Daily Sunshine

আপত্তিকর ছবি ভাইরালে বড়াইগ্রামে কাঠ ব্যবসায়ী আটক

Share

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি: বড়াইগ্রামের উপলশহর গ্রামে দশম শ্রেণীতে পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীর (১৬) সঙ্গে আপত্তিকর ছবি ভাইরাল করার অভিযোগে জমশেদ আলী মন্ডল (৫০) নামে এক কাঠ ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। আটক জমশেদ আলী উপলশহর গ্রামের আজিজুল ইসলাম মন্ডলের ছেলে।
থানা ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা যায়, একই গ্রামের ওই স্কুলছাত্রীর পরিবারে নিয়মিত যাতায়াত ছিলো জমশেদ আলীর। একপর্যায়ে মেয়েটির সঙ্গে তিনি কৌশলে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন। ওই পরিবারের সঙ্গে ছোট খাটো আর্থিক লেনদেনও হতো তার। বছর খানেক আগে সম্পর্কের অবনতি হলে স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম প্রধানদের কাছে ছাত্রীর পরিবারের কাছে পাওনা টাকা আদায় করে দেয়ার জন্য অভিযোগ করেন জমশেদ। পরে এ ব্যাপারে গ্রাম্য সালিশের রায়ে ৮ হাজার টাকা পরিশোধ করে ওই ছাত্রীর স্বজনরা। এরপর জমশেদ ওই ছাত্রীর সঙ্গে তার অন্তরঙ্গ মুহুর্তের কিছু অশ্লীল ছবি ওই ছাত্রী ও তার অভিভাবকদের দেখিয়ে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করে। জমশেদের এ ধরণের আচরণে অতিষ্ঠ হয়ে ওই ছাত্রীর বাবা-মা তাকে নিয়ে ঢাকায় চলে যান। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে লম্পট জমশেদ ওই ছাত্রীর সঙ্গে তার অর্ধনগ্ন অন্তরঙ্গ একটি ছবি ইমোতে বিভিন্ন জনের কাছে পাঠালে বিষয়টি ব্যাপক প্রচার হয়ে যায়।
এ ব্যাপারে ¯’ানীয় ইউপি সদস্য নুর ইসলাম সিদ্দিকী বলেন, টাকা পয়সার লেনদেন নিয়ে তিনি একটা সালিশ করেছেন। সেই টাকা পরিশোধের পরও ওই মেয়েকে নানাভাবে ব্ল্যাকমেইল করার চেষ্টা করতো বলে অভিযোগ পেয়ে বারবার নিষেধ করলেও তা আমলে নেয়নি জমশেদ। বর্তমানে মান সম্মানের ভয়ে পুরো পরিবার এলাকা ছেড়ে ঢাকায় চলে গেছে।
এ ব্যাপারে মেয়েটির পিতা মোবাইলে বলেন, আমার সহজ-সরল মেয়ের জীবনটাকেই লম্পট জমশেদ শেষ করে দিয়েছে। তার অত্যাচারে বাধ্য হয়ে মেয়ে ও স্ত্রীকে নিয়ে ঢাকায় এসে পেটের তাগিদে গার্মেন্টসে কাজ করছি। মেয়েটাকে বিয়ে দেয়ারও চেষ্টা করেছি কয়েকবার। কিন্তু যেখানেই বিয়ের কথা হয়, সেখানেই ওই আপত্তিকর ছবি দিয়ে বিয়ে ভেঙে দেয় সে। আমাদের জীবনটাকে সে বিষিয়ে তুলেছে।
এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার উপ-পরিদর্শক শামসুল ইসলাম জানান, মঙ্গলবার জমশেদের নামে ধর্ষণ ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দিয়ে কোর্টের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে।

আগস্ট ১১
০৪:৩৭ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]