Daily Sunshine

রাবির প্রশাসন ও উপাচার্য ভবনে তালা

Share

রাবি প্রতিনিধি: রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ফাইন্যান্স কমিটির সভা এবং সিন্ডিকেট সভা পণ্ড করতে প্রশাসন ভবন ও উপাচার্য ভবনে তালা দিয়েছে ‘অবৈধ’ নিয়োগপ্রাপ্তরা। শনিবার (১৯ জুন) সকালে এই দুই ভবনে তালা ঝুলিয়ে দেয় তারা। পাশাপাশি এদিন সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত প্রশাসন ভবনের মূল ফটকে অব¯থান নেয় নিয়োগপ্রাপ্তরা। নিয়োগপ্রাপ্তরা বলছেন স্বপদে যোগদান না করা পর্যন্ত বিশ^বিদ্যালয়ের এই দুই ভবনে তালা ঝুলিয়ে রাখবেন তারা।
বিশ^বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে, শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ^বিদ্যালয় ফাইন্যান্স কমিটির (এফসি) সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। তবে তালা দেওয়ার ফলে এফসি সভা স্থগিত ঘোষণা করে বিশ^বিদ্যালয় প্রশাসন। এফসি সভার সঙ্গে সম্পৃক্ত আগামী ২২ তারিখের বিশ^বিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট সভাও স্থগিত করেছে প্রশাসন।
এ বিষয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি আতিকুর রহমান সুমন বলেন, আজ ফাইন্যান্স কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ফাইন্যান্স কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হলে আগামী ২২ তারিখে সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হতো। আমরা জানতে পেরেছি ওই সিন্ডিকেট সভায় আমাদের নিয়োগ সম্পূর্ণভাবে বাতিলের জন্য সুপারিশ করা হতো। ফলে আমরা নিয়োগপ্রাপ্তরা এই সভা দুটিকে স্থগিত করতে ভবনগুলোতে তালা দিয়েছি।
তিনি বলেন, আমরা বিশ^বিদ্যালয়ের রুটিন দায়িত্ব উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহার সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি এই সভা দুটি স্থগিত করেছেন এবং আমাদের সঙ্গে আগামীকাল আলোচনায় বসতে চেয়েছেন। আমরা কোনো প্রকার সমাধান না পাওয়া পর্যন্ত বিশ^বিদ্যালয়ের এই দুই ভবনে তালা ঝুলিয়ে রাখব।
জানতে চাইলে বিশ^বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর লিয়াকত আলী বলেন, অনিবার্য কারণবশত আজকের ফাইন্যান্স কমিটির সভা স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ২২ তারিখের সিন্ডিকেট সভাটি যেহেতু ফাইন্যান্স কমিটির সঙ্গে পুরোপুরি সম্পৃক্ত ছিল, সেহেতু আজকের সভাটি না হওয়ায় সেটিও অনুষ্ঠিত হবে না।
বিশ^বিদ্যালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, ‘নিয়োগপ্রাপ্তরা কথা বলতে চেয়েছেন। আমি তাদের সঙ্গে অফিসে কথা বলতে চেয়েছি। কিন্তু তারা তো প্রশাসন ভবনে তালা দিয়ে রেখেছেন। তালা না খুলে দিলে তো অফিসে যেতে পারব না।’
উপাচার্য বলেন, ‘যারা চাকরি পেয়েছে বা প্রত্যাশা করছে তাদের বিরুদ্ধে আমার অবস্থান না। শিক্ষা মন্ত্রণালয় যেহেতু এটাকে অবৈধ ঘোষণা করেছে আবার রাজশাহী বিশ^বিদ্যালয় এই নিয়োগ প্রক্রিয়াটিকে স্থগিত করেছে। সেক্ষেত্রে শিক্ষা মন্ত্রণালয় প্রজ্ঞাপন তুলে নিয়ে যদি নিয়োগ প্রক্রিয়াটিকে সঠিক মনে করেন। এবং নিয়োগ প্রদানের জন্য আমাকে চিঠি দেন তাহলে তাদের যোগদানের বিষয়ে আমি ব্যবস্থা গ্রহণ করব।’
এর আগে গত ৬ মে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক এম আবদুস সোবাহান তার বিদায় বেলায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞাকে উপেক্ষা করে ১৩৭ জনকে এডহকে নিয়োগ দিয়ে যান। সেদিন মন্ত্রণালয় সেই নিয়োগকে অবৈধ বলে আখ্যায়িত করেন। পরে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে সেই ১৩৭ জনের যোগদান স্থগিত রেখেছেন বর্তমানে দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা।

জুন ২০
০৫:১০ ২০২১

আরও খবর