Daily Sunshine

রাজশাহীতে আইসিইউ’র জন্য হাহাকার

Share

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ) বেড পেতে অপেক্ষায় থাকা করোনা রোগির তালিকা দীর্ঘ হচ্ছে। রামেক হাসপাতালে আইসিইউ বেড রয়েছে ২০টি। বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত আইসিইউতে রোগি ছিলেন ২০ জন। এদের মধ্যে ১২ জনই ছিলেন করোনা পজিটিভ। বাকিরা ছিলেন করোনার উপসর্গ নিয়ে। কিন্তু এই আইসিইউ বেড পেতে আবেদন করে অপেক্ষা রয়েছেন আরও ৭০ জন রোগি।
বৃহস্পতিবার সকালে আইসিইউতে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আইসিইউ বেড পেতে আবেদন রোগির ক্রমিক ৭০ পর্যন্ত উঠেছে। আইসিইউতে থাকা রোগিদের কারও একটু উন্নতি হলেই তাকে বের করে সাধারণ ওয়ার্ডে দেয়া হচ্ছে। আবার কেউ মারা গেলে বেড খালি হচ্ছে। তারপর ক্রমিক অনুযায়ী ফোন করে আইসিইউতে রোগি ডাকা হচ্ছে। প্রতিদিন ৭ থেকে ১০ জন পর্যন্ত রোগিকে আইসিইউতে নেয়া হয়। সে হিসেবে ক্রমিকের ৭০ নম্বর রোগিকে আইসিইউ পেতে অপেক্ষা করতে হবে এক সপ্তাহের বেশী।
রামেক হাসপাতালে প্রথমে ১০টি করোনা ডেডিকেটেড আইসিইউ বেড ছিল। এই ১০টি বেড যথেষ্ট না হওয়াও বাড়াতে বাড়াতে সেটি ২০টি করা হয়েছে। সর্বশেষ গত সোমবার দুটি বেড বাড়ানো হয়। তবে রামেকে আর আইসিইউ বেড বাড়ানোর মত অবকাঠামো সুবিধা নেই বলে জানিয়েছেন রামেক হাসপাতাল পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী।
করোনা পরিস্থিতি নিয়ে নিয়মিত ব্রিফিংয়ে তিনি বলেন, ‘এই মূহুর্তে আমাদের আইসিইউ বাড়ানোর মত আর স্ট্র্যাকচারাল ক্যাপাসিটি নেই। যা ছিলো সবই করলাম। এখন আইসিইউ বেড ২০টি।’
তিনি জানান, করোনা রোগিদের জন্য একের পর এক সাধারণ ওয়ার্ডকে করোনা ওয়ার্ডে রূপান্তর করা হচ্ছে। এখন হাসপাতালের ২৯-৩০, ৩৯-৪০, ২৫, ২২, ২৭, ১৬, ১৫, ৩ ও ১ নম্বর ওয়ার্ডে করোনা রোগিদের চিকিৎসা চলছে। এছাড়া কেবিনে ১৫টি বেড আছে। সবমিলিয়ে এ হাসপাতালে বেডের সংখ্যা ৩০৯টিতে দাঁড়িয়েছে। এছাড়াও ওই ওয়ার্ডগুলোতে অতিরিক্ত আরও ১৫টি বেড দেয়া হয়েছে।
হাসপাতাল পরিচালক শামীম ইয়াজদানী বলছেন, যত দ্রুত রোগি বাড়ছে তত দ্রুত সক্ষমতা বাড়ানো যাচ্ছে না। ফলে চিকিৎসা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এছাড়া করোনা রোগীদের জন্য নতুন নতুন ওয়ার্ড ছেড়ে দেয়ার কারণে অন্যান্য সাধারণ রোগের চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যহত হচ্ছে।
উত্তরবঙ্গের বৃহৎ এই হাসপাতালটিতে মোট ১ হাজার ২০০টি শয্যা আছে। এখানে রাজশাহী ছাড়াও চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর, নওগাঁ, জয়পুরহাট, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, কুষ্টিয়া, মেহেরপুর ও চুয়াডাঙ্গার রোগীরা চিকিৎসা নিতে আসেন। আর কোভিড পরিস্থিতির কারণে ভীড় আরও বেড়েছে।

জুন ১৮
০৫:৫০ ২০২১

আরও খবর