Daily Sunshine

বাঘায় চির নিদ্রায় শায়িত সৈকত

Share

স্টাফ রিপোর্টার, বাঘা: মৃত্যুর স্বাদ সবাইকে গ্রহন করতে হবে। সবাইকে যেতে হবে না ফেরার দেশে। তবে সেই মৃত্যুটা যদি হয় অকাল মৃত্যু, কিংবা পিতা-মাতার একমাত্র সন্তান। তবে সেটি মেনে নেয়া বড়ই কষ্টকর। মহামারি করোনা এমন পরিস্থিতির মধ্যে ফেলছে অনেক পরিবারকে। যার ব্যত্যয় ঘটেনি হাস্যজ্বল যুবক আতিকুল হাসান সৈকতের জীবনে।
সৈকত হাসান (৩৫) রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আমানুল হাসান দুদুর একমাত্র সন্তান। তিনি কোভিড পজেটিভ হওয়ার ১৪ দিন পর এবং নেগেটিভ হওয়ার দু’দিন পর বৃহস্পতিবার রামেক হাসপাতালের আইসিইউতে মারা যান। মৃত্যুকালে তিনি দুই সন্তান, স্ত্রী এবং বাবা-মাসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন।
বৃহস্পতিবার বাদ এশা রাজশাহী বোয়ালিয়া থানার সামনে তাদের নিজেস্ব বাসভবনের বিপরীতে আলুপট্টি ডাবল লেন রাস্তার এক পাশে তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন পবা মোহনপুরের সাংসদ আয়েন উদ্দিন সরকার, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার এবং স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল হামিদ সরকার।
রাতে তাকে গ্রামের বাড়ী বাঘার নারায়নপুরে আনা হয়। সেখানে পরদিন শুক্রবার নারায়নপুর ঈদগাহ মাঠে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় বক্তব্য রাখেন তার চাচা বাংলাদেশ পুলিশের (এআইজি) আলমগীর কবির পরাগ।
তিনি বলেন, মহামারি করোনায় প্রতিদিন সারাবিশ্বে আক্রান্ত হচ্ছে লাখ-লাখ মানুষ। এটি এখন বিশ্বের সবচেয়ে বড় আতঙ্কের নাম। যার কালো থাবায় বিশ্ব আজ মহা-সংকটে। করোনার কাছে ধনী-গরীব, ছোট-বড় সবাই যেন অপরাধী। সবাইকে আক্রমণ করছে এ রোগ। যার ছোবল থেকে রা পাচ্ছে না দুগ্ধ শিশু থেকে আবাল-বৃদ্ধ বনিতা। আমরা সৃষ্টি কর্তার কাছে প্রার্থনা জানায় তিনি যেনো আমাদের সকলকে এ মহামারি থেকে হেফাজত করেন।
জানায়ায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, তার পিতা আমানুল হাসান দুদু, বাঘা উপজেলা চেয়ারম্যান লায়েব উদ্দিন লাভলু, সাবেক পৌর মেয়র আক্কাস আলী, বর্তমান মেয়র আব্দুর রাজ্জাক, উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল, বিএনপি নেতা সাইফুল ইসলাম।
জানাজা করান সৈকতের চাচাতো ভাই মেহেদী হাসান শান্ত। সবশেষে বাঘা কেন্দ্রীয় গোরস্থানে তার দাদির কবরের পাশে সৈকত হাসানকে সমাহিত করা হয়।

জুন ১২
০৪:৩৫ ২০২১

আরও খবর