Daily Sunshine

জমে উঠেছে রাসিকের ৯নং ওয়ার্ড উপনির্বাচন: প্রচারে এগিয়ে টিফিন ক্যারিয়ার

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের উপনির্বাচনকে ঘিরে পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে গেছে হোসনিগঞ্জ, শেখপাড়া, পাঠানপাড়া ও দরগাপাড়া সহ আশপাশের এলাকা। ওয়ার্ডজুড়ে উৎসবমুখর পরিবেশে চলছে নির্বাচনী প্রচারণা। এলাকার চায়ের দোকান, খেলার মাঠ, উপাশনালয় কিংবা অবসরে গৃহিনীদের আড্ডা; সবখানেই আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে এখন ৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচনী আলোচনা। ৫ প্রার্থীর কোন প্রার্থী এখন পর্যন্ত প্রচারণায় এগিয়ে, কোন প্রার্থী বেশি পোস্টার ঝুলিয়েছেন, কে বেশি বেশি ভোটারদের কাছে যাচ্ছেন, কাকে ভোট দিলে এলাকার উন্নয়ন হবে, এলকার কে কোন প্রার্থীর হয়ে কাজ করছেন এসব নিয়েই এলাকায় আড্ডা-যুক্তিতর্ক। তবে আশার কথা আসন্ন নির্বাচন ঘিরে এলাকায় এখন পর্যন্ত প্রার্থীদের মধ্যে বা তাদের সমর্থকদের মধ্যে কোনো ধরণের সহিংসতা বা অপপ্রচারের খবর পাওয়া যায়নি।
এলাকাবাসীর দেয়া তথ্য মতে, ৫জন প্রার্থীর প্রত্যেকেই তাদের সমর্থকদের নিয়ে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। আর প্রার্থীদের দাবি, তারা প্রত্যেকেই এলাকার সন্তান। এলাকায় শান্তি ও শৃঙ্খলা বজায় রাখা তাদের নৈতিক দায়িত্ব।
নির্বাচনি আচরণবিধি ও বিধিনিষেধের কারণে এলকার কোনো দেয়াল বা বাড়িতে প্রার্থীদের পোস্টার আঠা দিয়ে লাগাতে দেখা যায়নি। নিয়ম মেনে দড়ি দিয়ে প্লস্টিকে লেমিনেট করে প্রার্থীরা তাদের পোস্টার এক দেয়াল থেকে অন্য দেয়ালে বা এক গাছ থেকে অন্য গাছে উচুতে বেঁধে রেখেছেন। এলাকায় ঢুকে প্রার্থীদের পোস্টোরের তোড়ে আকাশ দেখাই যেনো মুশকিল। এদিকে দিনের বেলা যেমনতেমন, সন্ধ্যা নামলেই এলাকার মোড়ে মোড়ে মানুষের ভিড় বাড়ছে। সন্ধ্যা থেকে গভীর রাত পর্যন্ত আড্ডাস্থলগুলোতে সবার মুখে শুধু এলকার ভোট ও প্রার্থীদের কাছে এলাকাবাসীর প্রত্যাশা নিয়ে বাকবিতণ্ডা।
নির্বচন কমিশনের দেয়া তথ্য মতে, ৯নং ওয়ার্ডের আসন্ন উপনির্বাচন আগামী ৭ অক্টোবর। উপনির্বাচনে টিফিন ক্যারিয়ার প্রতিক পেয়েছেন রাসেল জামান, শামিমুর রহমান রিডার রেডিও, একেএম রাশিদুল হাসান টুলু ঠেলাগাড়ি, সোয়েব হাসান বাবু ঘুড়ি এবং সাইফুল্লাহ শান্ত পেয়েছেন করাত প্রতিক। বোয়ালিয়া থানা নির্বাচন কর্মকর্তা ও সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা সুষ্মিতা রায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ৮ হাজার ৯৩৭ জন ভোটার রয়েছে ৯নং ওয়ার্ডে। প্রার্থীদের মধ্যে আন্তরিকতা নজর কেড়েছে। অভিযোগ বা পাল্টা অভিযোগ এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। আমরা আশা করছি ভোট শান্তিপূর্ণ ভাবেই অনুষ্ঠিত হবে।
৯নং ওয়ার্ডের একাধিক এলকাবসীর সাথে কথা হলে তারা জানান, এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন টিফিন ক্যারিয়ার প্রতিকের রাসেল জামান এবং ঠেলাগাড়ি প্রতিকের রাশিদুল হাসান টুলু। তবে বয়সে তরুণ রাসেলের নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণায় এলাকার মানুষের যে আগ্রহ ও অংশগ্রহণ তা এরই মধ্যে শুধু ৯নং ওয়ার্ডে নয়, পুরো রাজশাহীতে আলোচনা হচ্ছে। ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ও ক্রীড়াসংগঠক রাসেল এলাকায় জনপ্রিয় তরুণদের মাঝে। সেই সূত্রে, অভিভাবকদের মাঝেও আলোচনায় রয়েছে রাসেল। এলাকার তুলনামূলক দরিদ্র পরিবারগুলোকে রাসেল নিজ উদ্যোগে বিভিন্ন সময় সাহায্য সহযোগীতা করে আসছেন বহু আগ থেকেই। এই করোনা মহামারির মধ্যে এলাকার ৩ হাজার ৫০০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেছেন তিনি। প্রতিক বরাদ্দের পর ২০ সেপ্টেম্বর বিকেলে রাসেলের প্রচার মিছিলে অন্তত ৭ হাজার মানুষ অংশ নিয়েছেন বলে দাবি করেন তার সমর্থকবৃন্দ। প্রতিক পেয়েই দিন-রাত এলাকার বাড়িতে বাড়িতে ও ভোটারদের কাছে ভোট চেয়ে বেড়াচ্ছেন রাসেল, ছুটে চলেছেন ওয়ার্ডের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে।
