Daily Sunshine

লকডাউনে ব্যাংক লেনদেনের বিষয়ে নির্দেশনা রোববার

Share

সানশাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে ফের এক সপ্তাহের জন্য সারা দেশে লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। এমন পরিস্থিতিতে ব্যাংকে বিদ্যমান নিয়মেই লেনদেন চলবে কি না, এ বিষয়ে রোববার সিদ্ধান্ত নেবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। সে অনুযায়ী লেনদেনের বিষয়ে নির্দেশনা দেওয়া হবে।
শনিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সিরাজুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘সরকার সোমবার থেকে লকডাউন ঘোষণা করেছে। ব্যাংকে লেনদেনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য এক দিন সময় আছে। ফলে লকডাউনে কীভাবে ব্যাংকের কার্যক্রম চলবে, সে বিষয়ে রোববার কেন্দ্রীয় ব্যাংক সিদ্ধান্ত জানাবে।’
করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত ২৯ মার্চ সরকার ১৮ দফা নির্দেশনা জারি করেছিল। সরকার ঘোষিত বেশ কয়েকটি নির্দেশনা যথাযথভাবে পরিপালন করতে দেশে কার্যরত ব্যাংকগুলোকে নির্দেশ দিয়ে গত বুধবার (৩১ মার্চ) প্রজ্ঞাপন জারি করেছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
উল্লেখ্য, গত বছর করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি চলাকালে দেশের তফসিলি ব্যাংকগুলো সীমিত আকারে লেনদেন চালু রেখেছিল। ওই সময় ব্যাংকে লেনদেন করা যেত সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। ব্যাংকগুলো বিকেল ৩টা পর্যন্ত খোলা ছিল।

এপ্রিল ০৪
০৬:১৮ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকছে, বন্ধ থাকছে যানবাহনও। বিধি-নিষেধ থাকছে সার্বিক কার্যাবলী ও চলাচলেও। সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। বন্ধ থাকছে: সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান। সকল প্রকার পরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল, অভ্যন্তরীণ

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত