Daily Sunshine

স্বামীকে খুনের অভিযোগে আটক স্ত্রীর দায় স্বীকার

Share

মোহনপুর সংবাদদাতা: রাজশাহীর মোহনপুরে হারুন অর রশিদ (২৬) নামে এক যুবককে বিয়ের পঁচিশ দিনের মাথায় খুন করার অভিযোগে স্ত্রী কারিমাকে আটক করেছে পুলিশ। বুধবার দিবাগত রাতে উপজেলার জাহানাবাদ ইউনিয়নের বিষহারা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয়দের বরাত দিয়ে মোহনপুর থানা পুলিশের তদন্তকারী অফিসার এসআই পারভেজ রানা পলাশ জানান, চলতি বছরের ১৯ মার্চ জাহানাবাদ ইউনিয়নের বিষহারা গ্রামের বাসিন্দা রয়েজুল মন্ডলের ছেলে হারুন অর রশিদের সাথে ধুরইল ইউনিয়নের ভিমনগর পালশা গ্রামের কামাল হোসেনের মেয়ে ৮ম শ্রেণির ছাত্রী কারিমা খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই স্বামীকে সে অপছন্দ করে। এ নিয়ে মনোক্ষুন্ন ছিলো স্ত্রী কারিমা খাতুন।
গত বুধবার রাত ১০টার দিকে খাওয়া-দাওয়া শেষে স্বামী স্ত্রী ঘুমোতে যায়। সুযোগ বুঝে স্ত্রী কারিমা পাটের রশি দিয়ে স্বামীর দুই পা বেঁধে গলায় রশি পেঁচিয়ে স্বামী হারুন অর রশিদকে শ্বাসরোধে হত্যা করে। পরিবারের অন্যরা বিষয়টি টের পেয়ে পুলিশে খবর দেন।
পরে পুলিশ গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় স্ত্রী কারিমাকে পুলিশ আটক করেছে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ ও ১৬৪ ধারার জবানবন্দিতে স্বামীকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে কারিনা। এ বিষয়ে মোহনপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত পাটের রশি ও গামছা আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে।
খুনের ঘটনায় এলাকাটি পরিদর্শন করেছেন রাজশাহী জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সুমন দেব, মোহনপুর থানা কর্মকর্তা ওসি তৌহিদুল ইসলাম, তদন্ত ওসি তৌহিদুর রহমানসহ অফিসার ফোর্সরা।
এদিকে হারুনের পরিবারের দাবি স্ত্রী কারিমা খাবারের সাথে চেতনানাশক মিশিয়ে পরিকল্পিতভাবে হারুনকে খুন করছে। এ ঘটনার সাথে অন্য কেউ জড়িত থাকতে পারে।
মোহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি তৌহিদুল ইসলাম জানান, আসামী কারিমা খাতুনকে আদালতে তোলা হলে বয়স বিবেচনা করে বিজ্ঞ আদালত তাকে গাজীপুর কিশোরী উন্নয়ন কেন্দ্র ও সংশোধনাগারে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এপ্রিল ১৬
০৩:২৭ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]