Daily Sunshine

শিবগঞ্জে অবশেষে বিকল্প উপায়ে পানি সরবরাহ

Share

এ কে এস রোকন, শিবগঞ্জ: সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে বিকল্প উপায়ে পানি সংকটের সমাধান করলো শিবগঞ্জ পৌরসভা। সেসাথে পৌর মেয়রের প্রচেষ্টায় জনস্বাস্থ্য বিভাগ পানি সরবরাহ লাইন স্থাপনে দ্বিতীয় দফায় টেন্ডার আহবান করল। এতে করে সাময়িকভাবে পৌরবাসী কিছুটা সুফল পেল। আর টেন্ডার শেষে পাইপ লাইন স্থাপন শেষে পানি সরবরাহ শুরু হলে এ সমস্যা থেকে রেহায় পাবেন পৌরবাসী।
চৈত্র মাসের শুরুতেই পানির তীব্র সংকট দেখা দেয় চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভায়। প্রায় ৩ সপ্তাহ থেকে এ সংকটের শুরু হবার পর বিভিন্ন দৈনিকে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। অবশেষে রবিবার সকাল থেকে পৌরসভার উদ্যোগে বাড়ি বাড়ি পানি সরবরাহের উদ্যোগ নেয় শিবগঞ্জ পৌরসভা। পৌর মেয়র নিজেই বিকল্প উপায়ে পানি সরবরাহের উদ্ধোধন করেন। এ সময় প্যানেল মেয়র ফারুক টুটুল এবং আজিজুল ইসলামসহ পৌরসভার সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।
পানি সরাবরাহের উদ্ধোধনের পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি তার প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরার পাশাপাশি দীর্ঘদিনের এ সমস্যার জন্য পৌরবাসীর কাছে দুঃখ প্রকাশ করে ধৈর্য্য ধরার অনুরোধ জানান।
সামাজিক মাধ্যমে তিনি দাবী করেন, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকল্প পরিচালক সূত্রে জানা যায় গত বছরের শুরুতেই ১শ টি সেমি-ডিপটিউবওয়েল শিবগঞ্জ পৌরসভায় বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু ডিপটিউবওয়েলগুলোর মধ্যে ৪৫টিই বসানো হয়েছে সাবেক মেয়রের এলাকায় কতিপয় বিশেষ ব্যক্তির বাড়ির অভ্যন্তরে। কিন্তু যেখান থেকে সাধারণ মানুষ পানি নিতে পারছে না। তবে জনগণের ব্যবহারের জন্য সরকারী বরাদ্দের সেমি-ডিপটিউবওয়েলগুলো উন্মুক্ত স্থানে স্থাপন করা উচিৎ ছিল। আর অবশিষ্ট ৫৫টি সেমি-ডিপটিউবওয়েলের হদিস এখনো মেলেনি।
এদিকে ট্রাকে করে পানি সরবরাহ আরম্ভ হওয়ায় পৌরবাসি বাড়ির সামনে পানি পেয়ে কিছুটা হলেও স্বস্থি ফিরে পেয়েছেন। রবিবার সকালে পৌর মেয়রের পানি সরবরাহ উদ্ধোধনের সময় পৌরবাসী খবর পেয়ে পানির জন্য বালতি, ড্রামসহ বিভিন্ন বাসনপত্র নিয়ে ট্রাকের সামনে হাজির হয়। এ সময় পানি নিতে দীর্ঘ লাইন লক্ষ্য করা গেছে।
পৌর এলাকার বাগানটুলি মহল্লার বাসিন্দা আব্দুর রব জানান, তারা দীর্ঘ এক মাস ধরে পানির জন্য চরম সমস্যায় পড়ে আছেন। পাড়ার বিত্তবানদের সাব মার্সিবল পাম্প থেকে রিক্সায় করে পানি এনে নিত্যপ্রয়োজনীয় কাজ সেরেছেন।
একই এলাকার রফিকুল ইসলাম জানান, সাময়িকভাবে পৌরসভা যে পানি সরবরাহ আরম্ভ করেছে তা সংকটকালীন সময় পর্যন্ত অব্যাহত রাখলে তাদের কিছুটা উপকার হবে।
এদিকে ৫ নম্বর ওর্য়াড কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র ২ আজিজুল ইসলাম জানান, পৌরবাসীর সমস্যার কথা বিবেচনা কওে প্রতিদিন পৌরসভার সবকটি ওয়ার্ডে ২ বেলা ৩টি ভ্র্যাম্যমাণ ট্রাকে পানি সরবরাহ অব্যাহত থাকবে।
এদিকে শিবগঞ্জ পৌর মেয়র সৈয়দ মনিরুল ইসলাম পানি সংকটের জন্য আগের মেয়রদের দায়ী করে বলেন, জনস্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উদ্যোগে ১শ টি সেমি ডিপ টিউবওয়েল বরাদ্দ দিলেও ৫৫ টি সেমি ডিপ টিউবওয়েলের হদিস পাওয়া যায়নি। বাকী ৪৫ টি বসানো হয়েছে সাবেক মেয়রের এলাকার বিভিন্ন বাড়ির ভেতরে। এতে করে নিম্নবিত্ত মানুষ সংকটকালে পানি সরবরাহ থেকে বঞ্চিত হয়েছে। সেসাথে উচ্চবিত্তরা সাবমার্সিবল পাম্প বসানোয় সাধারণ টিউবওয়েল ও মটর চালিত টিউবওয়েল গুলো পানি তুলতে ব্যর্থ হয়েছে।
সংকট সমাধানে তিনি বিকল্প উপায়ে পানি সরবরাহের পাশাপাশি ঢাকার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরে সশরীরে তদবির করায় দ্বিতীয় দফায় পানির পাইপ লাইন স্থাপানের টেন্ডার দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। দ্রুত কাজ শেষ হলে পৌর এলাকার স্থাপিত ৬টি ডিপ টিউবওয়েলের মাধ্যমে পানি সরবরাহ আরম্ভ হবে।
১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত পৌরসভাটিতে এবারই প্রথমবার সবচাইতে বেশি সংকট পড়ে প্রায় ২৫ হাজার পৌরবাসী । সংকট নিরসনে গত ৩ বছর ধরে গভীর নলকূপ স্থাপনের মাধ্যমে পানি সরবরাহ এবং ড্রেনেজ ব্যবস্থা স্থাপনের জন্য ৪২ কোটি টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হলেও অজও প্রকল্পটি আলোর মুখ দেখেনি।

এপ্রিল ২০
০৩:৪৮ ২০২১

আরও খবর