Daily Sunshine

মেয়র বিহীন চলছে আড়ানী পৌরসভা

Share

স্টাফ রিপোর্টার : মেয়র বিহীন চলছে রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী পৌরসভা। এই পৌরসভার মেয়র মুক্তার আলী গ্রেফতার হওয়া এক মাস পেরিয়ে গেলেও অধ্যবধি গঠন করা হয়নি প্যানেল মেয়র। ফলে ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন পৌরবাসী।
পৌর সভার কাউন্সিলররা জানান, একজন ব্যাক্তিকে মারপিট সহ মাদক এবং অস্ত্র মামলায় এক মাসের অধিক সময় হাজত বাস করছেন আড়ানী পৌর মেয়র মুক্তর আলী। এ ঘটনার পর তাঁকে অস্থায়ী ভাবে বহিস্কার করেছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। এর পর-পরই প্যানেল মেয়র নির্বাচনের প্রস্তাব পাঠানো হয় উক্ত দপ্তরে। কিন্তু অদ্যাধি সেটি পাশ না হওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েছেন পৌরবাসী।
তবে পৌর সভার প্রকৌশলী আলহাজ সাইফুল ইসলাম জানিয়েছেন, আমাদের আবেদনের ভিত্তিতে গত কয়েকদিন পূর্বে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয় থেকে একজন প্যানেল মেয়র নির্বাচনের জন্য রাজশাহী জেলা প্রশাসক মহাদ্বেয়ের নিকট একটি চিঠি (পরিপত্র) এসছে। জেলা প্রশাসক ঐ চিঠি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট প্রেরণ করেছেন।খুব শীর্ঘই নির্বাহী কর্মকর্তা সকল পৌর কাউন্সিলর এবং পৌর কর্মকর্তাদের নিয়ে বসে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন। অত:পর সেই সিদ্ধান্তটি পুনরায় চলে যাবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রনালয়। সেখান থেকে চুড়ান্ত প্রতিবেদনের মাধ্যমে একজন প্যানেল মেয়র নির্বাচিত হলে তবেই পৌর কার্যক্রম শুরু করা যাবে।
এদিকে পৌর সভার সম্ভাব্য প্যানেল মেয়র কাত্তিক হালদান বলেন,মেয়র মুক্তার আলী কারাগারে থাকায় পৌরসভার সকল কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়েছে। গত একমাস কাউকে বেতন ভাতা দেয়া সম্ভাব হয়নি। এ ছাড়াও নাগরিক সনদ প্রদান, করোনাকালীন সময় দুস্থদের জন্য অর্থ উত্তোলন, সরকারি জিয়ার ফান্ডের অর্থ এবং নতুন কোন প্রকল্প গ্রহণ সহ ঠিকাদারদের বিল প্রদান করা সম্ভব হয়নি। ফলে নাগরিক সকল সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে পৌরবাসী।
এ বিষয়ে বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, পৌর সভার পক্ষ থেকে যে তালিকা স্থানীয় সরকার মন্ত্রাণালয়ে প্রেরণ করা হয়েছিল সেটি গ্রহনযোগ্য হয়নি। নতুন করে তালিকা প্রেরণের নির্দেশনা এসছে। আগামী ১৫ আগষ্ট জাতীয় শোক দিবসের পর আমি পরিষদের সকলকে নিয়ে বসবো। যার পক্ষে সর্বাধিক সমর্থন আসবে তার নাম আমার মাধ্যমে পুন:রায় প্রেরণ করা হবে। এরপর প্যানেল মেয়র চুড়ান্ত হলে পৌর সভার সকল কার্যক্রম চালু হবে।
এ বিষয়ে মেয়র মুক্তার আলীর বিয়ায় আলহাজ শামিম হোসেন সহ আড়ানী পৌর এলাকার অভিজ্ঞ মহল এবং সুধীজনদের সাথে কথা বললে তারা বলেন, দোষ-গুনে মানুষ। মেয়র মুক্তার আলীর ছোট-খাটো কিছু ভুল-ত্রুটি থাকলেও তাঁর অনেক ভালো দিক রয়েছে। তিনি এলাকার গরিব-দুখিদের ভালোবাসেন ।মূলত: বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নির্বাচিত হওয়ায় আজ তিনি রাজনৈতিক প্রতি হিংসার স্বীকার ।স্থাণীয় লোকজনের দাবি, মুক্তার আলীর বাড়ীতে অস্ত্র উড়ে আসেনি। এ গুলো কেউ-না কেউ তাঁকে দিয়েছে। সুতারাং মেয়রের ভুলের সাথে যারা সম্পৃক্ত তাদের কেউ আইনের আওতায় আনা হোক।

আগস্ট ১১
০৪:৩৭ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]