Daily Sunshine

সর্বত্র স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত রাজশাহীতে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ

Share

স্টাফ রিপোর্টার : করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের জন্য পৃথক দুইটি ওয়ার্ড চালু করা হচ্ছে। সোমবার থেকে হাসপাতালের ২৫ ও ২৭ নম্বর ওয়ার্ড এখন থেকে করোনা ওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।
মঙ্গলবার রামেক হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা সাইফুল ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করে জানান, এটি প্রাথমিক প্রস্তুতি। প্রয়োজন হলে করোনা চিকিৎসায় পরে আরও নতুন ব্যবস্থাপনা আসতে পারে।
এর আগে গত বছরের মার্চে দেশে করোনার প্রথম ওয়েভ শুরু হলে রামেক হাসপাতালের উত্তরে থাকা ওটি (অপারেশন থিয়েটার) বিভাগের পাশে ২৯ ও ৩০ নম্বরসহ আইসিইউ ওয়ার্ডে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হয়। এছাড়া করোনার ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে রাজশাহীর খ্রিস্টান মিশন হাসপাতাল ভাড়া নেওয়া হয়েছিলো। করোনা রোগী কমে যাওয়ায় পরে সেটি বন্ধ করে দেওয়া হয়।
এদিকে, রাজশাহী বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সোমবার পর্যন্ত একদিনে সর্বোচ্চ পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের একজন চিকিৎসকও রয়েছেন। রাজশাহী বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিভাগের আট জেলায় এ পর্যন্ত ৪০৮ জনের মৃত্যু হলো। এর মধ্যে সর্বোচ্চ ২৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে বগুড়ায়। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫৬ জনের মৃত্যু হয়েছে রাজশাহীতে। এছাড়া চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৪ জন, নওগাঁয় ২৬ জন, নাটোরে ১৩ জন, জয়পুরহাটে ১০ জন, সিরাজগঞ্জে ১৮ জন এবং পাবনায় ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে।
রাজশাহীতে প্রতিদিন বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমণ। একইসঙ্গে স্থানীয়দের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি পালনে উদাসিনাও বৃদ্ধি পেয়েছে। সাধারণ মানুষের পাশাপাশি উল্লেখযোগ্য সংখ্যক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীরাও করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। হাসপাতালে বাড়ছে রোগীর চাপ।
জানুয়ারির শেষের দিকে স্বাস্থ্য বিভাগের দেয়া রাজশাহী জেলার জন্য ১ লাখ ৮০ হাজার ডোজ করোনা প্রতিষেধক ভ্যাকসিন গ্রহণ করেন স্থানীয় সিভিল সার্জন। তবে আগামী দুই থেকে তিন দিনের মধ্যেই এই ভ্যাকসিনগুলো শেষ হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন রাজশাহীর সিভিল সার্জন ডা. কাইয়ুম তালুকদার। শুরুর দিকে ভ্যাকসিনের চাহিদা সিটি কর্পোরেশন কেন্দ্রিক থাকলেও দিন গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে উপজেলা এলাকাগুলোতেও ভ্যাকসিনের চাহিদা বেড়েছে।
রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলার মধ্যে রাজশাহী জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। স্বাস্থ বিভাগের দেয়া তথ্য মতে, গত ১০ দিনে রাজশাহী বিভাগে শনাক্ত ৫০৮ জন করোনা পজিটিভ রোগীর মধ্যে ২০৩ জনই রাজশাহী জেলার। আর আক্রান্তদের অধিকাংশই রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাসিন্দা। এদিকে রাজশাহীতে করোনার নমুনা পরীক্ষার জন্য দুইটি আধুনিক ল্যাব থাকলেও মাত্র একটিতে নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এমন অবস্থায় রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজের ল্যাব কর্তৃপক্ষ মাত্র ১২ জন জনবল নিয়ে ৩ থেকে ৪ সিফটে নমুনা পরীক্ষা করতে বাধ্য হচ্ছেন। আর রামেক হাসপাতালে এতদিন জনবলের কারণে ল্যাব বন্ধ থাকলেও নতুন করে দুইজন জনবল দেয়ার পরো তা এখনো চালু করা হয়নি।
এ অঞ্চলে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পেলেও স্থানীয়দের মাঝে স্বাস্থ্যবিধি অনেকটাই উপেক্ষিত বিষয় হয়ে দাড়িয়েছে। বাজার-হাট, অফিস-আদালতসহ যানবাহনে মানুষের মাঝে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা, মাস্ক পরা ও হ্যাণ্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার কমে এসেছে। অবশ্য এজন্য নাগরিকদের উদাসিনতার পাশাপাশি প্রশাসনের নজরদারিতে শিথিলতাকেও দায়ি করছেন বিশেষজ্ঞরা।
রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সর্বশেষ দেয়া তথ্য মতে, রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ২৮ জন করোনা আক্রান্ত রোগী ভর্তি আছেন। যাদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ ৮জন আইসিইউতে চিকিৎসাধীন। আর ৩৩ জনকে সন্দেহভাজন করোনা আক্রান্ত হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তারাও এই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগী বৃদ্ধি পাওয়ায় ২৫ ও ২৭ নম্বর ওয়ার্ড প্রস্তুত করা হয়েছে।
রামেক হাসপাতালের উপপরিচালক ও হাসপাতালটির মুখপাত্র ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, করোনা রোগীদের চাপ বাড়ছে হাসপাতালে। এসব রোগীদের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে রামেক হাসপাতালে পৃথক দুইটি নতুন ওয়ার্ড চালু করা হয়েছে। অক্সিজেন বোর্ডগুলো সংস্কার করা হয়েছে। জনবল সংকটের কারণে হাসপাতালের করোনা পরীক্ষা ল্যাব বন্ধ ছিল। তবে দুইজন জনবল পাওয়া গেছে। প্রয়োজনে ল্যাব আবারো চালু করা হবে।

মার্চ ৩১
০৬:০৬ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

ঈদের আগে ৫০ লাখ পরিবার পাচ্ছে আর্থিক সহায়তা

সানশাইন ডক্সে; করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ওয়েভে ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লাখ গরিব পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেওয়ার চিন্তা করছে সরকার। প্রত‌্যকে পরিবারকে ২৫০০ টাকা করে দেওয়া হবে। ঈদের আগে মোবাইলের মাধ্যমে সুবিধাভোগী পরিবারের হাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঈদ উপহার হিসেবে এ অর্থ পৌঁছে দেওয়া হবে বলে অর্থ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে। সূত্র জানায়, সম্প্রতি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত