ পেতে বসে থাকে। তারা পুরুষদের টার্গেট করে, এর পর অপরিচিত পুরুষদের সাথে সুসম্পর্ক করে বাড়িতে ডেকে নিয়ে অশ্লীল ভিডিও বা ছবি ধারণ করে ব্ল্যাকমেইল করে অর্থ হাতিয়ে নেয়। পুলিশ কমিশনার এধরণের প্রতারক চক্র থেকে সকলকে সতর্ক থাকতে অনুরোধ করেন।

অক্টোবর ০৬
০৫:০৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]

সর্বশেষ