Daily Sunshine

টমেটো ক্ষেত পরিচর্যায় চাষীরা

Share

সেলিম সানোয়ার পলাশ, গোদাগাড়ী: টমেটোর অঙ্গরাজ্য হিসাবে খ্যত রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা। দেশের সিংগ ভাগ টমেটো উৎপাদন হয় এ উপজেলায়। শীতকালীন সবজি টমেটো চাষে টমেটোর ক্ষেত পরিচর্যা করতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে এ উপজেলার টমেটো চাষিরা। কোন চাষী বীজতলা থেকে টমেটোর চারা তুলে ক্ষেতে রোপনে ব্যাস্ত। অগাম টমেটো ক্ষেতে চারা রোপনকারী চাষীরা ক্ষেত টমেটোর গাছ রিং করে সার ও কিটনাশক স্প্রে করতে দেখা যায়।
সরেজমিনে উপজেলার গোপাল পুর, সোনাদিঘী, পরমান্দপুর চকপাড়া, আমতলা, বসন্তপুরসহ বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে টমেটোর ক্ষেতে চাষিদের কর্মব্যস্ততার দৃশ্য দেখা যায়। কাঁচি, কোদাল, আনুষঙ্গিক সরঞ্জামাদি নিয়ে নেমে পড়ছেন জমিতে।
গোদাগাড়ী উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা যায়, চলতি টমেটোর মৌসুমে এ উপজেলায় টমেটো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ২ হাজার ৯৫০ হেক্টোর। গত মৌসুমে টমেটো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২ হাজার ৬৫০ হেক্টোর। চাষ হয়েছিল ২হাজার ৯৫০ হেক্টোর। ২০১৯-২০২০ ইং মৌসুমে টমেটো চাষ হয়ে ছিল ২ হাজার ৬৫০ হেক্টোর। তবে কৃষি অফিস বলছে চলতি বছর লক্ষমাত্রার চেয়ে বেশী টমেটো চাষের সম্ভাবনা রয়েছে।
কথা হয় টমেটোর ক্ষেতে কিটনাশক স্প্রে করতে ব্যস্ত থাকা পরামান্দপুর চকপাড়া এলাকার টমেটো চাষী শংকর সাথে। তিনি বলেন, ১৭ হাজার টাকায় ১ বছরের জন্য দেড় বিঘা জমি লিজ নিয়ে টমেটোর আবাদ করেছি। ১৫ দিন আগে জমিতে টমেটোর চারা লাগিয়েছি।
টমেটোর গাছ যেন নষ্ট না হয়তার জন্য জমিতে কিটনাশক স্প্রে করছি। ২ থেকে ৩ দিনের মধ্যে টমেটোর গাছের গোড়া রিং করে সার দিব। তিনি আরো বলেন, গত বছর দেড় বিঘা জমিতে টমেটোর আবাদ করে সব খরচ বাদ দিয়ে ৭০ হাজার লাভ হয়ে ছিল। এবার তার চাইতে বেশী লাভ আশা করছি।
টমেটো চাষী নজু বলে আড়াই বিঘা জমিতে টমেটোর আবাদ করেছি। টমেটোর গাছ রিং করে সার দেওয়া হয়ে গেছে। জমিতে টমেটোর গাছ খুব ভালো আছে। কিছু দিনের মধ্যে গাছে ফুল আসবে।
গোদাগাড়ী উপজেলা কৃষি অফিসের কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মোঃ মতিয়র রহমান জানান, আমরা সব সময় কৃষকের সাথে রয়েছি। টমেটো চাষ নিয়ে কৃষকদের সাথে সভা করে পরার্মশ দেওয়া হচ্ছে। কৃষকরা যেন আগাম টমেটো ক্ষেত থেকে টমেটো উত্তোলন করতে পারে। এতে কৃষকরা টমেটোর দাম ভাল পাবে।

অক্টোবর ০৩
০৬:৩০ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]