Daily Sunshine

চারঘাটে বিদ্যুৎ বিভ্রাটে ক্ষোভ বাড়ছে জনমনে

Share

মিজানুর রহমান, চারঘাট: বিদ্যূতের চরম ভ্যালকিবাজিতে অতিষ্ঠ রাজশাহীর চারঘাট উপজেলাবাসী। শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলায় দিনে রাতে সমানতালে চলছে লোডশেডিং। বিদ্যুত বিভ্রাটের কারন জানতে পারছেন না গ্রহকরা। বিদ্যুতের অফিসের এমন খেয়াল খুশির লোডশেডিং সৃষ্টিতে বেকায়দায় পড়েছেন বৃদ্ধ, শিশু ও অসুস্থ্য রোগীরা।
ভ্যাপসা গরমে নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে উপজেলাবাসী। এমন অস্বাভাবিক বিদ্যূত বিভ্রাটের কারনে সাধারন মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। তবে নাটোর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ এর চারঘাট জোনাল অফিসের দাবি কাটাখালি গ্রিডে ত্রুটি দেখা দেয়ায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।
উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় গেলে স্থানীয় গ্রামবাসীরা জানান, চলতি সপ্তাহের মধ্যে কোনো বড় ধরনের ঝড়ো-হাওয়া না হলেও কারণে অকারণে নাটোর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর চারঘাট জোনাল অফিসের আওতাধিন এলাকায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা ধরে বিদ্যুৎ বন্ধ থাকছে।
গত তিনদিন ধরে নামাজের সময় চলে যাচ্ছে বিদ্যুত। আবার সন্ধ্যা হবার আগে এবং কখনও কখনও মধ্য রাতেও থাকছে না বিদ্যুত। কোন ধরণের প্রাকৃতিক সমস্যা দেখা না দিলেও চলছে বিদ্যুত বিভ্রাট। আবার একটু বৃষ্টি বা আকাশে মেঘ দেখা দিলেই ভুতের বাতি বিদ্যুত চলে যায়। দেখা মেলে না ঘন্টার পর ঘন্টা। পল্লী বিদ্যুত অঢিনের সরকারী মোবাইল ফোনে বিদ্যুত বিভ্রাটের জন্য যোগাযোগের চেষ্টা করেও গ্রাহকরা পান না সংশ্লিষ্ট অফিসের কাউকে। মোবাইল ফোনে রিং বেজে বিরক্ত হলেও রিসিভ করার জন্য কাকে না কোন রিসিভার। এতে বিদ্যুত অফিসের লোকজনের ওপর চরম ক্ষোভ সৃষ্টি হচ্ছে উপজেলাবাসীর।
মেরামতপুর এলাকার স্কুল শিক্ষক জাকারিয়া হোসেন বলেন, শতভাগ বিদ্যুতায়িত উপজেলায় এভাবে দিন রাত সমান তালে বিদ্যুত বিভ্রাটে জনজীবন বিপর্যস্থ হয়ে পড়েছে। প্রচন্ড গরমের কাছে মানুষ এমনিইে নাভিশ্বাস। তার পরে কারনে অকারণে বিদ্যূত না থাকা চরম ভোগান্তি বেড়েছে।
এটা চরম বিদ্যুত অফিসের কিছু ব্যাক্তির গাফিলতি। সারা বছরই বিভিন্ন অজুহাতে বিদ্যুত বিভ্রাট করা হয়। বিদ্যূত বন্ধ রেখে বিদ্যূতের লাইন মেরামতের কথা বলা হলেও আকাশে মেঘ দেখা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে চলে যায় বিদ্যুত। অনেক সময় ৫/৬ ঘন্টা থাকে না বিদ্যুত। এমন অভিযৈাগ জানালেন উপজেলার অনুপমপুর গ্রামের স্কুল শিক্ষক শরীফুল ইসলামসহ একাধিক ব্যাক্তি।
বিষয়টি সম্পর্কে নাটোর পল্লী বিদ্যুত সমিতি-২ এর চারঘাট জোনাল অফিসের ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার মোক্তার হোসেনের দাবি অনিচ্ছাকৃত বিদ্যুত বিভ্রাট জনগনের ভোগান্তি বাড়লেও আমরা চেষ্টা করি দ্রুত সমস্যার সমাধান করে বিদ্যুত স্বচলের। অনেক সময় যান্ত্রিক ত্রুটি চিহিৃত করতে দেরি হলে বিদ্যুত চালু করতে সময় লাগে।
তবে আমরা কখনও ইচ্ছাকৃত ভাবে বিদ্যুত বিভ্রাট সৃষ্টি করি না। এটা মানুষের একটা ভুল চিন্তা ভাবনা। যা কোন ভাবেই কাম্য নয়। শতভাগ বিদ্যুতায়িত চারঘাট উপজেলায় সার্বক্ষণিক বিদ্যুত স্বচল রাখতে আপ্রান চেষ্টা করা হচ্ছে।

সেপ্টেম্বর ০৫
০৫:৫৩ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]