Daily Sunshine

রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন হওয়া মুক্তিযোদ্ধার নাম নতুন তালিকায় নেই

Share

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) গঠিত কমিটি দ্বারা বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাইয়ের প্রতিবেদন সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে। ২০০৫ সালের ২২ নভেম্বর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বেসামরিক গেজেটের তালিকাভুক্ত (গেজেট নম্বর ছিল ১৩০৫) বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. লোকমান হাকিমের নাম এই নতুন তালিকায় নেই।

রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌরসভার হরিদাগাছি গ্রামের বাসিন্দা লোকমান হাকিম গত বছরের ১১ ডিসেম্বর বার্ধক্যজনিত কারণে মৃত্যুবরণ করলে তাকে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়।

ডিসি, ইউএনওসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তারা তাকে বীর মুক্তিযোদ্ধার সম্মান জানিয়ে শ্রদ্ধাও জানান। তার কয়েক মাস পরেই প্রকাশিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের চূড়ান্ত তালিকা থেকে মো. লোকমান হাকিমের নাম বাদ দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধা, স্থানীয় জনগণ ও পরিবারের সদস্যরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। একইসঙ্গে তারা মো. লোকমান হাকিমের নাম আবারও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার দাবিতে মন্ত্রণালয়সহ বিভিন্ন জায়গায় ঘুরছেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিমের বাবার নামের সঙ্গে বংশীয় পদবী ‘প্রাং’ থাকা-না থাকা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে তার নাম তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। তবে এই বিষয়টি ইস্যু বানানো হলেও মূলত গ্রুপিংয়ের কারণে বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিমের নাম নতুন তালিকায় রাখা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও পরিবারের সদস্যরা।

তারা বলছেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে নেতৃত্ব নিয়ে গ্রুপিং আছে। লোকমান হাকিম জীবিত থাকাকালীন যে গ্রুপের সঙ্গে চলাফেরা করতেন বর্তমানে তারা নেতৃত্বে নাই। তাই অন্য গ্রুপের নেতারা যাচাই-বাছাইয়ের সময় ছোট একটি বিষয়কে ইস্যু বানিয়ে বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিমের নাম বাদ দিয়েছেন।

এদিকে, বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিমের নাম নতুন কমিটিতে না রাখায় মোহনপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই কমিটির সিদ্ধান্তে সংক্ষুব্ধ হয়ে কমিটির নিকট সুবিচার চেয়ে আপিল করেছেন হাসান মাহমুদ (লিটন)। আপিল দায়েরের কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেছেন যে, (ক) স্বাক্ষীগণের স্বাক্ষর সঠিকভাবে গ্রহণ করা হয়নি; (খ) স্বাক্ষীগণকে ডাকাও হয়নি; (গ) পক্ষপাতিত্ব ও গ্রুপিংয়ের কারণে বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিমের নাম বাদ দেয়া হয়েছে।

আপিলের সঙ্গে মুক্তিযুদ্ধকালীন টিম কমান্ডার ও আঞ্চলিক কমান্ডার স্বাক্ষরিত প্রত্যয়নপত্র; গেজেটসহ বিভিন্ন সময়ের তালিকায় বীর মুক্তিযোদ্ধা লোকমান হাকিমের নাম অন্তর্ভুক্তির তালিকা; মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রদত্ত সাময়িক সনদপত্রের অনুলিপির ফটোকপিসহ বিভিন্ন কাগজপত্র সংযুক্ত করা হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধকালীন টিম কমান্ডার মো. আব্দুল মান্নান ও আঞ্চলিক কমান্ডার মো. সিদ্দিকুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রত্যয়নপত্রে বলা হয়, রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার কেশরহাট পৌরসভার হরিদাগাছি গ্রামের বাসিন্দা মৃত সোলাইমান আলী প্রাং-এর ছেলে লোকমান হাকিম।

তিনি মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে আমার অধীনে সাহায্যকারী ও সহযোগিতাকারী হিসেবে সক্রিয়ভাবে বৃহত্তর রাজশাহীর মান্দা, নিয়ামতপুর ও মোহনপুর থানার বিভিন্ন অপারেশনে অংশগ্রহণ করেছেন।

এ বিষয়ে কমান্ডার মো. সিদ্দিকুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, লোকমান হাকিম আজকে মুক্তিযোদ্ধা নন, তিনি ৫০ বছর আগে নিজের জীবন বাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করা মুক্তিযোদ্ধা। সেই স্বীকৃতিও দেশ তাকে অনেক আগেই দিয়েছিল।

কিন্তু সম্প্রতি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে মুক্তিযোদ্ধার তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে। জাতির এমন সূর্য সন্তানদের এভাবে হয়রানি করা খুবই দুঃখজনক বলেও জানান তিনি।

এপ্রিল ০৮
০৭:১৭ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

এমপি ফারুক চৌধুরী মাতার দাফন সম্পন্ন

রাজশাহী-১ আসনের সংসদ সদস্য, সাবেক শিল্প প্রতিমন্ত্রী ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ্ব ওমর ফারুক চৌধুরীর মা মঞ্জুুরা বেগম চৌধুরীর দাফন সম্পন্ন হয়েছে। দুুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে রাজশাহী নগরীর কাদিরগঞ্জ লাল মোহাম্মাদ ঈদগাহ মাঠে নামাজে যানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। যানাজা পড়ান রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত