Daily Sunshine

হাসপাতালে শয্যা সংকটে মেঝেতে রোগীরা রাণীনগরে ডায়রিয়ার প্রদুর্ভাব

Share

রাণীনগর প্রতিনিধি: নওগাঁর রাণীনগরে ডায়রিয়া রোগের ব্যাপক প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। হাসপাতালে প্রতিদিনই আসছে ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীরা। ডায়রিয়ার প্রাদুর্ভাব নিয়ন্ত্রণে ৮টি ইউনিয়নে মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। শয্যা স্বল্পতার কারণে মেঝেতে রেখে রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছে কর্তৃপক্ষ। বয়স্ক রোগীদের পাশাপাশি শিশুরাও এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।
হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, উপজেলায় হঠাৎ করেই ডায়রিয়া ও পেটে ব্যাথা রোগের প্রাদুর্ভাব চরম আকারে দেখা দিয়েছে। যার কারণে ৫০ শয্যার হাসপাতালে পর্যাপ্ত পরিমাণ শয্যা না থাকায় বাধ্য হয়েই মেঝেতে শয্যা করে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। গত এক মাসে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অন্তত দুই শতাধিক ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগী ভর্তি হয়েছে। আরো শতাধিক রোগী প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি চলে গেছেন।
ডায়েরিয়া রোগে আক্রান্ত আতাইকুলা গ্রামের রহিমা বিবি (৭০) জানান, ডায়েরিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার পর হাসপাতালে চিকিৎসক তাকে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরামর্শ দেন। কিন্তু শয্যা না থাকার কারণে মেঝেতে শয্যা করে তিনি চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া বিলকৃষ্ণপুর গ্রামের জব্বার আলী (৬৬) জানান, পেটে ব্যাথা নিয়ে হাসপাতালে এলে চিকিসক তাকে ভর্তি হওয়ার নির্দেশ দিলে ভর্তি হন কিন্তু শয্যা না থাকার কারণে মেঝেতে চিকিৎসা নিতে হচ্ছে। ওষুধের কোন সমস্যা নেই। হাসপাতাল থেকে যথেষ্ট ওষুধসহ অন্যান্য সেবা পর্যাপ্ত পরিমাণ দিচ্ছে।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ইফতেখারুল আলম খান বলেন, ৫০ শয্যার হাসপাতালে ভর্তিকৃত অন্য রোগীর পাশাপাশি ডায়েরিয়া ও পেটে ব্যাথা রোগীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় শয্যা সংকট দেখা দিয়েছে। বেড না থাকায় হাসপাতালের মেঝেতে রোগীরা বিছানা পেতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। হাসপাতালের অন্যান্য চিকিৎসক ও সেবিকারা সবসময় রোগীদের সেবা দিয়ে আসছেন। শিশুদের আলাদা কর্ণারে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।
তিনি আরো বলেন, আবহাওয়াজনিত কারণে এ রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। তবে সকলকে পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি পঁচা-বাসি ও নষ্ট হওয়া খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকাসহ শিশুদের ঠান্ডা না লাগানোর আহবান জানান তিনি। সেই সাথে বেশি বেশি বিশুদ্ধ পানি ও তরল জাতীয় খাবার খাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

এপ্রিল ০১
০৬:২৮ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকছে, বন্ধ থাকছে যানবাহনও। বিধি-নিষেধ থাকছে সার্বিক কার্যাবলী ও চলাচলেও। সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। বন্ধ থাকছে: সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান। সকল প্রকার পরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল, অভ্যন্তরীণ

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত