Daily Sunshine

মাহে রমজান

Share

স্টাফ রিপোর্টার : আজ পবিত্র মাহে রমজানের ৪র্থ দিবস। রমজান মাস হলো কুরআন নাজিলের মাস। বস্তুত মাহে রমজানের মর্যাদা বৃদ্ধির কারণ হলো এ মাসে আল-কুরআন নাজিল হয়েছে। কুরআন নাজিলের কারণে মাসটি যেমন চির সম্মানিত তেমনি কুরআন তিলাওয়াত করার কারণে জীবনে কুরআন শরিফের মর্মার্থ অনুশীলনের মাধ্যমে মানুষ দুনিয়া আখিরাতে মর্যাদাবান হয়। এ জন্য এই মাসের অন্যতম প্রধান ইবাদত এ পবিত্র গ্রন্থের তিলাওয়াত ও মর্ম অনুধাবন। মহাগ্রন্থ আল-কুরআনুল কারীম মানব জাতির জন্য মহান স্রষ্টা আল্লাহ পাকের পক্ষ হতে সর্বশেষ ও পরিপূর্ণ হিদায়াত বা দিক নির্দেশনামূলক গ্রন্থ। এটি গোটা মানব জাতির জন্য পথপ্রদর্শক। এখানে শিক্ষা ও সভ্যতা অর্জনের সব উপাদান ও সূত্র নিহীত রয়েছে। এককালে এটিকে মর্যাদা দান, তিলাওয়াত ও অধ্যয়নের মাধ্যমে মুসলিম জাতির সমৃদ্ধময় গৌরবদীপ্ত উত্থান ঘটেছে। এর আগে আল্লাহ তায়ালা মানব জাতির জন্য যেসব আসমানি গ্রন্থ প্রেরণ করেছিলেন, তা কেবল সমসাময়িক ও স্থানীয় চাহিদা পূরণের জন্য।
সূরা আলে ইমরানের ২৩ নং আয়াতে বলা হয়েছে : ওহে নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম)! আপনি কি তাদের দেখেন নি? যারা কিতাবের কিছু অংশ পেয়েছে-আল্লাহর কিতাবের প্রতি তাদের আহ্বান করা হয়েছিল, যাতে তাদের মধ্যে নানা বিষয়াবলী নিয়ে মীমাংসা করা যায়। অতঃপর তাদের মধ্যে একদল তা অমান্য করে মুখ ফিরিয়ে নেয়। অর্থাৎ পূর্ববর্তী জাতিগুলোর জন্য ছিল কিতাবের অংশ বিশেষ, যা দিয়ে তারা বিচার আচার সম্পন্ন করত।
পক্ষান্তরে কোরআনুল কারীমের ভূমিকা ও প্রভাব সম্পর্কে সূরা বাকারার শুরুতে বলা হয়েছে : ‘এ সেই কিতাব যাতে কোন সন্দেহ নেই। (এটি) পথ প্রদর্শনকারী পরহেজগারদের জন্য…।’ উদ্ধৃত অংশে একটি বিষয় স্পষ্ট হয়ে গেছে যে, কুরআন শরিফ তাদেরই সঠিক পথ দেখাবে, যারা সঠিক পথ পাওয়ার জন্য আগ্রহী ও উদগ্রীব থাকে, হিদায়াতের মন-মানসিকতা নিয়ে এ পবিত্র গ্রন্থ তিলাওয়াত করে। যারা পুতঃপবিত্র মন প্রাণ নিয়ে এটি অধ্যয়ন ও তিলাওয়াত করবে, দুনিয়া ও আখিরাতে তারা অবশ্য সৌভাগ্যময় জীবনের অধিকারী হবে। এ কুরআনকে বলা হয়েছে শিফাউন লিন-নাস মানব জাতির জন্য নিরাময় বস্তু। আল্লাহ তায়ালা বলেন : এই হলো মানুষের জন্য বর্ণনাধারা, আর যারা ভয় করে তাদের জন্য উপদেশাবলী। (৩:১৩৮)।

এপ্রিল ১৭
০৩:২৯ ২০২১

আরও খবর