Daily Sunshine

বিষধর সাপের দংশনে চিকিৎসা মিললো বাঘার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে

Share

স্টাফ রিপোর্টার, বাঘা: রাজশাহীর বাঘায় বিষধর সাপের দংশনের পর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দিয়ে সুস্থ করে তোলা হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার বানিয়া পাড়া গ্রামে সাপে কাটার এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাত ১০ টার দিকে ঘুমোতে যান উপজেলার বানিয়া পাড়া গ্রামের আনজের আলীর স্ত্রী নিলুফা বেগম (৪৫)। এ সময় তার বালিশের পাশে অবস্থান করছিল একটি বিষধর সাপ। আকষ্মিক সাপের উপর হাত গেলে তার হাতের কবজিতে দংশন করে। তার চিৎকারে বাড়ির অন্যরা সাপটিকে আধা-মরা করে আটকে ফেলে।
খবর পেয়ে ছুটে আসেন ঐ গ্রামের এক কবিরাজ (ওঝা)। শুরু হয় ঝাড়-ফুক এবং হাত চালান। এর আগে বাড়ির লোকজন নিলুফার হাতের কয়েকটি স্থানে রশি দিয়ে বেঁধে ফেলেন। এতে করে তার চিৎকার এবং যন্ত্রনা আরো বেড়ে যায়। নিরুপায় হয়ে এক ঘণ্টা পর তাকে উপজেলা স্বাস্থকমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগে আনা হয়। এরপর ডাক্তার ঐ সাপটিকে চিহৃত করে নিলুফার শরীরে ১০টি টেনভায়াল এন্টি ভেনু ইনঞ্জেকশান দেয়ার মাধ্যমে সুস্থ করে তুলেন।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেদ আহাম্মেদ জানান, সাপের কামড়ের জন্য চিকিৎসা রয়েছে। ওঝার কাছে গিয়ে কালক্ষেপন করার দরকার নেই। তবে কি সাপে কামড় দিলো সিটি নির্নয় করতে হবে।
তিনি বলেন, আমরা সাধারনোত কোন ব্যাক্তিকে হাতে কিংবা পায়ে সাপে দংশন করলে তার ক্ষত স্থানের উপরে রশি দিয়ে কয়েকটা শক্ত করে বাধন দেই। মূলত এতে রক্ত চলাচল বন্ধ হওয়ার কারনে অনেক সময় রুগী মারা জান। তার মতে, এ গুলো না করে , ক্ষত স্থানের উপরে আধাফিট ২-৩ টা বাঁশের বাতা বসিয়ে রশি দিয়ে বাঁধতে হবে। এরপর রুগীকে বেশি নড়া-চড়া না করে সাপসহ হাসপাতালে আনলে তাকে বাঁচানো সম্ভব।
বিষধর সাপের দংশনে চিকিৎসা

সেপ্টেম্বর ২৪
০৬:১৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]