Daily Sunshine

আক্কেলপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে : নিউমোনিয়ার শিশু ফ্লোরে স্টাফের দখলে বেড

Share

স্টাফ রিপোর্টার, জয়পুরহাট: আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নারী ও শিশু ওয়ার্ডে নারী- শিশুদের চিকিৎসা পাওয়া কথা থাকলেও স্টাফদের দখলে থাকা ১টি বিছানা ফাকা থাকে। নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ৪ বছরের এক শিশুর জন্য মেঝেতে বিছানা পেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন স্বজনরা ও চেয়ারে বসে স্যালাইন নিতে দেখা গেছে এক নারী রোগীকে।
গত রবিবার রাত ৯ টায় ও সোমবার সকালে আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নারী ও শিশু ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায়, নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত ৪ বছরের শিশু মিজানুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেঝেতে শোয়ানো অবস্থায় রয়েছে। রবিবার বিকেল ৫ টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পরিবারের লোকজন তাকে ভর্তি করেছে। শিশু মিজানুরের দেখাশুনা করছেন তার মা।
এছাড়াও অনেক রোগীকে মেঝেতে বিছানা করে চিকিৎসা নিতে দেখা গেছে। বিছানা না পাওয়ায় চেয়ারে বসে স্যালাইন নিতে দেখা গেছে এক নারী রোগীকে। ওই ওয়ার্ডে ১১ নং বেড ফাকা রেখে সকল বেডে রয়েছেন চিকিৎসা নিতে আসা নারীরা। নারী ও শিশু ওয়ার্ডের ১১ নং বেড সব সময় ফাকা। বেডটিতে বিশ্রাম নেয় স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্টাফরা। এজন্য সেই বেডে কোন রোগীকে থাকতে দেওয়া হয়না এমনটিই জানিয়েছেন স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের কয়েকজন।
শনিবার রাতে ৮টা থেকে সেই বিছানায় শোয়ার জন্য বিছানা গুছিয়ে রাখেন পরিচ্ছন্নতা কর্মী জাহানারা। শিশু মিজানুরের মা বলেন,‘ ভর্তির সময় আমাকে বলে কোন বিছানা ফাকা নেই। তাই ছেলেকে মেঝেতে শোয়ায়ে চিকিৎসা নিচ্ছি।’ কলেজ বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান হাবু বলেন, ‘আমার এক আত্মীয়কে স্যালাইন দেওয়ার জন্য ওই বেডে নিয়ে গেলে তারা সেখানে বসতে দেয়না। বলে এটা স্টাফদের জন্য। তাই বাইরে চেয়ারে বসে রোগী স্যালাইন নিচ্ছে।’
রোগীদের সাথে বলতে গেলে ওঠে আসে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আয়া জাহানারার আচরণের কথা। ভর্তিকৃত প্রায় সকল রোগীই অভিযোগ করেন তার আচরণের বিষয়ে। প্রায় প্রত্যেকের সাথেই সে খারাপ আচরণ করে। নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক অনেক সেবিকা ও কর্মরতারা অভিযোগ করেন তার বিরুদ্ধে।
স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে আরো জানা যায়, পরিচ্ছন্নতা কর্মী আয়ার বিরুদ্ধে একাধিকবার লিখিত ও মৌখিক অভিযোগ হয়েছে। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেড ও রোগীদের সমস্যার বিষয়ে জানতে গেলে দ্বায়িত্বরত সেবিকা জানান, ‘র্কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া আমি কোন কিছু বলতে পারব না।’
আক্কেলপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার ডা.রুহুল আমিনের নিকট বিষয়গুলি অবগত করলে ব্যবস্থা গ্রহণের আশ^াস দেন। জয়পুরহাট জেলার সিভিল সার্জন ডা. ওয়াজেদ আলীর সাথে এসব বিষয় নিয়ে কথা বলা হলে তিনি বিষয়টি দেখবেন বলে জানান।

সেপ্টেম্বর ২৯
০৭:৩৩ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]