Daily Sunshine

রাজশাহীতে পৃথক হাসপাতাল চালুর উদ্যোগ বাধা সেন্ট্রাল অক্সিজেন সিন্টেম

Share

স্টাফ রিপোর্টার : দুইটি পিসিআর ল্যাবে শনিবার নমুনা পরীক্ষা করে রাজশাহীর নমুনায় ৫০ শতাংশের ওপরে করেনা ধরা পড়েছে। এছাড়া রাজশাহী মহানগরীর বিভিন্ন মোড়ে নির্ধারিত ভ্রাম্যমাণ পয়েন্টে নগরীবাসীর র‌্যাপিড এ্যন্ডিজেন টেস্ট (র‌্যাপিড টেস্ট) করিয়ে দিন শেষে ১১.৩৫ শতাংশের মধ্যে করোনা ধরা পড়েছে। এদিকে নগরবাসীর মধ্যে র‌্যাপিড টেস্টে আগ্রহ বড়ছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সিভিল সার্জন।
এদিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে বেডের সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে তা রোগীতে পূর্ণ হয়ে যাচ্ছে। অনেক রোগী বেড না পেয়ে মেঝেতে শুয়ে চিকিৎসা নিচ্ছেন। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে আক্রান্ত রোগীদের শুরু থেকেই অক্সিজেন প্রয়োজন পড়ছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।
রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আঞ্জুমান আনা বেগম জানান, নগরীর ভ্যাম্যনার ১৫টি পয়েন্টে র‌্যাপিড এ্যন্টিজেন টেস্ট করা হয়েছে ৯০৭ জনের। যাদের মধ্যে করোনা পজিটিভ ১০৩ জন। শনাক্তের হার ১১.৩৫ শতাংশ। তিনি জানান, বিনামূল্যে টেস্ট ও দ্রুত রিপোর্ট পাওয়া যাচ্ছে বলে নগরবাসীর মধ্যে র‌্যাপিড টেস্টে আগ্রহ বাড়ছে। করোনা নিয়ন্ত্রণে শনাক্ত হওয়া জরুরী। তা না হলে সাধারণ মানুষের মধ্যে রোগীরা মিশেগেলে সংক্রমণ আরো বাড়বে।
এদিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের দুইট পিসিআর ল্যাবে রাজশাহী জেলার ৩৪১ জনের নমুনা পরীক্ষ করা হয়েছে। যাদের মধ্যে করোনা ধরা পড়েছে ১৮৩ জনের নমুনায়। শতাংশের হিসেবে যা ৫৩.৬৭। হাসপাতাল দুটিতে মোট ৬৫৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যেখানে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৩০ জনের।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) পিসিআর ল্যাবে ৫ সিফটে পরীক্ষা করা হয় মোট ৪৬৫ জনের নমুনা। যেখানে করোনা পজিটিভ ১২২ জন। শনাক্তের হার ২৬.২৪ শতাংশ। ৪৬৫ নমুনার মধ্যে রাজশাহীর ১৫৩ জনের নমুনার মধ্যে করোনা পজিটিভ ৭৫ জন। শতাংশের হিসেবে যা ৪৯.০১। চাঁপাইনবাবগঞ্জের ১৫৮ জনের নমুনার মধ্যে পজিটিভ ২৬ জন। শতাংশের হিসেবে যা ১৬.৪৬। এছাড়া নাটোরের ১৫০ জনের নমুনায় পজিটিভ ১৯ জন এবং নওগাঁর ৪ জনে পজিটিভ ২ জন। মেডিকেল কলেজের এই ল্যাবটিতে রাজশাহীর পাশাপাশি আশপাশের জেলা থেকে পাঠানো নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।
এছাড়া রামেক হাসপাতালের পিসিআর ল্যাবে দুই সিফটে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করে করোনা ধরা পড়েছে ১০৮ জনের নমুনায়। শনাক্তের হার ৫৭.৪৫ শতাংশ। হাসপাতালটির ল্যাবে স্থানীয় জেলার পুলিশ, র‌্যাব, ডাক্তর, সরকারি অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচরী, সিটি কর্পোরেশনের এলাকায় বসবাসকারীদের নমুনা সহ হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।
রামেক হাসপাতালটির পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শামীম ইয়াজদানী জানান, রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে দশটি ওয়ার্ডে ২৭১ টি বেড প্রস্তুত আছে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে আসা রোগীদের চিকিৎসার জন্য। এর বাইরে ১৫.১৭ ও দুই নম্বর ওয়ার্ড প্রস্তুত করা হচ্ছে। করোনা চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত প্রতিটি ওয়ার্ডে অক্সিজেন লাইন সংযুক্ত আছে। এছাড়া রয়েছে সিলিন্ডারের মাধ্যমে অক্সিজেন সরবরাহের ব্যবস্থা।
আইসিইউ ওয়ার্ডে অক্সিজেন ফ্লো নির্ধারিত মাত্রায় রাখার জন্য সেন্ট্রাল অক্সিজেন সিস্টেমে থেকে পৃথক লাইন সংযুক্ত করা হচ্ছে। হাসপাতালে ১০ হাজার লিটার স্টোরেজ সমৃদ্ধ সেন্ট্রাল অক্সিজেন সিস্টেম রয়েছে একটি। আরো একটি অক্সিজেন স্টোরেজ প্রস্তুত করা হবে।
রামেক হাসপাতালের বাইরে অন্য হাসপাতালে করোনা চিকিৎসা দেয়ায় প্রধান অন্তরায় অক্সিজেন সিস্টেম। গেলবার খ্রিষ্টান মিশন হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য ভাড়া নেয়া হয়। তবে সেখানে অক্সিজেন সিন্টেম না থাকায় সমস্যায় পড়তে হয়েছে। বর্তমান সময়ে আক্রান্ত রোগীদের শুরু থেকেই অক্সিজেনের প্রয়োজন পড়ছে। বন্ধ হয়ে পড়ে থাকা দেড়শ বেডের রাজশাহী সদর হাসপাতালে করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য শীঘ্রই প্রস্তুত করা যাচ্ছে না। এর প্রধান কারণ হাসপাতাল ভবনটিতে অবকাঠামো ও সেন্ট্রাল অক্সিজেন সিস্টেম না থাকা। সরকার অনুমোদনের পর শুধুমাত্র অক্সিজেন সিস্টেম চালু করতেই সময় লাগবে অন্তত দুই মাস। এর সাথে আরও রয়েছে স্বাস্থ্যবিভাগের জনবলসহ হাসপাতালের অবকাঠামো প্রস্তুতের বিষয়।
রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচাল ডা. হাবিবুল আহসান তালুকদার বলেন, রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এলকায় সংক্রমণের হার এই বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ। হাসপাতালে রোগী রাখার জায়গা হাচ্ছে না। সাধারণ রোগীদের সরিয়ে আইনোলেশন ওয়ার্ডে ২৭১ টি বেড প্রস্তুত করা হয়েছে। শুক্রবার সেখানে রোগী ২৯৭জন। প্রতিদিন আইসোলেশন ওয়ার্ডে বেড বৃদ্ধি করেও জায়গার সঙ্কুলান হচ্ছে না। এতে করে হাসপাতালে অন্য সাধারণ রোগীদের চিকিৎসা দিতে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। পরিস্থিতির উন্নয়নের জন্য রাজশাহীতে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজন। আশাকছি বিদ্যমান লকডাউন ফল দেবে।

জুন ১৩
০৫:১৮ ২০২১

আরও খবর