Daily Sunshine

বাগমারায় আবারও মাদকের ছোবল

Share

স্টাফ রিপোর্টার, বাগমারা: রাজশাহীর বাগমারা উপজেলায় আবারও রমরমা হয়ে উঠছে মাদকের করবার। মাঝে মাঝে প্রশাসনের তৎপরতা চোখে পড়লেও আশঙ্কাজনক ভাবেই বাড়ছে মাদকের ব্যবহার। মাদক কারবারে গড়ে উঠছে নতুন নতুন সিন্ডিকেট।
খোজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার প্রায় শতাধিক স্পটে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রন করছে পুরাতনের পাশাপাশি নতুন নতুন সিন্ডিকেট। এসব সিন্ডিকেটের সদস্যরা ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। এর আগে গত ৯ মার্চ ভবানীগঞ্জ বাজারের কামারহাটি এলাকায় অভিযান চালিয়ে র‌্যাব ১২ বোতল ফেন্সিডিলসহ মাদক সেবনকারী ও ব্যবসায়ী মিলে সাতজনেক আটক ও মাদক কেনা বেচার কাজে ব্যবহৃত ৫৭ হাজার টাকা উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। তারপরও থেমে নেই মাদকের বেচাকেনা। একই সিন্ডিকেট ভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে চালিয়ে যাচ্ছে এ কারবার।
এলাকা সূত্রে জানা গেছে, প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন স্থানে চলে মাদকের ব্যবসা। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গোপনে ও প্রকাশ্যে চলছে মাদকের কেনাবেচা। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নিরাপদ স্থানে চাহিদামত মাদক সরবরাহ করে আসছে এসব সিন্ডিকেট। মাদকের এ বিস্তারের জন্য স্থানীয়রা পুলিশের নিষ্ক্রিয়তাকেই দায়ী মনে করছে তারা। মাদকের ব্যবহার বেড়ে যাওয়ায় এলাকায় চুরির ঘটনাও বাড়ছে বলে দাবী করছেন অনেকেই।
সম্প্রতি ভবানীগঞ্জ বাজারের বিভিন্ন দোকানে চুরির ঘটনায় মাদকাসক্তরা জড়িত থাকার সন্দেহ করছেন স্থানীয়রা। নেশার টাকা যোগাড় করতেই চুরির পথ বেছে নিচ্ছে এমন অভিমত ভুক্তভোগিদের। বাজার সংলগ্ন গোড়াউন মোড়, পল্লী বিদ্যুত মোড়, ব্র্যাক মোড় মাদকের আখড়া হিসেবে চিহ্নিত। এছাড়াও হ্যালপ্যাড মাঠের পেছনে, সিনেমা হল পট্টিসহ কয়েকটি স্পটে দীর্ঘদিন থেকে মাদক ব্যবসা চলছে। অপরদিকে তাহেরপুর পৌর এলাকায় মাদকের ভয়াবহ বিস্তার লাভ করেছে।
তাহেরপুর-দুর্গাপুর রোড়, স্লুইসগেট এলাকাসহ কয়েকটি স্পটে চলছে কেনাবেচা। স্থানীয়রা জানায়, রাজশাহীর চারঘাটের টাঙন এলাকার চোরাচালানির সহযোগিতায় ওই এলাকা হতে মাদকের চালান এনে তা বাগমারার তাহেরপুর, ভবানীগঞ্জ, শিকদারী থেকে বিভিন্ন গ্রামে সরবরাহ করা হয়।
পার্শ্ববর্তী আত্রাই উপজেলার চিহ্নিত কিছু মাদকসেবী মটরসাইকেল যোগে বাগমারায় এসে নির্বিঘ্নে মাদক সেবন করছে। সম্প্রতি শিকদারী বাজারে তাদের আনাগোনায় বাজারের ব্যবসায়ী মহল উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠেছে। হাত বাড়ালেই ভবানীগঞ্জ, তাহেরপুর, শিকদারী, মচমইল বাজার, হাট গাঙ্গোপাড়া বাজারসহ বিভিন্ন স্পটে ফেন্ডিডিল, হেরোইন, ইয়াবা পাওয়া যাচ্ছে।
এছাড়াও উপজেলার কতিপয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, গণ্যমান্য ব্যাক্তি, শিক্ষক ছাত্র, ভ্যান চালকসহ অনেকেই মাদক সেবনে জড়িত বলে সূত্র জানিয়েছে। আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোঁখ ফাঁকি দিয়ে নিত্য নতুন কৌশলে চলছে মাদক ব্যবসা ও সেবন। এরআগে তাহেরপুরের সহদর দুই ভাই ও বাসুপাড়া ইউনিয়নের দ্বীপনগর এলাকার এক শিক্ষকের অতিরিক্ত মাদকসেবনে মৃত্যু হলেও থেমে নেই ওই এলাকায় মাদক ব্যবসা। মচমইল বাজার এলাকায় স্পিরিট পানে যুবকের মৃত্যু হলেও ওই এলাকায় হোমিও চিকিৎসার আড়ালে চলছে মাদক ব্যবসা।
এছাড়াও ফেন্সিডিল, গাঁজাসহ অন্যান্য মাদকের প্রকোপ ওই এলাকায় বেশী বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মচমইল বাজারের জনৈক ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন। এছাড়াও বীরকুৎসা বাজার, তালঘরিয়া পলিথিন বাজারের সড়কুতিয়া রোড, গাঁজা ব্যবসা ও সেবন এখন ওপেট সিক্রেট। ফলে হতাশাগ্রস্থ বেকার যুবকরা বেশী ঝুঁকছে মাদকের গহীন অরণ্যে। তবে অচিরেই মাদকের করাল গ্রাস থেকে বাগমারাকে মুক্ত করতে প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন উপজেলাবাসী।
এ বিষয়ে বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোস্তাক আহম্মেদ জানান, এখন বিট পুলিশিং কার্যক্রম জোরদার হওয়ায় তৃণমূল পর্যন্ত আমরা সকল খবর পাচ্ছি। মাদকের ব্যাপারে আমরা জিরো টলারেন্স নীতি অবলম্বন করেছি। ওসি মাদক নির্মূল করতে জনপ্রতিনিধিসহ সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতার আহবান জানান।

মার্চ ৩১
০৬:১৯ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

ঈদের আগে ৫০ লাখ পরিবার পাচ্ছে আর্থিক সহায়তা

সানশাইন ডক্সে; করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ওয়েভে ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ গরিব পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার চিন্তা করছে সরকার। প্রত‌্যকে পরিবারকে ২৫০০ টাকা করে দেওয়া হবে। ঈদের আগে মোবাইলের মাধ্যমে সুবিধাভোগী পরিবারের হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহার হিসেবে এ অর্থ পৌঁছে দেওয়া হবে বলে অর্থ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে। সূত্র জানায়, সম্প্রতি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত