Daily Sunshine

দীর্ঘ ১৩ বছর পর জয়পুরহাট মহিলা লীগের সম্মেলন আজ

Share

মতলুব হোসেন, জয়পুরহাট: দীর্ঘ ১৩ বছর পর আজ সোমবার জয়পুরহাট জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন জেলা শিল্পকলা একাডেমী মিলনায়তনে সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলন ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের আগমনকে কেন্দ্র করে জেলায় মহিলা আওয়ামী লীগের নেতা কর্মীদের মাঝে চাঙ্গা ভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে।
চারিদিকে সাজ সাজ রব, শহরে তোরণ, ফেস্টুন, কালার পোষ্টারে চেয়ে গেছে গোটা শহর। কেন্দ্রের সংগঠনের নির্দেশনার আলোকে দলীয় জীবন বৃত্তান্ত গ্রহনের মাধ্যমে স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ সমন্বয় করে নেতা নির্বাচন করা হবে এ সম্মেলনে। ৭ জন প্রার্থী নেতা নির্বাচিত হতে দলীয় জীবন বৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন জেলা সংগঠনের নিকট।
যারা জীবন বৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন তারা হলেন জেলা মহিলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও সভাপতি সহ দীর্ঘ প্রায় ২৬ বছর দায়িত্ব পালন করেছেন বর্তমান সভাপতি রেবেকা সুলতানা। প্রতিষ্ঠাতা আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য তার মা সারাজন নেছা বৃহত্তর বগুড়ার মুসলিম লীগের সভাপতি ছিলেন। সেই ছোট বেলা থেকে তার মার সাথে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িত থেকেছেন।
রেবেকা জাতীয় মহিলা সংস্থার একাধিকবার চেয়ারম্যান, জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার সহ-সভাপতি, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, ডায়াবেটিক সমিতি ও রোগী কল্যাণ সমিতির আজীবন সদস্য।
এছাড়াও তেঘর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি, বিজ্ঞান প্রযুক্তি ও কারিগরি মহিলা কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য সহ একাধিক বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে জড়িত। তৃণমূল থেকে উঠে আসা দীর্ঘ প্রায় ৩০ বছরের রাজনৈতিক জীবনে দুঃসময়ে দুর্দিনে অনেক চড়াই উৎরাই আর কঠিন পরিস্থিতি মোকাবেলা করে বিভিন্ন লড়াই সংগ্রামে সামনের কাতারে ছিলেন বর্তমান সভাপতি রেবেকা সুলতানা। এসব বিবেচনায় সার্বিক মূল্যায়নে তার দাবি, নেতৃবৃন্দ আবার তাকে সভাপতি পদে নির্বাচিত করবে।
বর্তমান ও প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক মাহফুজা মন্ডল রিনা। তিনিও ২৬ বছর ধরে মহিলা আওয়ামীলীগের হাল ধরে রেছেছেন। ছাত্র জীবনে সরকারী মহিলা কলেজের নির্বাচিত জিএস ছিলেন।
এরপর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়া লেখার সময় বেগম রোকেয়া হল শাখার ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সহ গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন তিনি। বিগত ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত মহিলা আসন জয়পুরহাটের এমপি নির্বাচিত হন তিনি। তিনি এবার সভাপতি পদে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন। তার দাবী এসব বিবেচনায় সার্বিক মূল্যায়নে নেতৃবৃন্দ তাকেই সভাপতি পদে নির্বাচিত করবে।
প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক সংসদ সদস্য আব্বাস আলী মন্ডলের ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আরিফুর রহমান রকেটের পত্নী নারী নেত্রী সাংগঠনিক সম্পাদক শাম্মীম আরিফ সাজ, তিনি কোন পদ উল্লেখ না করে জীবনবৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন। তার বাবা ছিল মোস্তফা আজিজ মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক।
শিক্ষাজীবন শেষ করার পর তিনি জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাথে জড়িত থেকে দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেন এবং সর্বশেষ জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। সাজ সাবেক পৌর কাউন্সিলর নারী নেত্রী ও সংগঠক হিসেবে আওয়ামী লীগের দলীয় কর্মকান্ড ছাড়াও তিনি বিভিন্ন সমাজ সেবা মূলক কর্মকান্ড পরিচালনা করেন। তার দাবী সার্বিক ভাবে এসব মূল্যায়নে নেতৃবৃন্দ তাকে গুরুত্বপূর্ণ পদে নির্বাচিত করবে।
এ ছাড়া জেলা আওয়ামী লীগের দূর্দিনের কান্ডারী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সহ-সভাপতি সোলায়মান আলী’র পত্নী সাবিনা চৌধুরী সাধারণ সম্পাদক পদে জীবন বৃত্তান্ত জমা দিয়েছেন। বিগত ২০০৪ সালে জয়পুরহাট পৌরসভা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী খন্দকার ওলিউজ্জামান আলমের ভোট করার মাধ্যমে দলীয় কার্যক্রম শুরু করেন।
এরপর তিনি ২০০৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অধ্যক্ষ খাজা সামছুল আলমের নৌকা মার্কা প্রতীকে ভোট করে। ২০১৪ সালে উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আরিফুর রহমান রকেট এর ভোট ভিক্ষা করেন তিনি। ২০১৫ সালের পৌর নির্বাচনে বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তাক ও ২০১৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে পৌর এলাকা সহ জেলার বিভিন্ন গ্রামে গ্রামে নৌকা মার্কা প্রার্থীর পক্ষে ভোট চেয়ে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছেন দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে। সাবিনা চৌধুরী এর পূর্বে জেলা যুব মহিলা লীগের জেলা যুগ্ম আহ্বায়ক ও ৩ নং ওয়ার্ডের মহিলা সম্পাদক ছিলেন। প্রত্যেক স্থানীয় ও জাতীয় নির্বাচনে নারী নেত্রী হিসেবে সরব অংশগ্রহণ করে দলের দূর্দিনে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে দলীয় কর্মকান্ডে এবং বিভিন্ন সমাজ সেবামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে সেও দলের প্রথম সারির যোদ্ধা হিসেবে দীর্ঘ ১৭ বছর ধরে সক্রীয় ভাবে দল করছে। তার দাবী দুর্দিনের কান্ডারী হিসেবে সব সময় রাজপথের কর্মী হিসেবে সামনের সারিতে থাকা রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে সুদিনেও কেন্দ্রীয় ও জেলা সংগঠন তাকেই সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত করবে এমন আশা সাবিনা চৌধুরীর।
বর্তমানে তিনি জয়পুরহাট থেকে প্রকাশিত দৈনিক জয়পুরহাট খবর পত্রিকার সহ-সম্পাদক, জেলা মহিলা ক্রীড়া সংস্থার যুগ্ম-সম্পাদক ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য ছাড়াও বিভিন্ন সামাজিক ও সমাজসেবা মূলক কর্মকান্ডে জড়িত।
এছাড়াও পাঁচবিবি মহিলা আওয়ামীলীরে সভাপতি সাবেক এমপি ডা. সাইদুর রহমানের কন্যা মাছুদা বেগম ঝর্ণা ও ফরিদা ইয়াসমিন সিভি জমা দিয়েছেন। ঝর্ণার বাবা ১৯৭০ সালে সাধারণ নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু ইমেজকে কাজে লাগিয়ে বগুড়া-১ আসনের এমপি নির্বাচিত হন। তার বাবার ইমেজের সুবাদে ২০১৬ সালে প্রাথমিক সদস্য পদ ছাড়াই কৌশলে পাঁচবিবি উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হন। এরপর থেকে তার বিরুদ্ধে ভিজিডি কার্ড, বয়স্ক ও বিধবা ভাতা সংক্রান্ত নানা অভিযোগ ওঠে।
তার এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে এনে পাঁচবিবি উপজেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মামুনর রশীদ স্বাক্ষরিত বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ এর কেন্দ্রীয় কমিটি বরাবর এসব বিভিন্ন অপকর্ম ক্ষমতার অপব্যবহার প্রসঙ্গে অভিযোগ দাখিল করেছে। বর্তমানে ঝর্না জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য। এসব অভিযোগ নিয়ে সংগঠন তার বিষয়ে কী ভাবছেন সেটিও জানতে চায় একাধিক নেতাকর্মীরা। এসবই নির্ভর করছে দলের হাই কমান্ডের উপর।
জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মন্ডল জানান, যারা সিভি জমা দিয়েছেন তাদের মধ্যে দলীয় কার্যক্রম, ত্যাগী এবং কর্মী বান্ধব এবং ক্লিন ইমেজের অধিকারী যিনি হবেন তাকেই নেতা নির্বাচিত করা হবে।
এ সম্মেলনে উদ্বোধক হিসেবে থাকবেন বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি মুক্তিযোদ্ধা সাফিয়া খাতুন। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন জাতীয় সংসদের হুইপ ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি।
প্রধান বক্তা হিসেবে থাকবেন সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম। বিশেষ অতিথি থাববেন সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম কামাল হোসেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সদস্য অ্যাড. সামছুল আলম দুদু এমপি, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফুর রহমান রকেট ও সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন মন্ডল। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন জয়পুরহাট জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রেবেকা সুলতানা।
জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি মাহফুজা রহমান রিনা জানান এ সম্মেলনকে কেন্দ্র করে মহিলা নেতা কর্মীরা উজ্জিবিত। কে হচ্ছেন আগামী দিনের সভাপতি ও সাধারণ স¤পাদক। ভোটের মাধ্যমে না সিলেকশনে কমিটি নির্বাচন এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, সেটি এখনো নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না তবে যারা নেতা হতে চায় তাদের দলীয় কর্মকান্ডের অবদান উল্লেখ করে সিভি জমা দিয়েছে সে আলোকে নেতা নির্বাচন করবেন নেতৃবৃন্দ।

অক্টোবর ০৪
০৫:৪৩ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]