Daily Sunshine

চুলেই জীবিকা লিজা-রীমার

Share

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: লিজা, রীমা, আয়শা, শাহিনা কোনদিন ভাবতেও পারেনি ফেলে দেওয়া চুলেই একদিন তাদের জীবিকা নির্বাহ হবে। চুল এখন ৮ থেকে ১০ হাজার টাকা কেজি দরে কিনে নিয়ে যাচ্ছে ফেরিওয়ালা। আর এসব চুলেই এখন জীবিকা নির্বাহ হচ্ছে বাগমারার প্রায় শতাধিক তরুণী। ওরা আর ঘরে বসে সপ্তাহে আয় করছে হাজার টাকার ওপরে।
উপজেলার নরদাশ ইউনিয়নের মাদিলা গ্রামে এমনি পরচুলা ক্যাপ তৈরির কারখান গড়ে তুলেছেন আব্দুল জলিল নামে এক ব্যবসায়ী। তিনি ওই গ্রামের মোশারফ হোসেনের একটি ঘর ভাড়া নিয়ে গড়ে তুলেছেন এ কারখানা। সেখানে দিনভর প্রায় অর্ধশতাধিক তরুণী কাজ করে।
সম্প্রতি এ চুলের কারখানা নিয়ে একটি সচিত্র প্রতিবেদন তৈরি করেন বাগমারা টাইমসের সম্পাদক শাহিনুর ইসলাম শাহিন। তিনি জানান, বাগমারায় এ পরচুলা তৈরির কারখানা একটি বিরল সম্ভাবনার ক্ষেত্র তৈরি করেছে। এখানে স্কুল কলেজ পড়ুযা মেয়েরা কাজ করছে এবং একটি সম্মানজনক মজুরী পাচ্ছে।
তিনি আরো জানান, এসব পরচুলা তৈরির কারখানা মূলত আগে কুষ্টিয়া মেহেরপুর, ঝিনাইদহ এলাকায় ছিল। বর্তমানে কমমূল্যের মজুরী ও চুলের জোগান পাওয়ায় বাগমারাতে এ কারখানা গড়ে ওঠেছে।
ব্যবসায়ী আব্দুল জলিল জানান, তাদের কারখানায় তৈরি পরচুলা টুপি চীন, কোরিয়া, মায়ানমারসহ বিভিন্ন দেশে রপ্তানী করা হয়। বাংলাদেশেও এসব পরচুলার চাহিদা রয়েছে। তবে বিদেশে বেশি দাম পাওয়া যায়।
কারিগর আয়শা, লিজা ও রিমা জানান, এসব কাজ কারখানার উদ্যোক্তারা তাদের শিখিয়েছে। আগে একটি চুপি করতে দুই সপ্তাহ লাগত। এখন ৪-৫ দিনেই তৈরি করতে পারেন তারা। প্রতি চার ইঞ্চি টুপির জন্য তারা পাঁচশ টাকা মজুরী পান। লিখাপড়ার পাশাপাশি তারা এ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

আগস্ট ০৬
০৪:৫৪ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]