Daily Sunshine

খোলা রয়েছে রাজশাহীর বেশিরভাগ দোকানপাট

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহীতে সরকারঘোষিত বিধিনিষেধের তৃতীয় দিনেও বিক্ষোভ করেছেন ব্যবসায়ীরা। বুধবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে প্রায় আধা ঘণ্টা নগরের সাহেববাজার এলাকায় কাপড়পট্টির ব্যবসায়ীরা দোকান খোলার দাবিতে বিক্ষোভ করেন। এর আগে ৫ এপ্রিল দোকানপাট খুলে দেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছিলেন রাজশাহীর ব্যবসায়ী নেতাসহ কর্মচারী-দোকানিরা।
ব্যবসায়ীরা বলছেন, সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে যে এটা লকডাউন নয়, কঠোর বিধিনিষেধ। কিন্তু সরকারি অফিস–আদালতসহ সবকিছু খোলা আছে। গণপরিবহনও চালু হয়ে গেছে। তাহলে শুধু দোকানপাট কেন বন্ধ থাকবে। গত বছর করোনায় তাঁরা অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন।
এবার ঈদ সামনে রেখে তাঁরা দোকানে মালপত্র তুলেছেন। এবারও দোকানপাট বন্ধ রাখলে তাঁদের একেবারে পথে বসতে হবে। তাঁরা দোকান খুলে ব্যবসা চালাতে চান। আজ তাঁরা অনেকেই দোকান খুলেছিলেন। সকালে ম্যাজিস্ট্রেট এসে দোকান বন্ধ করার কথা বলেন।
রাজশাহী বস্ত্র ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি অশোক কুমার সাহা বলেন, ম্যাজিস্ট্রেট এসে দোকান বন্ধ করতে বলেন। দোকানিদের জরিমানা করতে চান। তাঁরা জরিমানা না করার জন্য অনুরোধ করেন। পরে ম্যাজিস্ট্রেট চলে যান। এই খবরে কয়েকজন দোকান কর্মচারী ও ব্যবসায়ী রাস্তায় নেমে অবরোধ করেন। কেউ শুয়ে পড়েন।
পরে তাঁদের বুঝিয়ে রাস্তা অবরোধ ছাড়ানো হয়। দেশের সবকিছু চালু আছে। সরকার শুধু দোকান বন্ধ রাখতে বলছেন। এটা ন্যায্য হতে পারে না। হয় লকডাউনে সবকিছু বন্ধ থাকবে, নইলে কিছুই বন্ধ থাকবে না।
রাজশাহী জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রিয়াংকা দাস বলেন, সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক দোকানপাটসহ শপিং মল বন্ধ থাকবে, সেটাই তাঁরা জানাতে গিয়েছিলেন। সেখানে পরে কিছু হয়েছে কি না, তা তাঁর জানা নেই।
এদিকে, সারা দেশব্যাপী চলমান এক সপ্তাহের লকডাউনের তৃতীয় দিন বুধবার রাজশাহী শহরের বেশিরভাগ দোকান খোলা রয়েছে। জেলার ১১০টি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের জোট রাজশাহী ব্যবসায়ী ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক মাকসুদুর রহমান বলেছেন, ‘গত সোমবার জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে।
সেখানে দোকান খোলা রাখার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আমাদের জানানো হয়নি। সরকারের উচ্চ পর্যায়ে যোগাযোগ করে তা জানানো হবে। তাই আমরা দোকান খোলোর বিষয়ে কোনো আনুষ্ঠানিক সিদ্ধান্ত নিইনি। কিন্তু, ব্যবসায়ীদের যারা নিরুপায় হয়ে গেছেন তারাই মূলত দোকান খুলেছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি।
এদিকে, বুধবার বেলা ১১টার দিকে সাহেববাজার এলাকায় দোকানপাট খোলা দেখে বন্ধ করতে হবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্টেট। এ সময় ব্যবসায়ীরা দোকান বন্ধ না করে বিক্ষোভ শুরু করে। এক পর্যায়ে তারা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
রাজশাহীর বোয়ালিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিরারণ চন্দ্র বর্মণ বলেছেন, ‘আমরা কাউকে (দোকান খুলতে) মানা করছি না। অল্প সংখ্যক দোকান খোলা আছে। দোকানদাররা বলছেন, তারা দোকান পরিষ্কার করার জন্যে খুলেছেন। হিসাব করার জন্যে বসেছেন। তারা অল্প সময় পর দোকান বন্ধ করে দেবেন বলেও জানিয়েছেন।’ সরেজমিনে দেখা গেছে নগরীর বেশিরভাগ দোকানই খোলা আছে। তবে ক্রেতার সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম।

এপ্রিল ০৮
০৭:৪৯ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

এমপি ফারুক চৌধুরী মাতার দাফন সম্পন্ন

রাজশাহী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরীর মা মঞ্জুুরা বেগম চৌধুরীর দাফন সম্পন্ন হয়েছে। দুুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে রাজশাহী নগরীর কাদিরগঞ্জ লাল মোহাম্মাদ ঈদগাহ মাঠে নামাজে যানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। যানাজা পড়ান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত