Daily Sunshine

অর্থনীতি উদ্ধারের চেষ্টায় পর্যটন চালু দেশে দেশে

Share

সানশাইন ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী করোনার অতিমারিতে অন্যতম ক্ষতিগ্রস্ত খাত হলো পর্যটন। ওয়ার্ল্ড ট্রাভেল অ্যান্ড ট্যুরিজম কাউন্সিলের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সালে পর্যটন খাতে বিশ্ব বাণিজ্যের আকার ছিল ৯ দশমিক ২৫ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার (প্রতি ট্রিলিয়নে এক লাখ কোটি)। অথচ করোনার কারণে ২০২০ সালে এই পর্যটন শিল্প তার প্রায় অর্ধেক হারিয়েছে। বিশ্বজুড়ে জিডিপিতে এই খাতের অবদান ওই বছরে ৪৯ দশমিক ১ শতাংশ কমে ২০২০ সালে ৪ দশমিক ৭ ট্রিলিয়ন ডলারে নেমেছে। তবে ২০২১ সালে করোনার টিকা আসায় পরিস্থিতি কিছুটা পাল্টাতে শুরু করেছে। দেশে দেশে করোনার টিকা দেওয়ার হার বাড়ছে, খুলতে শুরু করেছে নানা দেশের পর্যটনের দুয়ার।
কোন কোন দেশ পর্যটনের দুয়ার খুলেছেÍএকবাক্যে বলা সম্ভব নয়। কারণ বর্তমান সময়ের প্রশ্নটা হচ্ছে কোন দেশের পর্যটকদের জন্য কোন দেশের পর্যটনের দুয়ার খোলা। যেমন সম্প্রতি যুক্তরাজ্য সরকার ১২টি দেশকে সবুজ তালিকাভুক্ত করেছে। অর্থাৎ যুক্তরাজ্যের কোনো নাগরিক এ ১২ টি দেশে ঘুরতে গেলে, ঘুরে আসার পর তাদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না। তবে বেড়াতে যাওয়ার আগে অবশ্যই পিসিআর টেস্টে করোনাভাইরাস নেগেটিভ হতে হবে অথবা করোনার টিকা দেওয়া থাকতে হবে।
সবুজ দেশের তালিকার দেশগুলো হলো পর্তুগাল, ইসরায়েল, সিঙ্গাপুর, অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড, ব্রুনেই, আইসল্যান্ড, জিব্রলটার, ফকল্যান্ড ও ফারো দ্বীপপুঞ্জ, দক্ষিণ আটলান্টিক মহাসাগরবিধৌত সাউথ জর্জিয়া ও সেন্ট হেলেনা দ্বীপ। এর মধ্যে জিব্রলটার, ফকল্যান্ড ও ফারো দ্বীপপুঞ্জ এবং সাউথ জর্জিয়া ও সেন্ট হেলেনা দ্বীপ ব্রিটিশ উপনিবেশ।
সবুজ দেশের তালিকার নাম আসা পর্তুগালের জন্য খুবই বড় সুসংবাদ। কারণ দেশটির অর্থনীতি পর্যটননির্ভর। বৈশ্বিক জরিপকারী সংস্থা ট্রেডিং ইকোনমিকসের তথ্য অনুযায়ী, দেশটির জিডিপির ১০ ভাগই আসে পর্যটন খাত থেকে।
পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় ইউরোপের আরেক দেশ গ্রিস। বিশ্বের ৫৩ দেশের নাগরিকদের জন্য গ্রিসের পর্যটনের দুয়ার খুলে দেওয়া হয়েছে গত ১৫ মে। অবশ্য দেশটির করোনা পরিস্থিতি এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি। ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, দেশটিতে এখনো প্রতিদিন গড়ে দুই হাজারের বেশি মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। তবে গ্রিসের অর্থনীতির এক-পঞ্চমাংশ আসে পর্যটন খাত থেকে, ফলে ঝুঁকি নিয়েই পর্যটন ব্যবসা শুরু করছে দেশটি। প্রাথমিক পর্যায়ে গ্রিসের দ্বীপগুলোতে পর্যটক আকর্ষণের চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু যুক্তরাজ্যসহ বেশ কয়েকটি দেশ তাদের নাগরিকদের গ্রিসে না যাওয়ার পরামর্শ দিচ্ছে।
