Daily Sunshine

ফ্রুট ব্যাগিং-এ বাড়ছে গৌরমতি

Share

সাপাহার প্রতিনিধি: নওগাঁর সাপাহারে রোগ বালাইয়ের হাত থেকে রক্ষা পেতে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতিতে আম সংরক্ষণ করে অধিক মুনাফা অর্জন করছেন উপজেলার অনেক আমচাষী। বরেন্দ্র এগ্রো পার্কের মালিক সোহেল রানা জানান, কীটনাশক, পোকামাকড় ও বিরূপ আবহাওয়ার ক্ষতিকর প্রভাব থেকে আম রক্ষা করতে ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি খুবই কার্যকর।
ফ্রুট ব্যাগিং করার ফলে আম পোকামাকড় থেকে রক্ষা পায় এবং এতে আম থাকে বিষমুক্ত। শুধু গাছে সামান্য কীটনাশক স্প্রে করলেই হয়।
ইতোমধ্যেই তিনি এক্সপোর্ট অ্যাসোসিয়েশনের মাধ্যমে ১০ মেট্রিক টন ফ্রুট ব্যাগিং করা আম ইংল্যান্ড ইউরোপে রপ্তানি করেছে, আগামীতে প্রায় এর দ্বিগুন আম বিদেশে রপ্তানি করতে পারবো বলে আশা করছেন তিনি।
ফ্রুট ব্যাগিং করা আম্রপলি আম বর্তমানে ১০ হাজার টাকা মণ বিক্রি করা হচ্ছে, আর সেপ্টেম্বর মাসে গৌরমতি আম উঠবে, তখন সেটি ১৪ থেকে ১৬ হাজার টাকা মণ বিক্রি করতে পারবেন বলেও তিনি আশা করছেন।
সোমবার সকালে সাপাহার উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার মনিরুজ্জামানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, চলতি বছরে এ উপজেলায় ৮ থেকে ১০ লক্ষ আম ফ্রুট ব্যাগ করা হয়েছে। ফ্রুট ব্যাগ মূলত মাছি পোকাসহ অন্যান্য পোকার আক্রমণ থেকে রক্ষা করে।
ফ্রুট ব্যাগিং পদ্ধতি ব্যবহার করলে সাশ্রয়ে এবং নিরাপদ ভাবে ফল উৎপাদন করা সম্ভব হবে, আর এভাবে আম ফ্রুট ব্যাগিং করলে দেশ এবং দেশের গন্ডি পেরিয়ে বহির্বিশ্বেও বাংলাদেশের আম পরিচিতি লাভ করবে।

আগস্ট ১০
০৩:৩৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]