Daily Sunshine

শিবির সম্পৃক্ততা প্রত্যাখান করে যুবলীগ নেতার সংবাদ সম্মেলন

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে ছাত্রশিবিরের সাথে সম্পৃক্ততা ও ২০ বছর ধরে ছাত্রশিবিরকে ইয়ানত প্রদান করার অভিযোগ অস্বীকার করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন রাজশাহী মহানগর যুবলীগের দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক মো. মাহমুদ হাসান খান চৌধুরী ইতু। বুধবার বেলা সাড়ে ১০টায় রাজশাহী রেলওয়ে স্টেশনের একটি হোটেলের কনফারেন্স রুমে সংবাদ সম্মেলনে তিনি নিজের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগে অস্বীকার করেন এবং ঘোষণা দেন, আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে যেসকল পত্রিকা ও অনলাইনে তার বিরুদ্ধে প্রতিবেদন ছাপানো হয়েছে তারা যেনো পত্যাহার করে নেয়া হয়। অন্যথায় সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমগুলোর বিরুদ্ধে তিনি নিজের সম্মান রক্ষার্থে আদালতে শরণাপন্ন হতে বাধ্য হবেন।
সংবাদ সম্মেলনে নিজের পারিবারিক পরিচয়, রাজনৈতিক কর্মকান্ডের অতীত ইতিহাস তুলে ধরে তিনি বলেন, আমি ছাত্রশিবিরের কর্মী পরিচয়ে শিবির ফান্ডে ২০ বছর যাবত ইয়ানত বা অর্থ প্রদান করছি বিষয়টি হাস্যকর ও শতভাগ মিথ্যা। সম্মেলনে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, ২০০৪ সালে তৎকালীন মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি শহীদুল ইসলাম বিপুল ভাইয়ের হাত ধরে ১০ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগে কর্মী হিসেবে কাজ শুরু করি। সেই সময় ১০ নম্বর ওয়ার্ডের কমিটি না থাকায় বোয়ালিয়া থানা ছাত্রলীগের সভাপতি মির্জা জনি ভাইয়ের নেতৃত্বে সকল প্রকার রাজনৈতিক কর্মসূচীতে সক্রিয় কর্মী হিসেবে কাজ করেছি। এমনকি ২০১০-১৪ সাল পর্যন্ত রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি মো. শফিকুজ্জামান শফিক ও সাধারণ সম্পাদক মীর তৌহিদুর রহমান কিটু ভাইয়ের কমিটিতেও উপ-পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এর দায়িত্ব পালন করেছি।
তিনি আরও জানান, এমনকি ২০১৫-১৬ সালে সিলেটে চাকুরিরত অবস্থায় সিলেট মহানগর যুবলীগের সাথে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণ করেছি। ২০১৬ মহানগর যুবলীগের দপ্তর সম্পাদক পদে মৌখিকভাবে দায়িত্ব পালন করি। পরে ২০১৭ সালের ১৫ মে কেন্দ্রিয় কমিটির ঘোষণার পর থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে আজ অবধি দায়িত্ব পালন করে আসছি। শুধু তাই নয়, আমার পরিবারের অধিকাংশই আওয়ামীলীগের সাথে সম্পৃক্ত ও পদস্থ। আবার আমার নিজের ছোটবোনকেও বিয়ে দিয়েছি আওয়ামী পরিবারে।
তিনি বলেন, মূলত আমার প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ও বর্তমান সংগঠন আওয়ামী যুবলীগকে প্রশ্নবিদ্ধ করার হীন মানসিকতা নিয়েই একটি স্বার্থান্বেষী কুচক্রী মহল এই জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকাসহ কিছু অনলাইন পোর্টালে মিথ্যে নিউজ করেছেন। এমন অমূলক, অসঙ্গতিপূর্ণ ও বানোয়াট মিথ্যে সংবাদের কারণে আমার সামাজিক ও রাজনৈতিক মর্যাদা ক্ষুন্ন হয়েছে। যে রশিদের উল্লেখ করা হয়েছে তা জাল রশিদ। তাতে কোনো শিবিরের লোগো নেই, এমনকি ১৯৯৯ সালের ও ২০১০ সালের রশিদও ঝকঝকে নতুন যা দেখেই বোঝা যাচ্ছে এটি জাল বা বানানো যা আমাকে ফাঁসানোর উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হয়েছে।

আগস্ট ১২
০৪:৫৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]