Daily Sunshine

নানা রঙ, নানা স্বাদের আম বাজারে মিলছে

Share

মুন্না হুসাইন, তাড়াশ: শুরু হয়েছে মধুমাস। আম, জাম, কাঁঠাল, লিচুর মতো মিষ্টি আর রসালো ফলের দেখা মিলতে শুরু করেছে। ক’দিন পরেই এসব ফলের গন্ধে মৌ মৌ করবে চারপাশ।
কাঁচা আম দিয়ে নানা স্বাদের জ্যাম, জেলি, মোরব্বা কিংবা আচার তৈরি শেষে এবার পাকা আমের রসে ডুব দেওয়ার পালা। আম পছন্দ করেন না এমন কাউকে খুঁজে পাওয়া মুশকিল। অনেকেই শুধু আমের জন্য অপেক্ষা করে থাকেন বছরের এ সময়টার। আমের রয়েছে নানা প্রজাতি। তার মধ্যে একেক ধরনের আমের স্বাদ একেকরকম।
পাকা আমের মিষ্টি স্বাদ মনকাড়া তাতে সন্দেহ নেই। কিন্তু এ আম যদি ভালো না হয়, সেই স্বাদ তখন বিদঘুটে লাগে। অনেক সময় আগেভাগে লাভবান হওয়ার জন্য অসাধু ব্যবসায়ীরা কাঁচা আমই কৃত্রিম উপায়ে পাকিয়ে থাকেন। তখন বাইরে থেকে দেখে ভালো মনে হলেও খেতে একদমই ভালো লাগে না। আম কিনে ঠকতে না চাইলে জেনে নিতে হবে ভালো আম চেনার উপায়।
গন্ধ শুঁকে বুঝে নিতে হয় ভালো জাতের আম। ঘ্রাণশক্তির মাধ্যমেই বুঝা যায় আমটি ভালো কি না। আমের ধরনের ওপর নির্ভর করে এর সুগন্ধে ভিন্নতা দেখা যায়। আমটি নাকের কাছে নিয়ে এর গন্ধ নিতে হবে। যদি বোঁটার কাছ থেকে মিষ্টি গন্ধ আসে তবে আমটি ভালো বলে ধরে নিতে হবে। এ আম নিশ্চিন্তে কেনা যায়। আম থেকে যদি তীব্র ঝাঁঝালো বা টক গন্ধ বের হয় তবে সেই আম কেনা থেকে বিরত থাকাই ভালো।
আঙুলের মাথা দিয়ে হালকা টিপে দেখেও আমের ভালো-মন্দ যাচাই করা যায়। যদি পাকা হয় তবে সেটি নরম হবে। যদি আঙুলের চাপে গর্ত হয়ে যায় তবে সেটি কেনার মতো। আবার বাড়িতে রেখে কয়েকদিন ধরে খেতে চাইলে কিছুটা শক্ত দেখে আম কিনাই বাঞ্ছনিয়।
আমের ক্ষেত্রে এর চেহারা দেখেও নির্বাচন করা যায় ভালো-মন্দ আম। যদি সুন্দর হয় তবে সেটি ভালো আমের তালিকায় অনেকটা এগিয়ে থাকে। দাগমুক্ত এবং এবড়ো-থেবড়ো নয় এমন আম কিনুন। খোসা কুঁচকে যাওয়া আম না কেনাই ভালো। ভালো আমের ক্ষেত্রে রং অবশ্য ততটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। সবুজ, হলুদ, লাল, সোনালি, কমলা যেকোনো রঙের আম নেয়া যেতে পারে।
আমটি প্রাকৃতিকভাবে পাকা কি না তা দেখে নেওয়াই ভালো। কারণ অনেক আম কার্বাইড দিয়ে পাকানো থাকে। তাই আম কেনার সময় একটু যাচাই-বাছাই করে কেনাই ভালো। অনেকে সরাসরি বাগান থেকে এনে বিক্রি করে থাকেন। পরিচিত কেউ এভাবে বিক্রি করলে তার কাছ থেকেও আম কিনতে পারেন। এতে ঠকে যাওয়ার ভয় কম থাকে।

মে ২০
০৪:৫৭ ২০২১

আরও খবর