শিগগিরই বিদেশিদের জন্য দুয়ার খোলার ঘোষণা দিয়েছে সৌদি আরবও। তবে ঠিক কবে থেকে সৌদি আরবে যাওয়া যাবে সেটা নিশ্চিত করা হয়নি। সৌদি পর্যটন কর্তৃপক্ষের প্রধান ফাহাদ হামিদাদ্দিনের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানায়, শিগগিরিই সৌদি আরব তার সীমান্ত খুলে দেবে। তিনি জানান, তাঁরা ২০৩০ সাল নাগাদ বছরে ১০ কোটি বিদেশিকে তাদের দেশে ভ্রমণের অনুমতি দেওয়ার লক্ষ্য নির্ধারণ করেছে। মহামারির আগে বছরে ৬ কোটি বিদেশি ভ্রমণের সুযোগ পেত দেশটিতে। করোনা পরিস্থিতিতেও তুরস্ক খোলা রেখেছিল পর্যটন।
করোনার মধ্যেও গত বছরের মাঝামাঝি থেকে মালদ্বীপ, তুরস্ক, দুবাই ও মিসর খোলা রেখেছিল তাদের পর্যটন। দক্ষিণ এশিয়ার দেশ মালদ্বীপ গত বছরের জুলাই থেকে তাদের পর্যটন খুলে দিয়েছিল। মূলত অর্থনৈতিক কারণেই এটি করতে হয়েছে দেশটিকে। কারণ ভারত মহাসাগর বিধৌত এই দ্বীপ রাষ্ট্রটির জিডিপির ২৮ শতাংশই আসে পর্যটন খাত থেকে। তাই নিজেদের অর্থনীতি সচল রাখতে করোনা ঝুঁকির মধ্যেও প্রায় সব দেশের নাগরিকের জন্য ভ্রমণের সুযোগ উন্মুক্ত রাখে দেশটি। কিন্তু খুব বেশি পর্যটক টানতে পারেনি। স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে ২০২০ সালে মালদ্বীপে দুই-তৃতীয়াংশ পর্যটক কমে গিয়েছিল। অবশ্য অধিকাংশ দেশের পর্যটন বন্ধ থাকায় মালদ্বীপকে কোভিড বর্ষে সবচেয়ে সফল পর্যটন দেশ হিসেবে ধরা হচ্ছে। সম্প্রতি প্রতিবেশী দেশ ভারতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হওয়ায় মালদ্বীপ দক্ষিণ এশীয় অন্যান্য প্রতিবেশীদের প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।
২০১৯ সালে মিসরের জিডিপির ১২ শতাংশই এসেছে পর্যটন খাত থেকে, ১২ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলার (এক বিলিয়নে একশ কোটি)। পর্যটকদের জন্য দেশটি খোলা থাকলেও ২০১৯ সালের তুলনায় ২০২০ সালে পর্যটন খাত থেকে আয় ৭০ শতাংশ কমে যায়। দুবাইয়ের জিডিপিরও প্রায় ১২ শতাংশ আসে পর্যটন খাত থেকে। তাই গত বছর জুলাইয়ের পরই পর্যটকদের জন্য দুয়ার খুলে দেওয়া হয় দুবাইয়ের। পর্যটক আকর্ষণের জন্য দেশটির হোটেল ও পর্যটন কেন্দ্র থেকে নানা ধরনের প্রচার চালানো হয়। করোনা অতিমারির মধ্যেও পর্যটক ও পর্যটন কর্মীদের সফলভাবে সুরক্ষা দিতে পারায় এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে দুবাই জাতিসংঘের বিশ্ব পর্যটন সংস্থা (ইউএনডাব্লিউটিও) থেকে স্বীকৃতি পায়। তুরস্কও গত বছর থেকে খুলে রেখেছে তাদের পর্যটন খাত। তবে এয়ারলাইনস ও পর্যটন ব্যবসায় প্রসিদ্ধ এ দেশটিও কোভিড বর্ষে খুব বেশি আয় করতে পারেনি।

মে ২০
০৫:০৬ ২০২১

আরও খবর