Daily Sunshine

ঈশ্বরদীতে গৃহবধূকে জবাই করে হত্যার ঘটনায় দুইজন গ্রেফতার

Share

ঈশ্বরদী প্রতিনিধি: ঈশ্বরদীতে প্রকাশ্যে দিনের বেলায় মুক্তি খাতুন রিতা (২৭) নামের এক গৃহবধূকে গলা কেটে নৃশংশভাবে হত্যার ঘটনায় ২ জনকে গ্রেফতার করেছে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ। বৃহস্পতিবার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাদের নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান।
গ্রেফতারকৃতরা হলো, শরিফ সরকার (২০), ও হেলাল সরকার (২২)। তাদের বাড়ি নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল চরগোবিন্দপুর গ্রামে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানান মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই জাকির হোসেন। লোমহর্ষক এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় নিহত গৃহবধূ রিতার বাবা মোজাফ্ফর হোসেন বাদি হয়ে ঈশ্বরদী থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।
এর আগে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে ঈশ্বরদী পৌরসভার মশুড়িয়া পাড়া এলাকায় মুক্তি খাতুন রিতা (২৭) নামের এক গৃহবধূকে গলা কেটে নৃশংশভাবে হত্যা করা হয়। রিতা ওই এলাকার বায়োজিদ সারোয়ারের স্ত্রী। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে ঈশ্বরদী থানা পুলিশ। হত্যাকান্ডের সময় রিতার শ্বাশুড়ি নিলিমা খাতুন বেনুকেও (৫৫) গলা টিপে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করা হয়। সে সময় তার আর্তচিৎকারে হত্যাকারীরা পালিয়ে যায়। হত্যাকারীরা ৫ জন ছিল বলে শাশুড়ি নিলিমা খাতুন বেনু জানান। ঘটনার পর পাবনা পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খাঁন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফিরোজ কবীর, পৌর মেয়র ইছাহক আলি মালিথা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।
প্রত্যক্ষদর্শী নিহত গৃহবধূ রিতার শাশুড়ি নিলিমা খাতুন বেনু জানান, তার ছেলে বায়োজিদ সারোয়ার রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকরি করেন। সেই সুবাদে বায়োজিদ সারোয়ার বেশ কিছু মানুষকে রূপপুর প্রকল্পে চাকরিও দিয়েছেন। ঘটনার দিন বেলা ১১টার সময় ৫ যুবক চাকরির জন্য তার বাড়িতে আসে। বায়োজিদ সেই সময় বাজারে থাকায় ড্রইং রুমে বসিয়ে তাদের আপ্যায়ন করেন পুত্রবধূ মুক্তি খাতুন রিতা। সে সময় তিনি ঘরে কোরআন পড়ছিলেন। হঠাৎ হত্যাকারীরা তার ঘরে ঢুকে গলা টিপে ও শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে। এ সময় তিনি চিৎকার শুরু করলে হত্যাকারীরা পালিয়ে যায়। পরে তিনি পুত্রবধুর ঘরে গিয়ে তার গলা কাঁটা লাশ পরে থাকতে দেখেন।
হত্যাকারীদের মধ্যে তিনি একজনকে চিনতে পেরেছেন। তার নাম সাব্বির হাসান, বাড়ি নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম উপজেলার জোনাইল চরগোবিন্দপুর গ্রামে। বাকিদের মুখে মাস্ক থাকায় তিনি চিনতে পারেননি বলে জানান।
নিহত গৃহবধূ রিতার স্বামী বায়োজিদ সারোয়ার জানান, তিনি রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পের বাংলা পাওয়ার কোম্পানীতে চাকরি করেন। রূপপুর প্রকল্পে চাকরির জন্য তার নানির বাড়ির এলাকা থেকে কিছু মানুষ বাড়িতে আসবে তাই বাজারে গিয়েছিলেন বাজার করতে। এসে দেখেন তার স্ত্রী মুক্তি খাতুন রিতাকে গলা কেটে হত্যা করে পালিয়ে গেছে তারা। তিনি কাউকে দেখেননি। তবে তার মায়ের কাছ থেকে সব শুনেছেন।
এলাকাবাসী জানান, বায়োজিদ সারোয়ার রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে চাকরির কারণে টাকার বিনিময়ে অনেক মানুষকে চাকরি দিয়েছেন। হয়তো চাকরির জন্য টাকা-পয়সা লেনদেনের বিষয়ে এ হত্যাকান্ড ঘটতে পারে।
ঈশ্বরদী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আসাদুজ্জামান জানান, অনেকগুলো বিষয় নিয়ে তদন্ত করা হচ্ছে। এর মধ্যে ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। কি কারণে রিতাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়েছে তা এখনই বলা যাবে না আরও সময় লাগবে।
তিনি আরও বলেন, সিআইডির বিশেষ টিম এসে আলামত সংগ্রহ করে গেছে। লাশ ময়না তদন্ত করে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান তিনি। দু’এক দিনের মধ্যেই সব পরিস্কার হয়ে যাবে বলেও জানান তিনি।

মে ০১
০৫:৪২ ২০২১

আরও খবর