শুক্রবার গণসংযোগ শেষে রাসেল জানান, নির্বাচনে জয়-পরাজয় থাকবেই। তবে নিজের জয়ের বিষয়ে তিনি আশাবাদি। শুধু নির্বাচন ঘিরেই নয়, তিনি বহু আগ থেকেই এলাকর মানুষের জন্য কাজ করে চলেছেন। এলাকার সন্তান হিসেবে তিনি ওয়ার্ডের বেশকিছু সমস্যা চিহ্নিত করেছেন। এলকাবাসীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে ৯নং ওয়ার্ডে একজন শিশু বিশেষজ্ঞ ও একজন মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের নিয়মিত বসার ব্যবস্থা করে দেয়া হবে। এলাকার মধ্যবিত্ত্ব শ্রেণীর মানুষ যা থেকে সুফল পাবে। এছাড়া বহুদনি থেকে এলাকাবসাীর দাবি, এলকার ড্রেনেজ ব্যবস্থা সংস্কার করা এবং অলিগলির রাস্তা সংস্কার করা। নির্বাচিত হলে প্রথমেই এই কাজগুলো করতে চান রাসেল।
এদেকে রেডিও প্রতিক নিয়ে রিডার নির্বাচনী প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রতিক বরাদ্দের দিন ফটো সাংবাদিকরা তার ছবি তুলতে গেলে তিনি ছবি তুলতে অনিহা প্রকাশ করেন এবং দ্রুত নির্বাচন অফিস ত্যাগের তাগাদা দিয়ে সাংবাদিকদের থেকে সরে যান। এদিকে রিডারের পক্ষে জামাত-বিএনপি ঐক্যজোটের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে ফেসবুকে একাধিক পোস্ট দিতে দেখা গেছে। তাদেরকে রিডারকে সাথে নিয়ে একত্রে ছবি তুলে ফেসবুকে পোস্ট দিতে দেখাগেছে।
গত ২০ সেপ্টেম্বর প্রার্থীদের হলফনামা যাচাইবাছাই শেষে রিটার্নিং অফিসার ও অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা আহমেদ আলী শান্তিপূর্ণ পরিবেশে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক বরাদ্দ করেন। প্রতিক বরাদ্দ শেষে তিনি প্রার্থীদের নির্বাচনী আইন সম্পর্কে বিস্তারিত জানান এবং নির্বাচনী আইন মেনে চলতে সকলকে নির্দেশ প্রদান করেন।
অতিরিক্ত আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা আহমেদ আলী জানান, ২০ সেপ্টেম্বর প্রতিক বরাদ্দের পর বিকেল থেকে প্রচার প্রচারণা শুরু করেছে প্রার্থীরা। তবে নির্বাচনের ২৪ ঘন্টা আগে অর্থাত ৫ অক্টোবর দিবাগত রাত্রি ১২টার পর থেকে সব ধরণের প্রচার প্রচারণা ও শোডাউন নিষিদ্ধ থাকবে। সরকারি নীতিমালা অনুসারে ব্যানার, ফেস্টুন ও পোস্টার লাগাতে হবে। পোস্টার হবে সাদাকালো। কোন দেয়ালে পোস্টার লাগানো যাবেনা। দুপুর ২ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত প্রচারণার জন্য মাইক ব্যবহার করা যাবে। একজন প্রার্থী একটি মাইক ব্যবহার করতে পারবেন। ভোটের দিন ভোটকেন্দ্রগুলোতে এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী ম্যাজিস্ট্রেট মনিটরিং করবেন। সরকারি এসব নির্দেশনা অমান্য করলে সংশ্লিষ্ট প্রার্থীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলেও জানান রিটার্নিং কর্মকর্তা। তিনি সরকারি নির্দেশনা মেনে নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করার জন্য সকল প্রার্থীদের অনুরোধ করেন।
প্রসঙ্গত, আগামী ৭ অক্টোবর রাজশাহী সিট কর্পোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ডে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ৮ হাজার ৯৩৭ জন ভোটার রয়েছে এই ওয়ার্ডটিতে। ভোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৪টি। প্রতিটি কেন্দ্রে ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এর আগে জুলাই মাসে ওয়ার্ডটির কাউন্সিলন বীর মুক্তিযোদ্ধা রেজাউন নবী দুদু চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

অক্টোবর ০২
০৬:১৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]