Daily Sunshine

দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নারী এসআইয়ের মামলা

Share

স্টাফ রিপোর্টার: স্বামী স্ত্রীর অন্তরঙ্গ মূহুর্তের ছবি ও ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ায় স্বামীসহ পুলিশের ২ উপ-পরিদর্শক (এসআই) এর বিরুদ্ধে রাজশাহীতে মামলা দায়ের হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টায় সাইবার ট্রাইব্যুনাল আদালতে হাজির হয়ে মামলাটি দায়ের করেন রাজশাহী মেট্রো সিআইডিতে কর্মরত এক নারী উপ-পরিদর্শক (এসআই)।
আদালত সূত্র এবং মামলার আরজি থেকে জানা যায় মামলায় অভিযুক্তরা হলেন ওই নারী এসআই এর স্বামী ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিটের এসআই ওবাইদুল কবির সুমন (৩৫) ও তার কথিত প্রেমিকা আরেক নারী এসআই (৩০)। তাদের বিরুদ্ধে ২০১৮ এর ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন এর ২৩/২৪/২৫/২৬/২৯/৩১/৩৫ ধারার অভিযোগ এনে মামলাটি দায়ের করেন এ্যাডভোকেট মোখলেসুর রহমান স্বপন।
মামলার বাদী ওই নারী এসআই জানান, ২০১৪ সালে সরদহ পুলিশ একাডেমিতে প্রশিক্ষন চলা অব¯’ায় তাদের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ২০১৬ সালের ৯ এপ্রিল পারিবারিভাবে বিয়ে হয়। তার এক বছরের মাথায় একটি সন্তান জন্মগ্রহন করে। এর পর বিভিন্ন ওজুহাত দেখিয়ে সময় সময় তার কাছ থেকে তার স্বামী বেতনের টাকা নিতে থাকে। এক পর্যায়ে স্ত্রী চাকুরীর সম্পূর্ণ বেতনের টাকা নিজের কাছে রেখে দেন।
ওই নারী এসআই আরো জানান তার সন্তান জন্ম দেয়ার পর থেকে স্বামী এসআই ওবাইদুল কবির সুমন ছোট খাটো কথা নিয়ে মারধর করতে থোকে। পরে তিনি জানতে পারেন তার স্বামী ওবাইদুল কবির মাদকাসক্ত ও পরকিয়া প্রেমে লিপ্ত। ভুক্তভোগী এই নারী এসআই তার প্রতিবাদ করতে গেলে তাকে মারধর করে যৌতুকের দাবি করে। তিনি স্বামীর নির্যাতনের কারণে ঢাকা থেকে বদলীর আদেশ নিয়ে রাজশাহী মেট্রো সিআইডিতে যোগদান করেন।
রাজশাহীতে আসার পরে আসামি এসআই ওবাইদুল কবির ইউটিউব, ফেসবুক-ম্যাসেঞ্জারসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভুক্তভোগী এসআইয়ের সাথে তার অন্তরঙ্গ মূহুর্তের ধারণকৃত ভিডিও ও ভূক্তভোগীর সাথে অশ্লীল ছবি জুড়ে দিয়ে ছড়িয়ে দেয়। এবং ওই নারী এসআই এর পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বিভিন্ন আপত্তিকর মন্তব্য ও ভিডিও,কুরুচিপূর্ণ উক্তি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। ভুক্তভোগী এই নারী এসআই আরো জানান, তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টও আসামী অবৈধভাবে ব্যবহার করছে।
এ ব্যাপারে বাদী পক্ষের আইনজীবী এ্যাডভোকেট মোখলেসুর রহমান স্বপন বলেন, পুলিশ আইনের রক্ষাকারী তারা দুই জনই পুলিশ কিন্তু পুলিশের দায়ীত্বশীল পর্যায়ে থেকে কি করে এ ধরনের অপরাধ করে এই ব্যাপারে আদালতের কাছে আমরা বিচার চেয়েছি। আমার মক্কেল আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে আদালতের দার¯’ হয়েছেন। আদালত সš‘ষ্ট হয়ে ওসি রাজপাড়া কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। আশা করি ন্যায় বিচার পাবো।
এ বিষয়ে আসামী ওবাইদুল কবির ওরফে সুমনের মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তার অধিনস্ত রফিক নামের এক ব্যক্তি ফোন ধরেন। তিনি বলেন, স্যার ব্যস্ত আছে। কিছুক্ষণ পরে ফোন দেন। এর পর তার সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

জুন ১০
০৫:২৪ ২০২১

আরও খবর